কাগজের তুমি আমি ৭ম পর্ব

0
781

#কাগজের_তুমি_আমি
#৭ম_পর্ব

কিন্তু পরমূহুর্তে এমন কিছু দেখলো যা দেখার জন্য একেবারেই প্রস্তুত ছিলো না অনল। ধারা তখন একটি ছেলের সাথে হেসে হেসে কথা বলতে বলতে বের হচ্ছিলো। ছেলেটি ধারার সমবয়সী হবে, পচিশ-ছাব্বিশ বছর বয়স। শ্যাম বর্ণের ছেলেটি ধারার সাথে দিব্যি হেসে হেসে কথা বলছে। ধারা এতো হাসছে মনে হচ্ছে বিশ্বের সবথেকে বড় কমিডিয়ান তার সামনে দাঁড়ানো। মেজাজটা মূহুর্তে চটে গেলো অনলের। কি কেমন কথা বলছে যে অনলকেই দেখতে পাচ্ছে না। অপরদিকে ধারা ক্লাস শেষে বের হতেই দিগন্তের সাথে দেখা। দিগন্ত ছেলেটা ধারার ভার্সিটির সিনিয়র। একই সাথে স্কুলে চাকরি করে তারা। যেমন দেখতে সুন্দর তেমন মার্জিত ব্যবহার। আর ছেলেটার সব থেকে ভালো যে স্বভাবটা ধারার কাছে মনে হয় তা হলো তার মন ভালো করার পদ্ধতি। লেম লেম জোক মেরে সবসময় ধারাকে হাসানোর ব্যর্থ চেষ্টা করতে থাকে। আর ধারার মন তখন ভালো হতে বাধ্য। দিগন্ত তার সিনিয়র, কলিগের সাথে সাথে একজন খুব ভালো বন্ধু; যে কিনা বিগত চার বছর ধরে তার সাথে আছে। দিগন্তের সাথে দেখা হতেই অটোমেটিক মুখে হাসি ফুটে উঠলো ধারার ঠোঁটে।
– কি ম্যাডাম, লম্বা ছুটি কেমন কাটলো?
– হসপিটাল-বাসা করতে করতে কেটেছে। আপনি কেমন আছেন বলেন?
– আমি তো ভালোই ছিলাম কিন্তু তোমার অনুপস্থিতিতে মনের হালকা অসুস্থ ছিলো। যাক আমার মনের ঔষধ চলে এসেছে।
– এতো ফ্লার্ট করেন কিভাবে? টায়ার্ড হন না?
– এই শোনো এখন টায়ার্ড হয়ে গেলে আর বউ পাওয়া লাগবে না আমার।
– বিবাহিত মেয়েদের সাথে ফ্লার্ট করলে বউ পেয়ে যাবেন?
– আজিব, দেখো আমি তোমার সাথে ফ্লার্ট করি, তুমি ইরিটেট হও। আমার থেকে ছাড়া পাওয়ার একটাই উপায় আমাকে বউ খুজে দেয়া। সো তুমি ইরিটেট হলেও আমাকে বাধ্য হয়ে মেয়ে খুজে দিবে যাতে আমি আর তোমার সাথে ফ্লার্ট না করি।
– কি বুদ্ধি! আই এম শকড।

ধারা যখন দিগন্তের সাথে কথা বলতে ব্যস্ত তখনই তার পাশে এসে দাঁড়ায় অনল। খুব স্বাভাবিক ভাবেই ধারাকে জিজ্ঞেস করে,
– আজ কি এখানে থাকার প্লান করে রেখেছিস?

হঠাৎ অনলের কন্ঠস্বর শুনে বেশ খানিকটা চমকে উঠে ধারা। পেছনে ফিরে অনলকে অগ্নিদৃষ্টি নিক্ষেপ করতে দেখে অবাক ও হয় সে। একে অনল ঠিক সময়মত এসে হাজির হয়েছে, উপরে রাগী দৃষ্টিতে ধারার দিকে তাকিয়ে আসে যেনো মহাপাপ কিছু একটা ধারা করে ফেলেছে। নিজেকে স্বাভাবিক রেখেই দিগন্তের দিকে তাকিয়ে ধারা বললো,
– দিগন্ত ভাই, আমি আসি আজকে।
– সে ঠিক আছে কিন্তু উনি?
– আমার ফুপাতো ভাই, উনার নাম অনল। অনল ভাই ইনি আমার কলিগ দিগন্ত ভাই।
– হ্যালো।

দিগন্ত হাত বাড়িয়ে দিলে নিজের রাগ কোনোমতে কন্ট্রোল করে হ্যান্ডশেক করে অনল। রাগে গা রি রি করছে। কিন্তু ধারাকে এখন কিছু বলতে পারছে না। ধারার রাগ ভাঙাতে চায় সে, রাগ দেখালে হিতে বিপরীত হবে। তাই কিছু বললো না অনল। হ্যান্ডশেক করেই ধারাকে বললো,
– পাঁচ মিনিটের মধ্যে গাড়িতে আয়। মা ওয়েট করছে কখন থেকে
– আচ্ছা, চল। আসি দিগন্ত ভাই।

দিগন্তের কাছ থেকে বিদায় নিয়ে গাড়িতে উঠলো ধারা। গাড়িতে উঠতে না উঠতেই অনল দাঁতে দাঁত চেপে বললো,
– আমি তোর কোন জনমের ভাই লাগি রে?
– মানে?
– মানে আবার কি! কালকে থেকে দেখছি ভাই ভাই করে মাথা খারাপ করে দিচ্ছিস। আরেকবার যদি ভাই বলিস ত দেখিস
– অনল ভাই, একটা কথা মাথায় ঢুকায়ে রাখো, আমাদের মধ্যে এখন শুধু ফুপাতো-মামাতো ভাই-বোনের সম্পর্কটাই আছে। এছাড়া আর কিছু এক্সপেক্ট করতে যেও না। যেহেতু চলে এসেছো। আমি চাই আমাদের ডিভোর্সটা এবার পাকাপুক্তভাবে হয়ে যাক।
– মানে?
– মানে টা স্পষ্ট। সেবার তুমি আমাকে মুক্তি দিতে চেয়েছিলে, এবার আমি মুক্তি চাচ্ছি।

ধারার কথা শুনে অনলের মুখ শক্ত হয়ে এসেছে। হাত মুঠো বদ্ধ করে রাগ কমানোর চেষ্টা করে যাচ্ছে, বুকের বা পাশের চিনচিন ব্যাথাটা আবার তিব্রতর হয়ে আসছে। কোনো কথা না বলে গাড়ি স্টার্ট করলো অনল। প্রচুর দ্রুত গাড়ি চালিয়ে বাড়ির গেটে এসে গাড়িটা থামালো। গাড়ি থামলে ধারা কোনো কথা না বলে গাড়ি থেকে নেমে পড়লো। সারা রাস্তা তারা কোনো কথাই বলে নি। অনলের আজ সব প্লান নষ্ট হয়ে গিয়েছে ধারার এক কথায়। বাড়ি এসে সোজাসোজি নিজের রুমে চলে যায় ধারা। অনল ও গাড়ি নিয়ে বেরিয়ে পড়ে ক্লাবের দিকে। খুব দম বন্ধ বন্ধ লাগছে। ধারা তাকে নিজের কথা বলার কোনো সুযোগ ই দিচ্ছে না। কিভাবে ধারার সাথে তার কাগজের সম্পর্কটাকে নরমাল সম্পর্কে পরিণতি করবে তা জানা নেই অনলের।

রাত ৮টা,
একের পর এক সিগারেট জ্বালাচ্ছে অনল। নিজের ভেতরের আগুনটাকে কিছুতেই শান্ত করতে পারছে না সে। কষ্টগুলো ছুঁচের মত ফুটেই চলেছে।
– লিভার যা একটু ঠিক ছিলো সেটাও কি নষ্ট করে ফেলার ধান্দায় আছিস নাকি?

অনন্যার কথায় পেছনে না ফিরেই বলে উঠে অনল,
– এটা স্মোকিং যোন, তুই এখানেও কেনো ঢুকে পড়েছিস?
– স্মোকিং যোনে নিশ্চয়ই নাচতে আসি নাই। একটি বেনসন দে।
– তুই কবে থেকে স্মোক করিস?
– সে মেলা ইতিহাস। শর্ট কথা ব্রেকাপের পর থেকে।
– ভালো, এক দেবদাসে ভাত পাচ্ছে না। আরেকজন জুটেছে। নে।

বলে একটা সিগারেট এগিয়ে দিলো অনন্যার দিকে। অনন্যা সিগারেটটা ধরাতে ধরাতে বললো,
– আজ কি ছ্যাকার পরিমাণটা বেশি?
– ধারা আমাকে ডিভোর্স দিতে চাচ্ছে।
– তো? এটাই তো তুই চেয়েছিলি না? ইভেন তুই নিজে পেপারস এ সাইন করে গেছিস। এখন আবার মন চেঞ্জ?
– ভাই ভুল করেছিলাম, না অন্যায় করেছিলাম। বাট আমার ওকে ছাড়া চলবে না দোস্ত। আমি পারবো না ওকে ছাড়া আবার থাকতে। অনেক থাইকে দেখছি। আর না।
– ওয়াও। হ্যাটস অফ। তুই যখন চেয়েছিস ওকে ছেড়ে চলে গেলি। এখন তুই চাচ্ছিস এক সাথে থাকতে সো ধারার থাকতে হবে। এটা কি ফাজলামি। আর ইউ ফা**** কিডিং মি?
– তো কি করবো আমি? জানি অন্যায় করেছিলাম। কিন্তু এবার সেটাকে শুধরাতে চাইছি। ওকে সেই সব খুশী দিতে চাইছ যা ও ডিসার্ভ করে। একটা সুযোগ কি আমার প্রাপ্য নয়? একটা লাস্ট সুযোগ?
– সেটা ধারা ভালো বলতে পারবে।
– ও কি বলবে, এখন ওর কাছে তো চয়েজ আছে।
– হ্যা?
– আরে একটা চেংড়া ছেলে, ওর কলিগ। মে বি ওকে লাইক করে ডোন্ট নো। খুব ক্লোজ ওরা। আমাকে ছেলেটার সামনে ভাই হিসেবে পরিচয় দিয়েছে। ক্যান ইউ ইমাজিন?
– হাহাহাহা, তুই কি এক্সপেক্ট করিস যে ও তোর মত বুইড়াকে হাসবেন্ড হিসেবে পরিচয় দিবে। শালা তোরে আংকেল বলে নাই তোর ভাগ্য ভালো। কলপ দিয়ে পাকা চুল ঢেকে রাখছোস আবার কথা।
– তুই আমার বন্ধু? আমার মাঝে মাঝে প্রশ্ন উঠে মনে।
– হাহাহা
– হাসবি না, আমি বুইড়া হলে তুই ও বুড়ি। তাও তো আমার বিয়ে হয়েছে, তুই আইবুড়োই থেকে যাবি।
– এই বিয়েশাদী যে আমার জন্য না এটা আমার খুব ভালো করে জানা আছে। কে বিয়ে করবে বলো এমন স্মোকার, বিনা চালচলনের মেয়েকে?
– সরি রে, আচ্ছা রবিনের সাথে তো তোর বিয়ে ঠিকঠাক ছিলো তাহলে কি হলো?
– শোন, আমার মতো বেহাল্লা মেয়েগুলো গার্লফ্রেন্ড ট্যাগ পাওয়ার ক্যাপাবিলিটি রাখে, স্ত্রী ট্যাগটা আমাদের জন্য না। আমার ফ্যামিলি স্ট্যাটাস তো তোর জানা। বাবা-মা ডিভোর্সড, সারাজীবন উড়ণচন্ডী ছিলাম। এসব কিছুই একেকটা ইস্যু ছিলো। তবে রবিন ছেলেটা অনেক চেষ্টা করেছে, প্রথমে ওর বাবা-মার চিন্তাধারা বদলাতে, তারপর আমাকে বদলাতে, না পেরে নিজেকে বদলাতে। ছেলেটা আমার সাথে সম্পর্কে পিসছিলো। ওর কষ্টগুলো আর নিতে পারছিলাম না। শেষমেশ বাড়ি ছাড়ার কথাও বলে। অনেক ভাবলাম জানিস, এতো গুলো সম্পর্ক ভাঙার থেকে আই গেস এই একটা সম্পর্ক ভাঙা ইজি। তাই আমি ব্রেকাপটা করেছি।
– তুই হ্যাপি তো?
– সিগারেটের সাথে ইয়েস। তবে কি লাইফ কারোর জন্য বসে থাকে না। এই দেখ না ওর সামনের মাসে বিয়ে। তাহলে আমার ডিসিশনটা তো ঠিক ছিলো বল।

অনন্যা কাঁদছে, মেয়েটাকে এই প্রথম কাঁদতে দেখছে অনল। জীবন তাকে ভাঙন বাদে কিছুই দিতে পারে নি। আজও তাই। অনল ও নিঃশব্দে চোখের পানি ফেলাচ্ছে। এরই নাম হয়তো বেঁচে থাকা।

রাত ১১টা,
কলিংবেলের আওয়াজ পেতেই ঘুম ভেঙে গেলো ধারার। ঢুলুঢুলু চোখে দরজা খুলতেই দেখলো………………

চলবে
মুশফিকা রহমান মৈথি