কাগজের তুমি আমি ৩য় পর্ব

0
764

#কাগজের_তুমি_আমি
#৩য়_পর্ব

অনল যখন ধারার কাছে আগাতে গেলো তখন সুভাসিনী বেগম কড়া গলায় বলে উঠেন,
– মেয়েটাকে আধ মরা বানিয়ে শান্তি হচ্ছে না, নাকি পুরোপুরি শেষ করবার আসায় আছিস?
– মা, তুমিও আমাকেই দোষীর ঘরে দাঁড় করাবে?
– না দোষী তো আমি, কাল আমি যদি এই বুদ্ধি না দিতাম তবে ও কোনোদিন তোর ধারে কাছে ঘেষতো না। প্রথমে ওকে আমার কাছে রাখার লোভে তোর সাথে বিয়ে দিয়েছইলাম। ভেবেছি মেয়েটা সুখী হবে, সাথে তোমাকেও সুখী রাখবে। তোমার জীবনের ফাঁকা জায়গা গুলো ভরাট করবে। কিন্তু ছয় মাস ধরে শুধু বঞ্চনা পেয়েছে। স্বামী হিসেবে কি দিয়েছিস ওকে? একটাবার ওকে কি সুযোগ দিয়েছো। না দেও নি অনল। আড়াই বছর আগের ঘটনা তোকে বদলে দিয়েছে জানতাম। তাই বলে এতোটা? যাক গে, আমি তোমার দোষ গুন বিচার করবো না। আমি আমার মেয়েটার ভালোটাই দেখবো। আমি একটা সিদ্ধান্ত নিয়েছে, হতে পারে সেটা ধারার মনের জন্য মারাত্নক কঠোর সিদ্ধান্ত। তবে আমি ধারাকে আর তোমার কাছে রাখবো না। ও আমার রুমে আমার সাথে থাকবে আমার মেয়ে হিসেবে। তুমি তো ডিভোর্স চাচ্ছো বেশ তাই হবে, আমি তোমাদের ডিভোর্স এর জন্য এপ্লিকেশন দিবো। কিন্তু ওকে গ্রামে পাঠাবো না, এখানে আমার কাছে থেকে পড়াশুনা করবে। সেলিমের কাছে গেলে গ্রামের নানা মানুষ নানা কথা বলবে আমি সেটা চাই না। এতে অন্তত তোমার আপত্তি থাকবে না বলো।
– …………………
– কি হলো? মখে মুখে কি তালা দিয়েছো?
– যদি আমার বউ হিসেবেই রাখতে চাও তাকে তবে ডিভোর্সের কি দরকার আছে? আমি নাহয় অফিস থেকে বলে দেশের বাহিরে যাবার চেষ্টাটা আবার শুরু করি?
– না ডিভোর্স তো করাবোই আমি। তোমার তো মুক্তি চাই, আমি মুক্তি দিবো তোমায়। আর আমার মেয়েটাকে পুনরায় তার জীবন গড়ার সুযোগ দিতে হবে। সেটা তো আমি তার কাছ থেকে কেড়ে নিতে পারি না।
– তুমি যা ভালো বুঝো¬

এক মূহুর্ত দেরি না করে রুম থেকে বেরিয়ে গেলো অনল, কেনো জানে কষ্ট হচ্ছে। কিন্তু এটা হবার কথা ছিলো না, ধারাকে তো তার মোটেই ভালো লাগে না। তাহলে কেনো বুকের বা পাশে চিনচিন ব্যথা তাকে ঘিরে ধরছে। মার সিদ্ধান্তের সাথে সে একমত, তবে কেনো ধারা চলে যাবার কথা ভাবতেই কেনো দম বন্ধ লাগছে। তবে কি ধারার প্রতি করা অন্যায়ের অনুতাপ অনলের মনে তার জন্য মায়ার সৃষ্টি করেছে। হাহা, কি হাস্যকর কথা। মানুষ তো পাগল বলবে, সে মেয়েকে বারংবার পায়ে ঠেলে চোখে আংগুল দেখিয়ে বুঝাতে চেয়েছিলো আমার জীবনে তোমার ঠায় নাই সেই মেয়ের প্রতি আজ কিনা তার মায়া জন্মেছে। অনলের সব কিছু অসহ্য লাগছে, আচ্ছা মরে গেলে হয়তো এসবের থেকে মুক্তি পাওয়াটা সোজা হতো। কিন্তু সেটাও পারছে না, আত্নহত্যা তো সলুশন না। আরেকটা অবশ্য সলুশন আছে তা হলো নেশায় বুধ থেকে বর্তমান আর অতীতের যন্ত্রনাকে ভুলে থাকা। অনল সেটাই করলো, বাড়ি থেকে বেড়িয়ে ক্লাবে চলে গেলো। সেরাতে আর বেড়ি ফিরলো না।।

১৫দিন পর,
বিকেল ৫টা,
আকাশে মেঘ করেছে, বাদলের ঘনঘটায় জানান দিচ্ছে খুব বৃষ্টি নামবে। ছাদের কিনারায় আঁচল ছেড়ে দাঁড়িয়ে আছে ধারা। আচঁল টা মাটিতে গড়াচ্ছে। শরীরটা সুস্থ হয়েছে বেশ কদিন হলো। অনলের দেখা এই দিন পনেরো মিললো না, মিলবে কিভাবে? অনল তার সামনেই আসে না। সে ফুপুর কাছে থাকে। এতো হেয় হবার পর ও মনটা বারবার ইচ্ছে করে বেহায়ার মতো ছুটে তার কাছে চলে যাই। কিন্তু ফের মনে হয় খামোখা তাকে বিরক্ত করা। ফুপু ফরমান জারি করেছেন, অনলের ধারেকাছে যাতে তাকে না দেখা যায়। তাদের ডিভোর্সের এপ্লাই করা যাচ্ছে না, ধারার বয়স অত্যন্ত কম, কেবল উনিশ। আর বিয়েতে ছয় মাস কেবল হওয়ার জন্য ডিভোর্সের এপ্লিকেশোন করলেও পুনরায় কিছুদিন সাতে থাকার ফরমান জারি করা করে। তাই সুভাসিনী বেগম বলেছেন, ধারার বয়স বাইশ বছর হলে পুনরায় উনি এই ডিভোর্সের চেষ্টা করবে। কথাটা শুনার পর থেকেই ধারার মনটা ভালো নেই। বারবার কান্না পায়, কিন্তু ফুপুর সামনে কাঁদতেও পারে না। রাতে অবশ্য এক দুইবার অনলের ঘরের সামনে ঘুরাফিরা করে তারপর আবার ফিরে আসে দরজা বন্ধ দেখে। এসব ভেবে খোলা আকাশের দিকে এক চিত্তে তাকিয়ে রয়েছিলো সে, বারবার মনে প্রশ্নরা উঁকিঝুকি দেয় অনল কেনো তাকে ভালোবাসে না। সে যে এতো অসুস্থ ছিলো কেনো অনল একবার খোঁজটিও নেই নি। কিশোরী মনের এলোমেলো চিন্তাধারার মাঝে নিজেকে জরিয়ে ফেলেছে সে। হুট করে ঝুম বৃষ্টি নামলো, ঠান্ডা বর্ষার স্রোতে ধারার চোখের অশ্রুধারারা মিলে মিশে একাকার হয়ে যাচ্ছে। দু হাত পেতে বৃষ্টিকে বদ্ধনয়নে আলিঙ্গনে যখন ব্যস্ত, কেউ যেন তখন ধারার মাথায় একটি ছাতা ধরে। মুখে পানি না পড়ায় কৌতুহলে পেছন ফেরে তাকায় ধারা, ছাতা হাতে তো সাদা শার্ট, কালো জিন্স, চোখে চশমা পড়া একজন পুরুষ; যে কিনা তার স্বামী। এই পনেরো দিনে কি চেহারা বানিয়েছেন, মুখে খোচা খোচা দাঁড়ি, চোখ গর্তে যেনো বহুকাল শান্তির ঘুম হয় নি, আজ চোখে কোনো হিংস্রতা নেই আছে এক সাগর মায়া। ইশ লোকটা কি জানে না, তার এই চেহারাটা দেখলেই ধারার যে খুব বেশি ভালোবাসতে মন চায় তাকে। এমনে ভালোবাসার চরম শিখরে রয়েছে সে।।
– জ্বর থেকে উঠেছিস এক সপ্তাহ ও হয় নি আবার কেনো বৃষ্টিতে ভিজছিস?
-………………
– কি হলো এভাবে দাঁড়িয়ে আছিস কেনো? এভাবে কি দেখছিস?
– তোমাকে

ধারার কথায় খানিকটা চমকে গিয়েছিলো অনল। তারপর নিজেকে সামলে উত্তর দিলো,
– যা, নিচে যা। ভেজা কাপড় বদলে নে, আবার অসুস্থ হবার ধান্দায় আছিস নাকি।

বলে ছাতিটা ধারার হাতে ধরিয়ে চলে যাচ্ছিলো সে। তখন ই ধারা বলে উঠে,
– তুমি আমাকে ভালোবাসতে পারো না কেনো?

ধারার সরল মনের প্রশ্নটি অনলের পা আটকে ধরে। পেছনে ফিরে দেখে মলিন চিত্তে সেভাবেই ঠায় দাঁড়িয়ে আছে এখনো সে। আজ তার চোখে চোখ রাখার ক্ষমতা টুকু হারিয়ে ফেলেছে অনল। মাথা নিচু করে পুনরায় চলে যেতে নিলে হাত টেনে ধরে ধারা। ধরা গলায় বলে উঠে,
– উত্তর দিলে না যে
– মা, দেখলে বকাবকি করবে? নিচে যা
-এড়িয়ে যাচ্ছো?
– একটা পশুর কাছ থেকে ভালোবাসা চাইছিস? পশুরা যে ভালোবাসতে পারে না। শুধু ক্ষত বিক্ষত করতে পারে।
– উহু তাই যদি হবে, তবে রাতের বেলা আমার বালিশের নিচে চকলেট পাই কেনো?
– অনুতাপ, ক্ষমা পাবার চেষ্টা।
– তাহলে আপন করে নিতে কি বাধছে তোমাকে? কেনো ফুপির কথায় আমাকে ছেড়ে দিতে রাজী হয়েছো?
– তুই বড্ড ছোট, এসব বুঝবি না। আমার কাছ থেকে ভালোবাসা আশা করলে কেবল কষ্ট টুকু বয়ে বেড়াতে হবে তোকে। একসময় সেই কষ্ট টুকু সহ্যসীমার বাহিরে চলে যাবে। ভালোবাসা একটা নেশা, যার অপরনাম মৃত্যু। আমি যে ভালোবাসতে পারবো না। ভালোবাসার জন্য মনের দরজা যে তালা লেগে গেছে। তাই এই দাবিটা আমাকে করিস না। আর এখন তোর বয়স ই বা কি! আমি চলে গেলে দেখবি কিছুদিনেই সব ভুলে যাবি!
– কোথায় যাবে তুমি?
– সিলেট, তারপর হয়তো দেশের বাহিরে।
– কেনো?
– তোকে যে মুক্তি দেয়াটা খুব দরকার। এভাবে কাগজের সম্পর্কটা টেনে কতদিন?
– আমাকে একটা সুযোগ দেয়া যায় না?
– আমি সুযোগ পাবার যোগ্য নই রে। ভালোবাসা আমার জন্য নয়।
– কিন্তু কেনো? আমার দোষটা কোথায়?
– দোষ তোর নয়, দোষ যে আমার। আমি ফুল ভেবে যাকে আমার সর্বস্ব দিয়েছিলাম, সে কাটা রুপে আমাকে রক্তাক্ত করেছে। আমিও তোর মত একজনকে ভালোবাসতে গিয়েছিলাম। আমি যেমন তোর ভালোবাসাটাকে পায়ে পিসিয়ে ফেলেছি সেও সেভাবেই আমার ভালোবাসার বিনিময়ে আমাকে একরাশ অবিশ্বাস, প্রতারণা এবং কষ্ট দিয়েছে।
– আমি যদি জানতে চাই আমাকে বলবে সব কথা?
– তুই আগে ভেজা জামা ছেড়ে আয়। আমার রুমে আছিস, চা খেতে খেতে বলবো।

বলেই ভিজতে ভিজতে বাসার ভেতরে চলে গেলো অনল।

সন্ধ্যা ৭টা,
অনলের বারান্দায় পাশাপাশি দাঁড়িয়ে আছে অনল এবং ধারা। চা হাতে মনোযোগ দিয়ে অনলের কথা শুনছে ধারা। অনল তখন বলতে লাগে আড়াই বছর আগের ঘটনা______

আড়াই বছর আগে,
রাত ৯টা,
প্রতিদিনের মতোই অফিস থেকে বেরিয়ে বন্ধুদের সাথে আড্ডায় মশগুল অনল। মনটা আজ বড্ড বেশি খুশি তার। আজ মাহির জন্মদিন এবং জন্মদিনেই মাহিকে প্রপোজ করবে সে। মাহির সাথে তার সম্পর্ক তিন বছর হতে চললো। মেয়েটিকে পাগলের মতো ভালোবাসে সে। যদি মাহি বলে চাঁদ এনে দিতে তবে সে তাই আনতে পারবে। মাহির পছন্দ হবে এমন একটি রিং কিনেছে সে। বন্ধুদের সাথে পুরো প্লান অনুযায়ী কাজ করা কমপ্লিট। এখন মাহির আসাটাই শুধু বাকি। সময় ঘনিয়ে যাচ্ছে অথচ এখনো সে আসছে না। এই সারপ্রাইজের জন্য সকাল থেকে উইশ ও করে নি। আর তর না সইলে মাহিকে ফোন করে সে। তার তো জানা ছিলো না তার জন্য আরো বড় সারপ্রাইজ অপেক্ষা করছিলো। ফোন রিসিভ হতেই…………

চলবে
মুশফিকা রহমান মৈথি