গ্রামের পিচ্চি বউ পর্ব :- ১৬ + ১৭ এবং ১৮

0
964

গল্প :- গ্রামের পিচ্চি বউ
পর্ব :- ১৬ + ১৭ এবং ১৮
লেখিকা :- বাবুনি
.
.
-:”আমি গাড়ি চালাচ্ছিলাম ঐ দিকে মনোযোগ..
রুমকির দিকে খেয়াল নেই..
হঠাৎ ওর কথা শুনে ওর দিকে তাকালাম একপলক..
রুমকি:Sorry…
আমি: কেন ,Sorry কেন হঠাৎ…?(বেশ অবাক হয়ে বললাম)
রুমকি:আপনারে এত গালি যে দিলাম এর লাগি Sorry..
আমি: বললাম It’s ok আমার পিচ্চি বউ বলেই হেসে দিলাম…
রুমকি:এলা হাসরা কেনে ,হাসবা না হাসলে আপনারে ছাগলের মতো লাগে,জঙ্গলি ভূত লাগে,খাচ্ছর লাগে…

আরও কত কি বির বির করে বকা দিচ্ছে আল্লাহ ই জানে , আমি শুনতে পেলাম না আর কিছু…
আমি: আমার আরও বেশি হাসির মাত্রা বেড়ে গেলো ওর কথা শুনে…হা হা হা….
রুমকি:এলা না হাসিয়া ঠিক মতো গাড়ি চালাইন…
আমি: বেশ অবাক হলাম আমার পিচ্চি বউ এর হঠাৎ এরকম বড়দের মতো আচরণ দেখে…
তারপর একটু অভিমানের সুরে বললাম ..Ok..
ও চুপ করে বসে আছে, আমি ও ড্রাইভিং করছি সামনের দিকে মনোযোগ দিয়ে…
বাকি পথ আর কোনো কথা বলিনি দুজনেই..

দেখতে দেখতে রুমকিদের বাসায় পৌছে গেলাম.. গাড়ি টা থামালাম..
আমার শশুরবাড়ির সবাই জানত আজ আমরা আসবো..
তাই ওনারা আগে থেকেই প্রস্তুত ছিলেন আমাদের Received করার জন্য…
রুমকি গাড়ি থেকে নেমে এক দৌড়ে ওর আম্মু আব্বু কে সালাম করে জরিয়ে ধরে.. জরিয়ে ধরে কান্নায় ভেঙে পড়ে..

আমি অবশ্যই আগে থেকেই জানতাম গ্রামের মেয়েরা এরকমই হয় .. তাঁরা বাবার বাড়ি থেকে আসতে ও কান্না করে , যেতে ও কান্না করে..আজ নিজের চোখে দেখলাম..
আমি ও এগিয়ে গিয়ে ওনাদের সালাম করে, কোশল বিনীময় করলাম…
আমার শাশুড়ি শশুর আমাকে ঘরের ভেতর যাওয়ার কথা বললেন..আর কাজের ছেলে টা কে বললেন গাড়ি থেকে জিনিস পত্র গুলো নামিয়ে ঘরে আনতে..
আমাকে একটা রুমে এনে বসানো হলো..
রুমটা আমার পরিচিত , আমি আব্বু আম্মুর সাথে প্রথম দিন আসার পর এই রুমেই বসানো হয়েছিল …
রুমে সোফা সেট ও একটা টেবিল ও কয়েকটি চেয়ার রয়েছে…
আমি বসে আছি.. হঠাৎ আমার পিচ্চি শালা আমার পাশে এসে বসল…
আমি বললাম কেমন আছো রাফি তুমি…?
রাফি:ভালা আছি ..আপনে ভালা নি..
আমি:হুমমম ভালো আছি…
ওর সাথে অনেক ভাব জমে উঠেছে এই কিছু সময়ের মধ্যে.. খুব ভালো লাগলো আমার পিচ্চি বউ এর পিচ্চি ভাইয়ের সাথে কথা বলে..
ইতিমধ্যে আমার জন্য নানা ধরনের খাবার টেবিলে দেওয়া হয়েছে..
অনেক আদর যত্ন করে খাওয়ানো হচ্ছে আমাকে..
(মনে মনে ভাবলাম একেই বুঝি বলে জামাই আদর.)
রুমকি আমার পাশে বসে ই খাচ্ছে আর আমাকে মুখে ভেংচি কেটে কেপাচ্ছে..
ও বুঝতে পারছে আমার পক্ষে আর খাওয়া সম্ভব নয় ,তাই সুযোগে সত ব্যবহার করছে..
আমি ওরে ইশারা দিয়ে বললাম পড়ে বুঝাবো মজা..
ও চোখ সরিয়ে নিল..
খাওয়া দাওয়া শেষ করে ,আমার আর রুমকির রুম টা দেখিয়ে দিল আমার শালা..
আমি রুমে গিয়ে ফ্রেশ হয়ে নিলাম..এখন একটু বিশ্রাম প্রয়োজন এত দূর জার্নি করে আসছি..
বিছানায় গা এলিয়ে দিলাম..
.
.
#Part :- 17
.
.
-:”দুচোখে ঘুম নেমে এল… ঘুমের রাজ্যে হারিয়ে গেলাম…
হঠাৎ মনে হলো আমার উপর বৃষ্টি পড়ছে গ্রীষ্মের দিনে বৃষ্টি তা ও আবার রুমের ভেতর কিভাবে আসলো…
চোখ খুলে তাকিয়ে দেখি রুমকি আমার পাশে দাঁড়িয়ে আছে হাতে পানির জগ…
আমার বুঝতে বাকি রইলো না এই টা, বৃষ্টি না আমার পিচ্চি বউ এর কাজ…
ওর দিকে চোখ বড় বড় করে তাকিয়ে বললাম এটা কি হলো রুমকি…?
রুমকি:আপনে যেলা ঘুমাইচইন মনে হয় দুই দিনে এ ঘুম ভাঙ্গতো নায়..ওউ পানি দিয়া ছিটা দিলাম আপনার উপরে..
বলে হা হা করে হেসে উঠলো…
আমি : রাগে শুধু ফোলছি…
তাই বলে পানি দিয়ে এভাবে তুলতে হবে ,ডাকলে ই তো পারতে…
রুমকি:সবে খানির টেবিলে বইতাকছইন আপনার লাগি ওয়েট কররা, আমার এ কইলা আপনারে ডাকতাম…
আমি: একটু অভিমানের ভঙ্গি করে বললাম , তুমি যাও খেয়ে নাও আমি খাবো না..
রুমকি:(বুঝতে পারলো আমি রেগে আছি..)
Sorry plz ..আর এতা করতাম নায় আইন এখন খাইতা…
আমি:না আমি খাবো না যাও তুমি…
রুমকি:আর ইতা করতাম নায় Promise plz এবারর মতো মাপ করি দিলাইন ,আপনে এখন না খাইলে আব্বু আম্মু এ আমারে বকা দিবা…
আমি:আজব তো আমি না খেলে তুমাকে বকবেন কেন…?
রুমকি:আপনে বুঝতা নায় আইন plz..
(চলচল চোখে তাকিয়ে আছে আমার দিকে..মনে হচ্ছে আমি যদি আরেকবার খাবো না বলি , তাহলে ওর চোখ দুটিতে বৃষ্টি নামবে..)
আমি:ওকে খাবো,কিন্তু আমার সর্ত আছে …
রুমকি:কিতা সর্ত আবার..?
আমি: তুমি আমাকে রাতে চুমু খেতে হবে ৫০বার ,রাজি তো..?
রুমকি: একটু রাগি কন্ঠে বলল , না পারতাম নায়..
আমি: তাহলে যাও তুমি আমি খাবো না এখন ঘুমাবো…
রুমকি: একটু ভেবে বলল ঠিক আছে…
আমি: মুখে একটু সয়তানি হাসি দিয়ে বললাম ,এই তো আমার পিচ্চি বউ অনেক লক্ষী বউ আমার…
রুমকি: মুখ বাকা করে চলে গেল..
আমি ও ওর পিছু পিছু গেলাম, অনেক রকমের খাবার রান্না করা হয়েছে ..
নতুন জামাই বলে কথা..
আমাকে ও রুমকি কে পাশাপাশি বসানো হলো..
খাওয়া দাওয়া শেষ করে আমি শশুর ও আমার পিচ্চি শালার সাথে গল্প করতে লাগলাম…
রাত প্রায় আড়াইটা বাজে গেছে গল্প শেষ করে রুমে আসলাম..
আমি বসে বসে ফোন টিপছি বিছানার উপর..
হঠাৎ রুমকির আম্মু আসলেন ..
আমি কিছু বলার আগেই ওনি বললেন..
বাবা রাফসান আজকে আমার পাগলি মেয়ে টা আমার কান্দাত থাকতো কর,ও দেখতে বড় হইগেছে কিন্তু ওর বয়েস কম এখন ও বাচ্চাইনতর মতো আচরণ করে..
তুমি কিচ্ছু মনে কইর না ,ও আজ আমার কান্দাত তাকি যাইবো নে..

আমার চোখে তো সরষে ফুল উড়ছে..
আমি এখন কিভাবে ঘুমাবো আমার পিচ্চি বউ কে ছাড়া , কয়েক দিনে ওর সাথে ঘুমিয়ে অভ্যেস হয়ে গেছে ,ঘুম থেকে উঠে ওর মায়া ভরা মুখ দেখা…
রুমকির আম্মু :কিতা হইল বাবা কিচ্ছু চিন্তা কররায় নি..
আমি:না ,,আন্টি ? আচ্ছা ঠিক আছে ও আপনার পাশে ই থাকোক..

মুখে ছোট্ট হাসি দিয়ে ,,বাট ভিতরে তো আমার বমা ফোঁটতাছে…?
.
.
#Part :- 18
.
.
-:”আন্টি: আচ্ছা বাবা আমি এখন যাই তুমি ঘুমাই থাকো..
আমি:ওকে আন্টি ..
আন্টি চলে গেলেন..
আমি কিভাবে ঘুমাবো এখন আমার পিচ্চি বউ টা কে ছাড়া..
ঘুম ও তো আসছে না.. কিছুক্ষণ বিছানায় এপাশ ওপাশ করে উঠে গেলাম..
উঠে বাইরে বের হয়ে আসলাম , সবকিছু নিরব মনে হচ্ছে সবাই গভীর ঘুমে অচেতন..
আমি একটু দরজার সামনে পাইচারি করতে লাগলাম.. অন্ধকার লাইট অফ সব রুমের শুধু আমার রুমে লাইট টা এখন ও জ্বালানো রয়েছে..তবে দরজার সামনে বাইরে থেকে একটু একটু আলো আসছে চাঁদের.
চাঁদের আলোয় আলোকিত হয়েছে জায়গা টা..
হঠাৎ কারো উপস্থিতি টের পেলাম পিছনে..
এত রাতে কে আসবে এখানে, সবাই ঘুমিয়ে আছে..
ভূতঠুত না তো…? গ্রামে ভূতপ্রেতের আবির্ভাব ঘটে বেশি শুনেছি..
ভয় করছে একটু তারপর ও মনে সাহস নিয়ে পিছনে ঘুরে তাকালাম..
এ কি…এত দেখছি আস্ত একটা শাকচুন্নী..(মানে আমার পিচ্চি বউ, অন্ধকার হলে কি হবে আমি ঠিক বুঝতে পারছি এইটা আমার পিচ্চি বউ..আর কেউ না.. তারপর ও একটু ভঙ্গি ধরলাম যাতে ও বুঝে আমি ভয় পাইছি মাথায় কুবুদ্ধি চেপে বসলো..)
বললাম,ও মা গো ভূ___ এখানে ই স্টপ করে দিলো আমার বউ আমার মুখ চেপে ধরল হাত দিয়ে..
তারপর বলল চিক দিরা কেনে এলা সব ঘুমো উঠি যাইবা..
আমি :ওর হাত দুটো মুখ থেকে ছাড়িয়ে নিয়ে বললাম..তো কি করবো শাকচুন্নী একটা আমি তো মনে করছি ভূত…আর হে তুমি এখানে আসছো কেন এত রাতে..?
রুমকি: আমি শাকচুন্নী হইলে আপনে একটা রাক্ষস… আমি আপনার রুমর লাইট জ্বালাইল দেখিয়া আইছি, ভাবলাম আপনে এত রাইত কিতা করইন দেখিয়া আই..
আমি: ওহ আচ্ছা,ঘুম আসছে না তাই ..বাট তুমি ঘুমাও নি কেন..?
রুমকি: আমি তো আপনার রুমর লাইট জ্বালাইল কেনে দেখার লাগি ঘুম তাকিয়া উঠিয়া আইলাম ..আপনে ঘুমাইলা না কেনে রাইত ৩টা হইগেছে..
আমি: আমার তো ঘুম আসছে না তাই, একটু বাইরে বের হয়ে হাঁটাহাঁটি করছি..
রুমকি:কেনে..?
আমি: আমার পিচ্চি বউ টা ছাড়া যে আমার ঘুম আসছে না…
রুমকি: ওইছে ঢং বাদ দিয়া ঘুমাইন এখন..
আমি: তাহলে তুমি ও আসো..
রুমকি: আমি কেনে আইতাম..
আমি: আমার পাশে ঘুমাবে তাই..
রুমকি:আপনারে আম্মু এ কইলা নো আমি তান গেছে থাকমু আইজ..
আমি:হুমমম, বলছেন তো বাট আমার যে ঘুম আসছে না.. প্লিজ তুমি আমার সাথে ঘুমাবে..
রুমকি: না পারতাম নায় , আমি গেলাম ওকে..
আমি:ওর হাত ধরে বললাম ওই পিচ্চি কোথায় যাবে..আর আমার চুমু কই হুমমম..
রুমকি: (মুখ লজ্জায় লাল হয়ে গেছে ওর.)
বলল ,ছাড়ইন আমারে ঘুমাইতাম আপনে ও ঘুমাইন..
আমি:ওকে ছাড়ছি বাট আগে চুমু দেও..
রুমকি:বলল ,পারতাম নায়..
আমি:ওকে তাহলে আমি ও ছাড়ছি না..
রুমকি বাধ্য হয়ে আমার কপালে ভালোবাসার প্রতীক এঁকে দিলো..
তারপর আমি ও ওকে জড়িয়ে ধরে ওর কপালে আলতো করে চুমু দিলাম..
আমি বললাম যাও এবার ঘুমিয়ে পড়ো পিচ্চি বউ..
রুমকি আমার থেকে নিজেকে ছাড়িয়ে নিয়ে, লজ্জায় দিল এক দৌড়..
.
.
চলবে……………..♥