স্বপ্নের_crush ? (in reality) Part-13+14

0
3316

স্বপ্নের_crush ? (in reality)
Part-13+14
writer : Borno ☺
ছদ্দনামঃ Samiya Arohi
………..

.
অরনিঃ আমি নিজে না পাই কিন্তু ওকে ওর ভালোবাসার মানুষকে পাইয়ে দিতে চাই। আম সরি অর্ণব ???? কিন্তু আমি আগে যা বলেছি এবং এখন যা বলছি সবটা সত্যি

অরনি মুখটা নিচু করে রেখেছে। ওর মুখ দেখেই বোঝা যাচ্ছে ও অনেক অপরাধ বোধ করছে, অপরাধ বোধে মুখ তুলে তাকাচ্ছে না
তখনই অর্ণব অরনিকে অবাক করে দিয়ে ওর গালে একটা ?? দিয়ে দিলো। অরনি চোখ বড় বড় করে তাকালো ? অরনি এমন কিছু আশা করেনি

অর্ণবঃ তুমি কি জানো আমি তোমার উপর একটুও রাগ করিনি? তার প্রথম কারণ হলো তুমি সত্যি বলেছো, মিথ্যা বলোনি। আর ২য় কারণ তুমি তোমার বোনের জন্য প্লান করেছিলে। অর্থাৎ তুমি তোমার বোনকে অনেক ভালোবাসো। তাহলে আমাকে ভালোবাসলে আরও ভালোবাসবে ? আর ৩য় কারণ হলোওওওও (বলেই অরনিকে কোমড় জড়িয়ে আমার কাছে টেনে নিলাম, তারপর ওর কাধে আমার থুতনি রেখে বললাম) আর ৩য় কারণ হলো আমি যে তোমাকে বড্ড ভালোবেসে ফেলেছি

অরনিঃ ( এমনিতেই উনার রাগ না করায় আমি অবাক, ২য়ত উনি আমাকে এভাবে টেনে নেওয়াতে আমি কাপছি, আর তারপর উনি যা বললেন এতে আমি হার্ট এটাক করার চূড়ান্ত পর্যায়ে ?? ? )

অর্ণবঃ কি ব্যাপার কিছু বলছো না যে? আর এভাবে কাপছো কেন?
অরনিঃ ( আমাকে ধরে রেখেছে আবার জিগায় ?) আ….আপ.. আপনি একটু স…সরে বসবে…ন?

অর্ণবঃ ? ওহ সরি ? হাহা এই জন্য তুমি এতো নার্ভাস? বিয়ের পর যে কি করবা??
অরনিঃ ???

অর্ণবঃ ওহ আর একটা কথা,,,, আমার মা কিন্তু তোমাকে বউমা হিসেবে অনেক পছন্দ করেছে
অরনিঃ ?? (উনি যে হারে আমাকে শক দিচ্ছেন এতে আমি যে কত বার আকাশ থেকে পড়ছি তার হিসেব নেই )

অর্ণবঃ চলো, বাসায় যাই। লেট হয়ে যাচ্ছে
অরনিঃ (কিছু না বলে চুপচাপ গাড়িতে বসে পড়লাম)
অর্ণবঃ ওর ফেস দেখে প্রচন্ড হাসি পাচ্ছে ??
অর্ণব অরনিকে বাসায় পৌঁছে দিয়ে গেলো
________________________
পরেরদিন অরনির বাসায়,
আরোহিঃ অরনি আর আমার তুমুল ঝগড়া চলছে হেয়ার ড্রায়ার নিয়ে,, যেই হেয়ার ড্রায়ারটা আমি কেড়ে নিয়েছি সাথে সাথে আম্মুর এন্ট্রি,,, ছো মেরে আমার হাত থেকে হেয়ার ড্রায়ারটা নিয়ে চলে গেলো আর হুমকি দিলো আম্মুর হেয়ার ড্রায়ার থেকে দূরে থাকতে…
আসলে আমাদের ২জনের ঝগড়াতে অতিষ্ট হয়ে আব্বু আমাদের ২জনকে ২ টা হেয়ার ড্রায়ার কিনে দিয়েছিলেন। কিন্তু আমাদের মারামারিতে ২টাই শহিদ হয়ে গেছে। তাই এখন আম্মুরটা নিয়ে মারামারি চলছিলো ?? কিন্তু আম্মুও নিষ্ঠুরতার চরম রূপ দেখিয়ে চলে গেলো ??

অরনিঃ হাহাহা ঠিক হয়েছে, বেশ হয়েছে
আরোহিঃ যেই ওকে মারতে গেলাম পালালো। বড্ড পেকে গেছে ?? বাধ্য হয়ে ভেজা চুল নিয়েই রেডি হলাম। তবে এতক্ষনে অনেকটা শুকিয়ে গেছে। শুধু চুলের নিচের দিকটা একটু ভেজা,,, একটা সাদা গাউন পরেছি। আসলে আমার সাদা কালার খুব পছন্দ। গাউনের নিচটা অনেক হেভি কাজ করা,, কিন্তু উপরটা হালকা কাজ, আবার হাতায় কাজ। অনেক সুন্দর ড্রেস… হালকা মেকআপ করলাম আর ব্রেসলেট পরলাম, চুল ছাড়া,, ব্যাস.. এতেই পারফেক্ট।
আমার ফ্রেন্ডরা আমাকে নিতে এসেছে। আমিও রেডি হয়ে নিচে নামলাম,
মিতুঃ ওয়াও তোকে জোস লাগছে
নিশাঃ অনেক সুন্দর লাগছে রে, আজকে সবাই হা হয়ে থাকবে
আরোহিঃ থ্যাংকস,, তোদের আরও সুন্দর লাগছে
মিতু ও নিশাঃ থ্যাংকস
আমরা কলেজের জন্য রওনা দিলাম
________________________
কলেজে,
আরোহিঃ আমি ঢুকতেই দেখি অনেকে আমার দিকে তাকিয়ে আছে। আমার এগুলো পছন্দ না, তাই কেমন আনইজি ফিল হচ্ছিলো।

সামনে তাকিয়ে দেখলাম অহি দাঁড়িয়ে। মেরুন শার্ট, ব্লাক জিন্স, ব্লাক জ্যাকেট পড়েছে,,, পুরাই হিরো লাগছে ? কিন্তু ওর সাথে বেমানার নিহা দাঁড়িয়ে আছে। নিহা একটু বেশি স্টাইল করছে, যেটা ওভার। আর বার বার অহির সাথে ক্লোজ হওয়ার চেষ্টা করছে কিন্তু অহি সরে যাচ্ছে। এটা দেখে তো আমার মাথা গরম হয়ে যাচ্ছে।

কিন্তু অহি আমার দিকে তাকাতেই আমি চোখ নামিয়ে ফেললাম। একটু পর দেখি ও এখনও আমার দিকেই তাকিয়ে আছে। আমার লজ্জা লাগছিলো। তাই তাড়াতাড়ি চলে আসলাম

আহানঃ হঠাৎ মনে হলো আরোহি আমার পেছনে, আসলে এখন আরোহি আমার আশেপাশে থাকলেও আমি বুঝতে পারি। পেছনে তাকাতেই আমি থ ? সাদা গাউনে ওকে একদম পরী লাগছিলো। চুল খোলা, কিছুটা ভেজা চুল, মুখে উড়ে এসে পড়ছে। হঠাৎ ও আমাকে দেখে লজ্জা পেলো। ইসসস এই লজ্জা পাওয়াটাও কি সুন্দর!! ? গাল দুটো লাল হয়ে গেছে। কিন্তু ও চলে গেলো,, কিন্তু আমার চোখ এখনও ওকেই খুজছে

নিহাঃ আহান ওদিকে কি দেখছো? আমি এইদিকে আমার দিকে দেখো

আহানঃ লিসেন নিহা আমি তোমাকে সেদিনই ক্লিয়ার করে দিয়েছি শুধু আরোহির সামনে ড্রামা করতে, তুমি সত্যি আমার গার্লফ্রেন্ড নও। আর আমি তোমাকে শুধু ২ দিনই গার্লফ্রেন্ড হতে বলেছিলাম। তুমি ভালোভাবেই জানো যে আমি তোমাকে পছন্দ করিনা । সো এইগুলা বন্ধ করো ( বলেই চলে আসলাম)

নিহাঃ ??
ওইদিকে সায়র আরোহিকে দেখে আবার পাগল হয়ে গেছে। আরোহিকে যে আজকে বেশ সুন্দর লাগছে। তাই অপেক্ষায় আছে কখন আরোহির সাথে কথা বলবে। কিন্তু আরোহির আশেপাশে ওর ফ্রেন্ড থাকায় কিছুই করতে পারছে না।
__________________
অনুষ্ঠান শুরু হলো,,
কয়েকটা গান ও নাচ হলো। এবার আরোহি আর আহানের ড্যান্স,,
আরোহি বেশ নার্ভাস। আসলে এতো গুলো মানুষের সামনে পারফর্ম করা তো সহজ না। আহান আরোহির কাছে এসে ওর হাত ধরে বললো, ” ভয় পেয়ো না আমি আছি তো। ভয় পেলে আমার চোখের দিকে তাকাবে। এবার এসো ” বলে আরোহির হাত ধরে স্টেজে নিয়ে গেলো। এবার ওদের ড্যান্স শুরু হবে,
.
to be continued………. ?

স্বপ্নের_crush ? (in reality)
Part-14
writer : Borno ☺
ছদ্দনামঃ Samiya Arohi
.
আহান আরোহির হাত ধরে স্টেজে নিয়ে গেলো। এবার ওদের ড্যান্স শুরু হবে,

আহান আরোহির বাংলা গানে ড্যান্স করার কথা কিন্তু হঠাৎ করে হিন্দি গান শুরু হয়ে গেলো। আরোহি এমনিতেই ভয় পাচ্ছিলো, আবার এখন গান পরিবর্তন হওয়াতে অবাক। কিন্তু আহানের কোনো মাঘা ব্যাথাই নেই। বরং আরোহিকে নিজের দিকে টান দিয়ে নাচতে শুরু করে।

আসলে এটা আহানেরই প্লান ছিলো। বাংলায় অনেক ভালো গান আছে কিন্তু ম্যামটা একটা ঘুমন্ত গান সিলেক্ট করে দিয়েছিলেন। আহান মুখ বুজে প্রাক্টিস করেছে ঠিকই কিন্তু তার প্লান ছিলো নিজের মন মতো গানে নাচার ??

আহান আরোহি “Tere Bin ” গানে ড্যান্স করছিলো।
Tere bin, tere bin
Tere bin, tere bin
Tera bina marna nahi
Jeena nahi tere bin (x2)

( আহান আরোহিকে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে, এরপর কাছে এনে লিফট করে উপরে উঠালো। এভাবে ড্যান্স করছিলো,, আরোহি আহান একে অপরের মধ্যে এতোটাই হারিয়ে গেছে যে ওরা ভুলেই গেছে ওরা কলেজের প্রোগ্রামে ড্যান্স করছে,, আর সাবই ওদের ড্যান্স এতো পছন্দ করছে যে কোনো টিচারই কোনো প্রতিবাদ করতে পারেনি)

(এরপর গানের সারগাম হচ্ছিলো তখন আরোহি ক্লাসিক্যাল ড্যান্স মিক্স করলো)
Pa Pa Pa Pa Pa Pa Pa Pa
Ga Ma Pa San Ni San Ni San Ni
Ma Ma Ma Ma Ma Ma Ma Ma Ma
Ga Re Pa Ma Ga)

Bawre piya lagge na jiya
Dekho mera man jalta diya
Jalta diya bhujhe na piya
Bhujhe na piya jalta diya

Hmm Mm..
(এই টুকু আরোহি আহানের আশে পাশে ঘুরে ক্লাসিক্যাল ড্যান্স করে নাচলো। ওদের নাচটা কাপল ড্যান্স আর ক্লাসিক্যাল ড্যান্সএর মিক্স। সবাই অনেক পছন্দ করেছে)
Tere bin, tere bin
Tere bin, tere bin
Tera bina marna nahi
Jeena nahi tere bin
tere bin tere bin………
( এখানেই ওদের ড্যান্স শেষ হলো। ওরা এখনও একে অপরের চোখের দিকে তাকিয়ে আছে। ওদের নাচ এতো সুন্দর হয়েছে যে সবাই এতোক্ষন থ হয়ে ওদের ড্যান্স দেখছিলো। ড্যান্স শেষ হওয়ার কিচ্ছুক্ষন পরও সবাই ওদের দেখতে চুপ করে আছে। ওদের জোড়ি দেখেই সবাই মনে মনে বলছে ” ওয়াহ! কিয়া জোড়ি হ্যায়”
হঠাৎ সবাই হাত তালি দিলো। এতোক্ষনে ওদের মনে পড়লো ওরা স্টেজে। আরোহি তো লজ্জায় লাল হয়ে স্টেজ থেকে নেমে গেলো।

আরোহি স্টেজ থেকে নেমে বিল্ডিং- এর দিলে চলে যাচ্ছে আর এখনও শোনা যাচ্ছে মাইকে বলছে, ” আরোহি আর আহানের এতো সুন্দর পারফর্মেন্সের জন্য একটা হাত তালি হয়ে যাক? অসম্ভব সুন্দর ছিলো এই ড্যান্স। ”

আরোহির পা আটকে গেলো। একরাশ বিস্ময় নিয়ে মুখ ফুটে একবার উচ্চারণ করে উঠলো তার অতি প্রিয় নামটা , ” আহান ! ” ?

আরোহিঃ (মনে মনে) আহান মানে. ও তো অহি.. তাহলে আহান কেন বললো? এ কি আমার আহান?? ( পরক্ষনেই আবার ভাবলো) না না আমার আহান কিভাবে হবে? আহান কত বিজি। আর ও আহান হলে আমাকে ওর নাম বলতো। ধুর আমি তো আহানের বয়স, দেখতে কেমন কিছুই তো জানি না। আচ্ছা ওকে গিয়ে একবার জিজ্ঞেস করবো ওকে আহান কেন বললো?? একবার জিজ্ঞেস করতে তো কোনো সমস্যা নেই… একবার জিজ্ঞেস করেই আসি। (বলে স্টেজের দিকে পা বাড়াতে নিলেই কেউ ওর মুখ চেপে ধরে। আরোহির চোখ মুখ বেধে কোথাও নিয়ে যায়। আরোহি চিৎকারও করতে পারে না ? )
____________________________
আহানের পয়েন্ট অফ ভিউ,
আহানঃ (মনে মনে) আরোহি আজকে আমি তোমাকে তোমার জীবনের সব থেকে বড় গিফট দিবো। আজ আমি তোমাকে তোমার আহানের পরিচয় দিবো। আমার বিশ্বাস তুমি রাগ করবে না। আজ নাচের সময় আমি তোমার চোখে আমার জন্য ভালোবাসা দেখেছি । সেজন্যই তো আজকে স্টেজে আমার নামটা বলালাম। আর একটা সারপ্রাইজ দিবো। তখন নিজেই বুঝে যাবে আমি কে ??
_______________________
আরোহির পয়েন্ট অফ ভিউ,
আরোহিঃ আমাকে একটা রুমে লক করে রেখেছে। দেখে তো কলেজেরই একটা ক্লাস রুম মনে হচ্ছে। হ্যা ভালো করে দেখলাম এটা আমাদের কম্পিউটার ল্যাব। কিন্তু কে নিয়ে এলো আমায়?

হঠাৎ কেউ আরোহির সামনে এলো,
আরোহিঃ তুমিইইইইই ? আমাকে এখানে কেন নিয়ে এসেছো?

সায়রঃ খুব ভালো লাগে না আহানের সাথে থাকতে? (আরোহির হাত ধরে) কি হয় আমার সাথে থাকলে ?

আরোহিঃ আমার হাত ছাড়ো। কোন সাহসে আমার হাত ধরেছো তুমি?

সায়রঃ কোন সাহস? আজ এমন হাল করবো তুই বাধ্য হবি আমার কাছে আসতে।
আরোহিঃ ?৷ প্লিজ ছাড়ো আমায় ( সায়র আমার কাছে আসলে নিলেই ওর একটা ফোন আসে তাই আমাকে ছেড়ে কথা বলায় ব্যাস্ত হয়ে যায়)

ফোনে,
সায়রঃ বল
– __________
সায়রঃ এখনই আসতে হবে?? ?
– _____
সায়রঃ উফফ এই আহানটা ? ওকে আসছি

আরোহিঃ আহান!! ??

সায়র কল কেটে দিয়ে,
সায়রঃ এইখানে থাকো। খবরদার বাড়াবাড়ি করবা না। বাহিরে আমার লোক আছেই। ( বলেই বের হয়ে গেলাম)
আরোহিঃ ( সায়র বের হয়ে যেতেই আমি রুমের সব জায়গা খুটিয়ে দেখতে লাগলাম, যদি বের হতে পারি। কিন্তু নাহ কয়েকটা জানালা ছাড়া আর কিছু থাকাদ কথাই না। আর কম্পিউটার ল্যাব ৬ তলায় করা। এখান থেকে লাফ দিলে শুধু পালাবো না, উপরে চলে যাবো,, জানালার কাছে যেতেই অনুষ্ঠানের আওয়াজ পেলাম,, কিন্তু একিইইই আহান গান করছে ?? এটা আহানের গলা আমি শিওর। জানালা খুলে দাড়াতেই আওয়াজটা আরো স্পষ্ট হলো। হ্যা আমি ঠিক শুনেছি। এটা আহান গাচ্ছে। আবার আমার সেই প্রিয় গানটা “গল্পগুলো আমাদের” আমাই কেদেই দিলাম ??? আমি আহানকে দেখতে পেতাম, কিন্তু এই সায়রের বাচ্চা সায়রের জন্য দেখতে পেলাম না। দুনিয়ায় যত গালি আছে, অভিশাপ আছে সায়রকে দিচ্ছি)
_________________________
আহানের পয়েন্ট অফ ভিউ,
আহানঃ ( আজ আরোহিকে নিজের পরিচয় দিতে আজ আরোহির প্রিয় গানটাই গাইলাম। কিন্তু স্টেজেই চারিপাশে তাকিয়ে দেখলাম আরোহি কোথাও নেই। কিন্তু এমন তো হওয়ার কথা না। ও আমার কন্ঠ শুনলেই ছুটে আসবে আমি জানি। কিন্তু এলো না কেন? ও ঠিক আছে তো? সায়র তো এখানেই আছে। তাহলে ওর তো সেফ থাকার কথা ? আমি গান শেষ করে স্টেজ থেকে নামলাম। সবাই হাত তালি দিচ্ছে কিন্তু আমার মনটা খারাপ। যার জন্য এতো কিছু তাকেই দেখলাম না ?)
_____________________
সায়রের পয়েন্ট অফ ভিউ,
সায়রঃ আমি জানতাম আহান আমাকে আর আরোহিকে একসাথে না দেখলে আমাকে সন্দেহ করতো। তাই এখানে এলাম । ?

নিহাঃ কাজ হয়ে গেছে?

সায়রঃ এখনো কিছু করিনি। তবে আজই কাজ হয়ে যাবে
_______________________
আহানঃ (আরোহিকে খুজতে বাহিরের দিকে যেতেই মিতু ডাকলো) হ্যা বলো

মিতুঃ আরোহিকে দেখেছো?
আরোহিঃ না,, কেন? ও তো নাচ শেষেই তোমাদের কাছে গেলো

নিশাঃ না তো। নাচের পর আর দেখিনি ওকে
আহানঃ হোয়াট? নাচ প্রায় ১ ঘন্টা আগে শেষ হয়েছে। ওকে এতক্ষন দেখনি!!! ?

নিশাঃ চলো ঐ দিকটাই দেখি।
আহানঃ হুম
সবাই আরোহিকে খুজতে ব্যাস্ত হয়ে পড়ে

.
to be continued…… ?