আমার আসক্তি যে তুমি Part-21+22

0
3657

পর্ব ২১+২২
#আমার_আসক্তি_যে_তুমি
#Part_21
#Writer_Asfiya_Islam_Jannat
.
?
অতঃপর রিয়ান যা বললো তা শুনার সাথে সাথে আমি ৮২০ ভোল্টেজের ঝাটকা খেলাম। নিজের কানকে বিশ্বাস করাতে পারছিলাম যে এইটা কি আদো সত্যি কিনা। আমি শুধু ড্যাবড্যাব করে রিয়ানের দিকে তাকিয়ে থাকি। তা দেখে রিয়ান বলে।
.
— আজীব তো!! এইভাবে হাবলার মত তাকিয়ে আছো কেন??
.
আমি ধপ করে তার পাশে বসে পড়লাম। ভ্রু দুটো জোড়া লাগিয়ে তার দিকে তীক্ষ্ণ দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকি। বুঝার চেষ্টা করতে থাকি তিনি কি আদো মজা করছেন নাকি সত্যি সত্যি বলছেন। না তার হাবভাব দেখে সত্যি মনে হচ্ছে তিনি সত্যি বলছেন। কিন্তু তাও এখনো তার দিকে আমার তীক্ষ্ণ দৃষ্টি বঝিয়ে রেখেছি।
আমার এমন দৃষ্টিতে রিয়ান কিছুটা নড়েচড়ে বসে। আর গলাটা একটু ঝেড়ে বলে।
.
— কিইই??
.
— আপনি একটু আগে যা বললেন তা কি সত্যি??
.
— মিথ্যা বলতে অবশ্যই আমি এত রাতে এত দূর আসে নি!!
.
আমি এইবার খুশির বন্যায় প্লাবিত হয়ে লাফ দিয়ে উঠি আর একটা চিল্লান দেই।
.
— সত্যিইইই!! পরের মাসে আমাদের বিয়েএএএ!!! খুশিতে আত্মহারা হয়ে।
.
রিয়ান সাথে সাথে নিজের কান চেপে ধরে বলে।
— আস্তে মেরি মা আস্তে। কানের পর্দা মনে হয় এইবার গেল। কান ঝাড়া দিতে দিতে।
.
— আরেহ রাখেন আপনার কান!! আগে বলেন সত্যি কি পরের মাসে আমাদের বিয়ে??
.
— আজ্ঞে হ্যাঁ রিয়ুপাখি। পরের মাসের ৫ তারিখ আমাদের বিয়ে।
.
এইটা শুনে আমি কিছুটা চুপসে গেলাম। মাথা নিচু করে বলি।
— আজকে তো ২০ তারিখ। তার মানে ১৫ দিন এ বিয়ে। এত তারাতারি কিভাবে কি?? তার উপর বাকি সবাই বা কি মনে করবে?? কাউকে কিছু বলাও হয় নি। তার উপর আমি একা কেউ নেইও যে আমার পক্ষ হয়ে সব নিয়ম কানুন মানবে বা আমার হয়ে এই বিয়েতে থাকবে। রিলেটিভ যারা আছে তাদের দেখি নি প্রায় কত শত বছর। কানেকশনও নেই। আমাদের বিয়েতে তো তাহলে কেউই আসবে না। মন খারাপ করে।
.
রিয়ান এই কথা শুনে আমার দুই গালে হাত রাখে। তারপর মাথা উঁচু করে বলে।
— আমারই বা কে আছে বলো?? হ্যাঁ আমার কিছু রিলেটিভ আছে যাদের বিয়েতে আসতে বলা হবে। যারা আমার আপন।
আর তাদের বাদে আমাদের কলিগসরা তো আছেই। তোমার ব্যাচমেট আর আমার সাথে যারা আছে তারা। এরাই তো আমাদের আসল ফ্যামিলি তাই না!! তো ওদের আসাতেই দেখবে আমাদের বিয়ে পুরো হৈ-হুল্লোড়ে মেতে উঠেছে।
তার উপর আমার কিউট দুইটা শালি আছে না। তারা কি আর তোমার বিয়ে পানশে হতে দিবে?? একদম ব্যান্ড বাজা বারাত নিয়ে হাজির হবে তারা।
.
রিয়ানের এমন কথায় আমি ফিক করে হেসে দেই। তিনি আমার দিকে তাকিয়ে বলে।
.
— এই কয়েকদিন যাতে তোমার মুখে এইরকমই হাসি দেখি বুঝলে!
.
— হুম। কিন্তু বিয়েতে তো অনেক খরচ হবে। এত টাকা কিভাবে মেনেজ করবো??
.
— এই মেয়ে তোমাকে টাকার চিন্তা করতে বলেছি নি আমি? এই বিয়ের সকল খরচ আমার পক্ষ হতে আসবে। আর তোমার বর এতটা গরিবও নয় যে নিজের বিয়ের খরচ একা বহন করতে পারবে না। ভুলে যেও না আ’ম দ্যা বেস্ট কার্ডিলোজিস্ট ডাক্তার ইন ঢাকা সিটি। সো আমার টাকা পয়সার অভাব হবে তা তুমি ভাবলেও কি করে??
.
— আব তা না!! কনে পক্ষ হতে যে খরচ মানে…
.
আর কিছু বলতে যাব তার আগেই রিয়ান তার আঙুল আমার ঠোঁটে চেপে ধরে বলে।
.
— হুসসস!! নো মোর ওয়ার্ডস। আমার কনে কে আমি বিনা খরচে নিব। তাতে কার কি?? আমি শুধু তোমায় চেয়েছি। অন্য কিছু পাব বলে তো চাই নি!! নিজের অন্ধকার ঘেরা জীবনে আলো চেয়েছি। আর সেই আলো যে তুমি!
তাহলে ভাবলেও কি করে যে আমার তোমার বাদে ওইসব চিন্তা ভাবনাও আছে?? আমি আগেও বলেছি এখনো বলছি। তুমি আমার আসক্তি! আর আমি শুধু নিজের আসক্তিকেই পেতে চাই আর কিছুই না।
তো পরের বার এইসব ধরনের কথা শুনলে মেরে তক্তা বানিয়ে দিব হুহহ!! বলে আমার ঠোঁট থেকে আঙুল সরিয়ে নেয়।
.
আমি ছলছল চোখে তার দিকে তাকিয়ে থাকি। কখনো ভাবি নি যে আমার জীবনে এমন ভালবাসাও আসবে। যে কিনা আমায় সবার আগে রাখবে। আমায় ঘিরেই তার এত সত স্বপ্ন হবে। জানি না এই ভালবাসা সইবে কি না? কিন্তু যতদিনই থাকুক না কেন, আমি চাই সেই সময়টুকু প্রাণ খুলে অনুভব করতে।
.
— এত কেন ভালবাসেন??
.
— জানি না কেন এত ভালবাসি!! শুধু এতটুকুই জানি আমার আসক্তি যে তুমি। ভালবাসা নামক এক চিরস্থায়ী আসক্তি তুমি।
.
আমি প্রতিউত্তরে শুধু মিষ্টি একটা হাসি দিলাম। তা দেখে তিনি বলে।
.
— এখন যাও আমার জন্য কিছু রেধে নিয়ে আসো। খুব খিধে পেয়েছে।
.
— কি খাবেন বলুন?
.
— যা আছে তাই!
.
— আচ্ছা একটু বসুন এখনই নিয়ে আসছি।
এই বলে আমি রান্না ঘরের দিকে অগ্রসর হলাম।
.
.
??
.
.
খাওয়া শেষে সব কিছু গুছিয়ে রিয়ানকে খুঁজছি। সারা বাড়ি খুঁজে যখন তার দেখা মিললো না তখন নিজের রুমের দিকে অগ্রসর হলাম।
রুমে গিয়ে দেখি সে সটান হয়ে শুয়ে আছে। তা দেখে সাথে সাথে ভ্রু জোড়া আমার কুচকিয়ে এলো। আমি তার দিকে তীক্ষ্ণ দৃষ্টি নিক্ষেপ করে বলি।
.
— আপনি এইখানে এইভাবে শুয়ে আছেন কেন?
.
সে চোখ বন্ধ রেখেই বলে,
— তো কিভাবে শুবো কাধ হয়ে?
.
— না মানে বাসায় যাবেন না? আমার বেডে শুয়ে আছেন কেন? যান বাসায় যান বলছি!!
.
— উহু!! আজ নিজের শ্বশুরবাড়ি থাকবো।
.
— কিসের শ্বশুরবাড়ি? কোথাকার শ্বশুরবাড়ি? কোথায় শ্বশুরবাড়ি? কি শ্বশুরবাড়ি? কোন শ্বশুরবাড়ি? কেমন শ্বশুরবাড়ি?
.
সে চোখ খুলে বলে।
— অহো রিয়ুপাখি এত প্রশ্ন করো কেন বুঝি না তো!! আজ আমি আমার বউয়ের সাথে বউয়ের বাবা বাড়ি থাকবো। এইবার বুঝেছো? এখন ঘুমাতে দাও। খুব ঘুম পেয়েছে। বলে আমার ঘুমিয়ে পড়ে।
.
— এই না না!! আপনি এইখানে থাকতে পারবেন না!! যান নিজের বাসায় যান। বিয়ের আগে নো থাকা থাকি।
.
— ফোর ইউর কাইন্ড ইনফরমেশন উই আর মেরিড।
.
— সেটা আমরা জানি অন্যরা তো আর না। পাশের বাসার মানুষরা কি ভাববে??
.
— এগেইন ফোর ইউর কাইন্ড ইনফরমেশন তোমার আশে পাশের ফ্ল্যাটে কেউ থাকে না।
.
আমি এইবার চোখ মিটিমিটি করে তাকিয়ে বলি।
— আপনি কিভাবে জানলেন যে আমার আশে পাশের ফ্ল্যাটে কেউ থাকে না?
.
এইবার রিয়ান হুট করেই উঠে বসে। চোখ মুখ কেমন জানি হয়ে যায়। কিন্তু তাও নিজেকে নরমাল রেখে বলে।
— বউ যখন জামাই থেকে দূরে থাকে তখন জামাই বউয়ের ইনফরমেশন এমনে এমনেই জেনে যায়।
তোমার কি মনে হয় আমি তোমার কোন খোঁজ খবর রাখি না? আমি এই কয়েকদিনে তোমার সব ইনফরমেশন জেনে নিয়েছি মাই লাভ।
.
— অহহ আচ্ছা।
.
রিয়ান আবার শুয়ে পড়ে বলে।
— দ্যান প্রবলেম ইজ সলভড। এখন ঘুমাতে আসো ঘুম পেয়েছে।
.
— এই না না!! আপনি এইখানে থাকতে পারবেন না। এখনই বাসায় যান বলছি!!
.
— রিয়ুপাখি রাগ উঠিও না। রাগ উঠলে কিন্তু পরে তোমার জন্যই খারাপ হবে। তাই যা বলছি তাই করো তা না হলে!! চোখ গরম করে।
.
আমি এইবার কিছুটা চুপসে যাই। তার রাগ সম্পর্কে আমার জানা আছে। রাঙামাটিতে একদিন আমি জীদ করে তার সাথে কথা বলি নি। তাই তিনি পরে রাতের বেলা আমায় কোলে করে ট্যান্ট থেকে তুলে নিয়ে এসে নিজের ট্যান্টে এনে বসিয়ে রেখেছিলেন। তারপর কথা না বলার শাস্তি স্বরুপ সেইদিন সারারাত আমায় বকবক করতে বলেছিলেন। কথা বন্ধ করলেই স্কেলের বারি। সেইদিন সারারাত বকবক করতে করতে চাপা ব্যথা হয়ে গিয়েছিল আমার। ওই কথাটা ভেবেই গা শিউরে উঠলো।
আমি এইবার কিছুটা মলিন হাসি মুখে টেনে বলি।
.
— আচ্ছা আপনি ঘুমান আমি অন্য রুমে চলে যাচ্ছি।
.
— এক পাও যদি ওখান থেকে লড়েছ তাহলে তোমার খবর আছে। চুপচাপ লাইট অফ করে আমার পাশে এসে ঘুমাও। তা না হলে…
.
— আরেহ আরেহ আসতেছি তো। কথায় কথায় থ্রেট দেন কেন?? খারুস জানি কোথাকার!!
.
— আমি জানি আমি খারুস। এখন তুমি আসবে না আমি আসবো?
.
অতঃপর বাধ্য হয়ে আমি লাইট অফ করে তার পাশে শুয়ে পড়ি। শুয়ে পড়তেই তিনি আমায় টেনে নিজের বাহুদরে আবদ্ধ করে নিলেন।
— এইভাবে ঘুমিয়ে থাকো। কোন নড়াচড়া না।
.
আমিও আর কিছু না বলে তাকে জড়িয়েই শুয়ে পড়ি। আজ সত্যি মনে হচ্ছে যে কেউ আছে আমায় আগলে রাখতে। মনের মধ্যে নেই কোন ভয় নেই কোন সংশয়।
হঠাৎ নাকে সেই চিরচেনা গন্ধটি ভেসে আসে। কিন্তু আমি কিছুতেই সেই গন্ধটি চেনে উঠতে পারছি না। এমন একটা ফিলিং আসছে যে, ” চেনা চেনা তবুও যেন অচেনা”।
অনেক চেষ্টা করেও যখন বুঝে উঠতে পারলাম তখন হাল ছেড়ে ঘুমিয়ে পড়লাম।
.
.
??
.
.
কফি সোপে বসে আছি। সামনেই আরিশা আর রিংকি। রিংকি আয়নাতে নিজের লিপস্টিক ঠিক করছে আর আরিশা ফোনে কি জানি করছে। আমি একবার রিংকির দিকে তাকাচ্ছি আরেক বার আরিশার দিকে।
তারপর আমি গলাটা ঝেড়ে বলি।
.
রিয়ানাঃ তোরা কি আমার কথাটাও শুনবি নাকি খালি এইসব এই করবি??
.
দুইজন দুইজনের কাজের মধ্যে মনোযোগ দিয়েই বলে।
— হুম বলতে থাক শুনতাসি।
.
রিয়ানাঃ আরেহ না তাকালে বলবো কি করে??
.
রিংকি নিজের লিপস্টিক দেওয়াটা একটু থামিয়ে বলে।
রিংকিঃ না দেখলেও কথা শুনা যায় বুজলি!! তো বলতে থাক শুনতাসি বলতে থাক!! বলে আমার লিপস্টিক দেওয়ায় মন দিল।
.
আমি এইবার নাক ফুলিয়ে বলি।
রিয়ানাঃ আগামী মাসের ৫ তারিখ আমার বিয়ে!!
.
এই কথা শুনার সাথে সাথে রিংকি লিপস্টিক তেড়া হয়ে যায়। আর গালে লেগে যায়। আরিশার হাতে থাকা ফোন নিচে পড়ে যায়। দুইজনে ফ্যালফ্যাল করে আমার দিকে তাকিয়ে থাকে। যেন আমি কোন এক অসম্ভব কথা বলে দিয়েছি।
হুট করে দুইজনে একই সাথে একই তালে চেঁচিয়ে উঠে।
.
— কিইইইইইই
.

#Part_22
#Writer_Asfiya_Islam_Jannat
.
?
হুট করে দুইজনে একই সাথে একই তালে চেঁচিয়ে উঠে।
.
— কিইইইইইই
.
আমি ওদের থেকেই এমন একটা চিৎকার এই আশা করেছিলাম তাই আগে ভাগে নিজের কানে হাত দিয়ে বসে ছিলাম। ওদের চিৎকার দেওয়ার শেষে নিজের কানের থেকে হাত সরিয়ে একবার চারপাশ ভালো ভাবে পর্যবেক্ষণ করে নিলাম। যা ভেবেছিলাম ঠিক তাই, সকলেই এলিয়েন দেখার মত তাকিয়ে আছে।
আমি সেদিক থেকে চোখ সরিয়ে ওই দুইটা বান্দরনীদের দিকে তাকালাম। সাথে সাথে আমার ভ্রু দুটো কুচকিয়ে এলো।
দুইজনেই তাদের তীক্ষ্ণ দৃষ্টি আমার দিকে নিক্ষেপ করে বসে আছে। তা দেখে আমি কিছুটা নড়েচড়ে বসি। গলাটা একটু পরিষ্কার করে বলি।
.
— কি এইভাবে তাকিয়ে আছিস কেন তোরা??
.
— তুই একটু আগে কি বললি?? (আরিশা)
.
— সত্যি তোর বিয়ে? মানে কেমনে? হাও? তুই প্রেম কবে করলি? (রিংকি)
.
— আজিব তো এতটি প্রশ্ন একসাথে করলে উত্তর দিব কিভাবে??
হ্যাঁ আগামী মাসের ৫ তারিখ আমার বিয়ে। আর আমি প্রেম করে বিয়ে করতাসি না।
.
— তাইলে কেমনে কি? (আরিশা)
.
— যেমনে এই।
.
— পোলা কেরে দোস্ত?? মানে আমাদের জিজু কে গো?? দেখ বইন আমার জিজু যদি হ্যান্ডসাম না হয় তাইলে আমি তালাক দিয়া দিমু আগেই বইলা রাখলাম। (রিংকি)
.
— তুই তালাক দিবি মানে?? ভ্রু কুচকিয়ে।
.
— আরেহ জানস না, ” শালি মানে আধিঘারওয়ালি।” তো ওই হিসাবে আমি তার হাফ বউ। যদি আমার জিজু পছন্দ না হয় তাইলে তালাক দিমু আমি। ভাব নিয়ে। (রিংকি)
.
— শাকচুন্নি, তুই আসোস তোর আলগা পেচাল নিয়া। আর কাজ কাম নাই খালি বিয়া সাদি নিয়া পইড়া থাকস!! লজ্জা করে না অন্যের বরের দিকে নজর দিতে??
ওর কথা বাদ দে রিয়ানু, আগে এইটা বল ছেলেকে?? কি করে?? কোথায় থাকে? তোদের পরিচয় কিভাবে?? (আরিশা)
.
— তোরা তাকে চিনিস!! আসলে বলতে গেলে অনেক ভালো করেই চিনিস।
.
এইবার দুইজন দুইজনের দিকে হ্যাবলার মতো তাকাতে থাকে। মানে কিছুই বুঝতে পারছে না তারা। দুইজন একসাথেই বলে,
.
— কে সে??
.
আমি এক দীর্ঘ শ্বাস নিয়ে কান দুটো চেপে ধরে বলি।
— ড. সাদাত খান রিয়ান মানে ড. রিয়ান।
.
নাম শুনার পর দুইজনেই স্থির। আমি কোন চিৎকার না পেয়ে কানের থেকে হাত সরালাম। রিংকি থম মেরে বসে আছে। আরিশা আমার দিকে তীক্ষ্ণ দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে। আমি প্রথমে রিংকির সামনে তুরি বাজাই। না কোন সারাশব্দ নেই। তাই হাল্কা করে ওকে ধাক্কা দেয়। সাথে সাথে ও আরিশার ওপর পড়ে যায় আর আরিশা তাল সামলাতে না পেরে মাটিতে পড়ে যায়। সাথে রিংকিও। এইবার রিংকির হুস আসে। সে তাড়াহুড়ো করে উঠতে নিলে মাথায় টেবিলের সাথে বারি খায়। আবার গিয়ে পড়ে আরিশা উপর।
আরিশা এইবার হাল্কা চেঁচিয়ে উঠে।
— অহহ মাগো!! এই মুটকি উঠ!! আমারে তুই চ্যেপ্টা করে দিলি। উঠ হারামি!! (আরিশা)
.
— তুই মুটকি!! তোর চৌদ্দ গুষ্টি মুটকি। ভেংচি কেটে। (রিংকি)
.
আমি ওদের কান্ডকারখানা দেখে হাসতে হাসতে শেষ। তারপর কোন মতে হাসি থামিয়ে রিংকিকে উঠে দাড়াতে সাহায্য করি।
.
[ রিংকি এর মত অবস্থা আমার একবার হয়েছিল। বাট ওইটা স্কুলে। খুশির জোরে শকড হয়ে বেঞ্চ উলটিয়ে পড়ে গিয়েছিলাম। কি লজ্জা!! কি লজ্জা!! ?]
.
রিংকি আর আরিশা বসে চারপাশে চোখ বুলিয়ে দেখে সবাই ড্যাবড্যাব করে তাদের দিকে তাকিয়ে আছে। দেখেই বুঝা যাচ্ছে তারা এইবার নিশ্চয়ই ভাবছে এরা কোন পাগলগরাদ থেকে ছুটে এসেছে। আরিশা তা দেখে বলে।
.
— এইখানে কি Beauty contest হচ্ছে?? এইভাবে ড্যাবড্যাব করে তাকিয়ে আছেন কেন?? নিজের কাজে মন দিন। হুহ যতসব আজাইরা পাবলিক। [বিঃদ্রঃ ইহা আমার ফেমাস কোমন ডাইলোগ?]
.
সবাই এইবার চোখ ঘুরিয়ে নিজের কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়ে। আমি এইবার রিংকি এর দিকে তাকিয়ে অপ্রস্তুত হয়ে যাই। রিংকি পুরা কাদো কাদো হয়ে আছে। আমি ওর দিকে তাকিয়ে বলি।
.
— কি??
.
— বইন তুই কো এইটা মিথ্যা!! কেহে দে ইয়ে জুট হ্যায়। মেরা ক্রাসের সাথে বিয়ে করতে পারিস না। আমারে এত বড় ছেঁকা দিস না দোস্ত। তোর আমার লিপস্টিকের কসম। (রিংকি)
.
— সরি টু সে বাট ইহা একটি সত্যি কথা। আমার আর রিয়ানের সত্যি বিয়ে!
.
— নেহি!! ইয়ে নেহি হো সাকতা!! মে লুট গায়ি, বারবাত হো গায়ি। আমার ক্রাস আমার জিজু!! মানি না আমি কিছুতেই মানি না। নেকা কান্না করে। (রিংকি)
.
— ওই শাকচুন্নি চুপ!! এত অভারড্রামা করোস কেমনে?? স্টার জলসার দোকান। দ্বারা আন্টিরে বইলা তোর টিভি দেখা অফ করাইতাসি।
আর এইযে রিয়ানু সোনা এইদিকে তাকান। এইসব কি হ্যাঁ?? কেমনে কি?? পুরো হিস্টোরি বল? নাইলে আজ তোর শরীর এই ক্যাফে থেকে আস্ত যাইতে পারবো না। (আরিশা)
.
— হুহ!! বলতাসি। শুন তাহলে..
অতঃপর পুরো রামায়ণ কাহিনি বলতে থাকে। শুধু বিয়ের কাহিনিটা লুকিয়ে যায়। তার জায়গায় বলে রিয়ান ওকে প্রোপস করেছিল। আর রিয়ানা তা এক্সেপ্ট করে।
সব শুনে আরিশা বলে।
.
— তলে তলে টেম্পু চালিয়ে চলেও গেসো আর আমাদের এখন জানাও!! শরম করে নির্লজ্জ মাইয়া!! (আরিশা)
.
— বইন আমার কি দোষ!! তখন তো ক্যাম্পে ছিলাম। কিভাবে তোদের জানাতাম বল?
.
— তোরা কাজটা ঠিক করলি না। তোরা ঠিকই মিঙ্গেল হয়ে গেলি কিন্তু আমারে ওই অসহায় নিরিহ সিঙ্গেলই রাইখা দিলি। আল্লাহ এই অন্যায় সইতো না। এই নিরিহ সিঙ্গেল মাইয়ার অভিশাপ তোরা ২০ ডজন বাচ্চার মা হবি। (রিংকি)
.
আমি ভ্রু কুচকিয়ে রিংকি এর দিকে তাকাই। তারপর বলি।
.
— তোরা মানে?? আমি আর কে?
.
— তুই আর আ… উম উম।
রিংকি আর কিছু বলার আগেই আরিশা ওর মুখ চেপে ধরে। আর দাঁতে দাঁত চেপে বলে।
.
— চুপ কর শাকচুন্নি!! খালি বেশি বেশি কথা বলস!! একটু চুপ থাকলে কি হয়??
.
— ওই আরিশা কি লুকাচ্ছিস বল!! নাইলে আজ তোর খবর আছে! বল বলছি!
.
আরিশা এইবার রিংকির মুখ ছেড়ে দিয়ে নিজের ঠোঁট জ্বিহ্বা দিয়ে ভিজিয়ে জোরপূর্বক হাসার চেষ্টা করে। তখন রিংকি ফট করে বলে উঠে।
.
— ড. সিয়ামের সাথে আরিশা ইটিসপিটিস চলছে।
.
সাথে সাথে রিংকির পিঠে পড়ে এক বারি আর তারপর পড়ে আরিশার পিঠে। আরিশা এইবার অসহায় একটা চেহেরা নিয়ে আমার দিকে তাকায়। আমি চোখ শক্ত করে বলি।
.
— আমারে তো কত কিছু কইলা তুমি!! এখন আমি কই?? হারামী!! তুই নিজে প্রেম করোস তা আমারে বলোস নাই আর এখন আবার আমায় জ্ঞান দাও। নির্লজ্জ মহিলা!!
.
— আব কেমনে কেমনে জানি প্রেম হয়ে গেল। হেহে!! ( আরিশা)
.
— তোদের প্রেম এমনে এমনেই হয়ে যায়। আর আমারটা হয় না কেন? (রিংকি)
.
— তুই আগে একটারে ঠিক কর তারপর প্রেম করিস। তুই তো উঠতে বসতে খালি ক্রাস এই খাস। তোর কোনদিন একটা ছেলেরে ভালো লাগে?? (আরিশা)
.
— বুঝলি রিয়ানু!! আজ সিঙ্গেল বলে কেউ পাত্তা দেয় না। নিজের আপন বান্ধুবি গুলোও তখন কোকিলা মদি হয়ে যায়। আবার এখন কেউ একটু ট্রিটও দিব না। চাইয়া চাইয়া খাইতে বুঝি এখন আমার শরম করে না। নেকা কান্না করে। (রিংকি)
.
— ওরে আমার লজ্জা বতি রে!! (আরিশা)
.
— আরেহ ভাই!! তোরা এত মেলোড্রামা কেমনে করোস?? ট্রিট লাগবো তো!! যা আজকের ট্রিট আমার পক্ষ হতে।
.
এইবার দুইজনেই খুশিতে লাফিয়ে উঠে। খাওয়া দাওয়া শেষে বলি।
.
— আচ্ছা শুন, তোরা কিন্তু কালকেই আমার বাসায় এসে পড়বি!! যেহেতু আমার ফ্যামিলির কেউ নেই তাই তোরাই এখন আমার ফ্যামিলি। আমি তো একা তাই এইসব ফাংশন করার মত কেউ নেই। চাইলে আঙ্কেল আন্টিকে নিয়ে আসিস। কোন পেরা নেই।
.
— এইটা আবার বলা লাগে?? তুই না বললেও আমরা চলে আসতাম। আর দেখিস আব্বু আম্মু নিউজটা শুনলে অনেক খুশি হবে। চিন্তা করিস না তোর বিয়ের সকল কিছুর দ্বায়িত্ব আমাদের। একদম ধুমধামসে বিয়ে দিব তোর!! (আরিশা)
.
— আর কে বলেছে তুই একা?? আমরা আছি কি করতে? তোর ফ্যামিলি হলাম আমরা বুঝলি!! নেক্সট নিজেকে একা বললে দিব এক চড়!!
সব ফাংশন মানাবো আমরা দেখিস। আমাদের একমাত্র বান্ধবী প্লাস আমার এক্স ক্রাসের বিয়ে বলে কথা। তোর ফ্যামিলি আমরাই বুঝলি।
.
ওদের কথা শুনে চোখে কোনে খুশির অশ্রু এসে পড়লো। আমি ওদের দুইজনকে জড়িয়ে ধরে কেঁদে দেই। ওরা দুইজনও আমায় আগলে নেয়। আমি এইবার একটু স্বরে এসে বলি।
.
— রিংকি এইবার তোর লিপস্টিক ঠিক কর আর আরিশা নিচ থেকে মোবাইল তুল।
.
— অহহ হো!! আমার তো নতুন ড্রেস কিনতে হবে! মেকাপও কিনতে হবে। ধুর!! আচ্ছা আমি এখন গেলাম বাই!! (রিংকি)
কিন্তু সে দরজার দিকে না গিয়ে গেল ওয়াসরুমে ওর মেকাপ ঠিক করতে।
.
আরিশা ফোন তুলে বলে,
.
— ধুর মোবাইল বন্ধ হয়ে গেছে। বাসাই গিয়ে দেখতে হবে ঠিক আছে কিনা। আচ্ছা এখন যাই তোর বিয়ের অনেক কাজ আছে বুঝলি।
.
— চল একসাথে বের হই।
.
আমরা বের হতে নিলে রিংকিও এসে পড়ে। তাই একসাথেই তিনজনে বের হয়ে যাই।
.
[ বন্ধুর আরেক নাম ভালবাসা। যাদের এমন বন্ধু ঠিক তারাই বুঝবে বন্ধুত্বের আসল মানে। খুব মিস করছি নিজের বন্ধু-বান্ধবদের। আজ ওরা পাশে থাকলে হয়তো আমরা সকলেই হৈ-হুল্লোড়ে মেতে থাকতাম। ]
.
.
??
.
বাসায় এসে বিছানায় গা এলিয়ে দেই। টিউশনি গুলো না করে এসেছি। রিয়ান চায় না আমি এখন আর টিউশনি করি। তাই আমিও আর না করি নি তাকে।
চোখ বন্ধ করে শুয়ে ছিলাম। তখনই হুট করে মাথায় আবিরের নামটা খেলে উঠে। আমি চট জলদি চোখ খুলে বসি। রাঙামাটিতে ওই ঘটনার পর আর আবিরের সাথে যোগাযোগ হয়নি আমার। আসলে ওর কথা মনেই ছিল না। মাঝে শুনেছিলাম সে নাকি ঢাকায় ফিরে গিয়েছে। তাই এই বিষয় নিয়ে এত ঘাটাঘাটি করেনি।
কিন্তু ঢাকায় এসেছে আজ ৫ দিন হতে চললো!! আবিরের কোন খোঁজ নেই। এমন তো কখনো হয় নি। আবির সবসময় নিজ থেকেই আমায় ফোন করে। এইবার কি হলো কে জানে।
আমি মোবাইল হাতে নিয়ে ফোন দেই আবিরকে। কিন্তু তার নাম্বার অফ। তাই সূর্যের নাম্বারে ফোন দেই। কোন এক সময় এক কাজে ওর নাম্বার নেওয়া হয়েছিল। যা আজ কাজে লাগছে।
ফোন তার আপন গতিতে বেজেই চলেছে। প্রথম বারের মত ফোন কেটে গেল। দ্বিতীয়বার ফোন দেওয়ার কিছুক্ষণ পরেই এক পুরুষের কন্ঠে কানে ভেসে আসে।
আমি তাকে জিজ্ঞেস করি সে সূর্য কিনা? সে প্রতিউত্তরে হ্যাঁ সূচক উত্তর দেয়। আমি আমার পরিচয় বলে আবিরের খবর জানতে চাই। অতঃ সূর্য যা বললো তাতে আমি মোটেও প্রস্তুত ছিলাম না। পায়ের তল থেকে যেন মাটি সরে যাচ্ছিল আমার।
.
.
#চলবে