অত্যাচারী বউ পর্ব-০৬

0
1445

অত্যাচারী বউ
লেখকঃ আবু সাঈদ সরকার
পর্বঃ ৬

সাঈদঃ মায়া দরজাটা বন্ধ করে যেভাবে এগোচ্ছে তাতে ওর মতি গতি ভালো লাগছে না …

শেষ মেশ যেটার ভয় পাচ্ছিলাম সেটাই হলো??

মায়াঃ অন্যায় শাস্তি তো পেতেই হবে তাই…

সাঈদঃ মায়া তার সঙ্গে শক্ত করে জরিয়ে ধরে দুইজনের ঠোঁট এক করে দিলো ?

অনেক চেষ্টা করার পর ছুটে…

সাঈদঃ কী করলেন এটা ওয়াক থু… কয় দিনের ধরে ব্রাশ করেন নি আর এটা যদি আমার বউ জানতে পারে তাহলে আপনাকে কী যে করবে সেটা উপর ওয়ালা ছাড়া কেউ জানে না…

মায়াঃ তার একটা কথায় পাচ বছরের স্বপ্ন প্রতেকটা আশা নিমিষেই ছাই হয়ে গেলো…

মায়াঃ sorry বুঝতে পারি নি বিবাহিত…

( না বুঝে এটা কী করে বসলাম একটা বিবাহিত পুরুষকে ছিঃ ভাবতেও লজ্জা লাগছে কিন্তু আমি যখন ওনাকে ডিভোর্স দিয় নি তাহলে আমি তো ওনার প্রথম স্থী…


সাঈদঃ যখন কিস করছিলো তখন অবশ্য ভালোই লাগছিলো??( কিন্তু সেটা তো বলা যাবে না তাই একটু বানিয়ে বলে ফেললাম)

মায়াঃ আচ্ছা একটা বলবো…

সাঈদঃ হ্যা বলুন…

মায়াঃ আপনার বউ এর নাম কী…

সাঈদঃ কী বলবো বুঝতে পারছি তখনি মাথায় আসলো ও ওর নাম তো মায়া…

মায়াঃ কী এটা তো আমার নাম. ।
সাঈদঃ মায়া নামে কী পৃথিবীতে একটাই মেয়ে আছে আমার বউ মায়া কত সুন্দর ??


মায়াঃ থাক আর বলতে হবে না ( ডং )

তা আপনার বউ দেখতে কেমন..

সাঈদঃ এ্যা তোমার মতোই দেখতে তবে তোমার থেকেও সুন্দর…

মায়াঃ সব কিছু আমার মতোই হলে ওই মেয়েটা আলাদা কোথায় ?

সাঈদঃ কী বলবো বুঝতে পারছি না এই মেয়েটাও না এত ঘুরিয়ে পেচিয়ে প্রশ্ন করে না ঠিক তখনি মনে পড়লো…

আমার বউ তোমার মতো দেখতে কিন্তু ওর ফিগার টা তোমার থেকেও সুন্দর ???

মায়াঃ ও আচ্ছা তাহলে এখানে কেনো আসছেন নিজের বউ এর কাছে যান..

সাঈদঃ কী বলবো দুখের কথা আমার বউ আমাকে রেখে চলে গেছে ( একটু মিথ্যা কথা বললাম)

মায়াঃ কী আপনাকে রেখে চলে গেছে মানে কী…

সাঈদঃ নিজের বয়ফ্রেন্ড এর সঙ্গে পালিয়ে গেছে??? ( আর মনে মনে ?????)

মায়াঃ আমার মতোই তাহলে ( মনে মনে)

কাদবেন না প্লিজ দেখবেন সে একদিন ফিরে আসবে

সাঈদঃ সে তো ফিরে আসতেছিলো কিন্তু…
.


মায়াঃ কী, excited হয়ে..

সাঈদঃ কিন্তুু তার আগেই স্বপ্নটা ভেঙ্গে গেলো??….

মায়াঃ কুতা আমার সঙ্গে জোক করা হচ্ছে…

সাঈদঃ জোক করবো কেনো আসলে ওইটা স্বপ্ন ছিলো কিন্তু বাস্তবে আমার মনে কারো জন্য কোনো ফিলিংস নেই…


মায়াঃ আমার জন্যও নেই??( আস্তে করে বলে)

সাঈদঃ কী কিছু বুঝলাম না

মায়াঃ কিছু না আপনি শুয়ে পড়ুন অনেক রাত হয়েছে…

সাঈদঃ হুম তার পর বিছানায় শুয়ে পড়লাম…

শুয়ে শুয়ে ভাবতে লাগলাম মেয়েটা আমাকে যেভাবে অত্যাচার করছে আমি তার ডবল অত্যাচার করবো….


তখনি মাথায় একটা শয়তানি বুদ্ধি চলে আসলো…

সাঈদঃ আপনি কী ঘুমালেন নাকি জেগে আছেন…

মায়াঃ মাটিতে শুয়ে ঘুমানোর চেষ্টা করছিলাম ঠিক তখনি ওনার কথা শুনতে পেলাম….

জ্বী বলুন…

সাঈদঃ পা দুইটা প্রচুর ব্যথা করছে একটু চেপে দিন না…

মায়াঃ কীহ আমি আপনার পা চিপবো…

সাঈদঃ হুম কেনো এতে অবাক হওয়ার কি আছে হুম….

মায়াঃ কিছু না তার পর আর কী ওনার পা চিপতে শুরু করলাম…

সাঈদঃ বাহ ভালোই লাগছিলো কিন্তু তার মধ্যে যে কখন ঘুমিয়ে গেছি মনে নেই যখন সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠলাম তখন টেবিলে চা আর নাস্তা দেখতে পেলাম [ ঠিক পাচ বছর আগে আমি যেমনটা করতাম ]

সাঈদঃ মেয়েটার মধ্যে তো সত্যি তো অনেক পরিবর্তন চলে এসেছে…

নাস্তা করে বিছানায় শুয়ে নতুন একটা প্লেন বানিয়ে ফেললাম মেয়েটাকে জ্বালানোর জন্য …

সেই প্লেন টা success করার জন্য ডং করে সারা দিন বাইরে ঘুরে বেড়িয়ে রাতে…

সাঈদঃ আচ্ছা একটা হেল্প করবেন..

মায়াঃ কী বলেন..

সাঈদঃ কাউকে বলবেন না প্লিজ আজ রাস্তায় একটা মেয়েকে খুব ভালো লেগেছে কিন্তু বুঝতে পারছি না কিভাবে প্রোপজ করবো…


মায়াঃ কিহহ ??

সাঈদঃ মেয়েটার নাম্বার ও নিয়ে এসেছি দ্বারাও ফোন করি…

ফোন দেওয়ার ভান করে…

হ্যালো সুইটহার্ড চিনতে পারো নি আজ রাস্তায় তোমার সাথে দেখা হয়েছিলো তুমি কত সুন্দর তোমাকে ছাড়া বাচবো না তোর টানা টানা চোখ স্টোবেরির মতো ঠোঁট সাথে ফিগারটাও সেই?? বলো ভালোবাসে না আমায়….
আর অন্য দিকে
মায়া কথা গুলো শুনে লুচ্চির মতো জ্বলে পুরে ছাই হয়ে যাচ্ছে কী দৃশ্য মামা একদম দেখার মতো…

মায়াঃ কথা গুলো শুনে ওনার পর যে কতটা রাগ উঠছিলো বলে বুঝাতে পারবো না মনে হচ্ছিলো গলাটা চিপে ধরি কিন্তু সে অধিকার টা এখন আমার নেই তাই রুম থেকে বেড় হয়ে ছাদে এসে একা একা কাদতে লাগলাম যদি এতে কিছু টা কষ্ট কমে যায়….

সাঈদঃ আরে বাহ তীর দেখছি সঠিক নিশানায় লেগেছে আমিও মেয়েটার পিছনে পিছনে গেলাম কোথায় গেলো সেটা দেখতে তার পর যা দেখলাম তাতে মনে হলো নিজের পাপের শাস্তি পাচ্ছে নিচে এসে বিছানায় শুয়ে পড়লাম…

পরের দিন বিছানা থেকে আয়নায় মুখ দেখে আমি নিজেই ভয় পেয়ে গেছি,….


চলবে