গ্রামের পিচ্চি বউ পর্ব :- ৩৭ + ৩৮ এবং ৩৯

0
1198

গল্প :- গ্রামের পিচ্চি বউ
পর্ব :- ৩৭ + ৩৮ এবং ৩৯
লেখিকা :- বাবুনি
.
.
-:”আমি রুমকি কে আর কিছু বলার আগেই , সীমা চলে গেল _
আমি হা করে তাকিয়ে আছি ওর দিকে..
একটু পর পাশে তাকিয়ে দেখি রুমকি ও নেই..
কোথায় গেল_?
খুঁজতে খুঁজতে গিয়ে দেখি,ও গাড়ির ভেতরে বসে আছে..
আমি গিয়ে ওর পাশে বসলাম..
তারপর বললাম এই কি হয়েছে এইভাবে কেন আচরণ করলে ওর সাথে,তা ও আবার আমার সামনে..?
রুমকি:তো কি হয়েছে_?
আমি: আবার বলছো কি হয়েছে..
রুমকি গাল ফুলিয়ে বসে রইল আর একটা কথা ও বলল না_
আমি বললাম ওই পিচ্চি গাড়ি থেকে নেমে আসো.. অনুষ্ঠান তো এখনো শেষ হয়নি..
রুমকি: না হলে নাই আমি বাসায় যাবো এখন..
আমি: প্লিজ একটু বোঝার চেষ্টা করো , এখন বাসায় যাওয়া যাবে না.. সবাই কি মনে করবে..
রুমকি:ওকে , তাহলে আমি একাই যাচ্ছি .. আপনি থাকেন..
(গাড়ি থেকে নেমে যেতে চাইলো,ওর হাত ধরে বললাম ..)
আমি:ওই পিচ্চি খুব বেশি বুঝতে শিখে গেছো তাই না ?,দিন দিন খুব সাহস বেড়ে যাচ্ছে…
চুপ করে এইখানে বসো আমি আসছি..
গাড়ির বাইরে একবার ও ভুল করেও বের হবে না_হলে আজ মেরে ভূত বানিয়ে দিবো..
রুমকি:(রাগে ফুঁসতে ফুঁসতে আস্তে আস্তে বকা দিলো কয়েকটা খবিস ,খাটাস,মেল্লস , জল্লাদ_আরো কত কি সব কিছু শুনতে পাইনি..) তারপর বলল রাগি কন্ঠে ওকে..
আমি গাড়ি থেকে নেমে গেলাম, ম্যানেজার কে সব বুঝিয়ে দিয়ে আসলাম..
এসে দেখি রুমকি ফোন টিপছে বসে বসে..
আমি আসতেই ফোন রেখে দিলো ব্যাগে..
আমি:গাড়িতে উঠে গাড়ি স্টার্ট দিলাম..
ড্রাইভিং করতে করতে বললাম_তুমি ফোনে কি করছিলে..?
রুমকি:প্রেম করছি..
আমি:কি বললে তুমি _?
রুমকি:যা সত্যি তাই..
আমি: তুমার ফোন টা দাও..
রুমকি:কেনো_?
আমি:বলছি দিতে দাও আমি দেখবো_
রুমকি: আপনি কেনো আমার ফোন দেখবেন_আমার ব্যাক্তিগত ফোন এই টা আমার যা খুশি করবো ,যার সাথে ইচ্ছে তার সাথে কথা বলবো_তাতে আপনার কি..
আমি :রাগে গাড়ি টা থামিয়ে দিয়ে বললাম,ওই তুই আমার বউ তর সব ব্যাপারে আমি ভাগ বসাবো_কারণ আমি তর স্বামী আর হে তুই আমি ছাড়া আর কারো সাথে কথা বলতে পারবি না_
রুমকি:কেনো পারবো না_?আপনি তো খুব সুন্দর করে কথা বলতে পারেন অপরিচিত মেয়ের সাথে,তার জন্য আমাকে ও বকা দিতে পারেন _তাহলে আমি কেনো পারবো না..
আমি: আরে ও অফিসের সহকর্মীদের মধ্যে একজন,ও খুব ভালো মেয়ে বাট আমি ও তো বুঝতে পারছি না আজ কেনো এরকম খারাপ ব্যবহার করলো_
রুমকি: আপনি বুঝতে না পারলে ও, আমি ঠিকই বুঝতে পারছি ও কেন এমন করছে_
আমি: কেন_?
রুমকি:ওই ডাইনিটা আপনাকে ভালোবাসে তাই_
মুখ টা মলিন হয়ে গেল এই কথা বলেই আমার পিচ্চি বউ এর..
আমি: বললাম তাই নাকি_
রুমকি: হে আর আপনি ও ওকে ভালোবাসেন তাই না_? ?

আমার প্রচন্ড হাসি পাচ্ছে,আর চেপে রাখতে পারলাম না_হা হা করে হেসে উঠলাম_

আমার পিচ্চি বউ তো রেগে আগুন_এমন ভাবে তাকালো আমার দিকে যেন আমি অনেক বড় একটা অপরাধ করে ফেলেছি_
.
.
#Part :- 38
.
.
-:”আমি হাসি থামিয়ে দিয়ে বললাম, এই এইভাবে তাকচ্ছো কেন..
এইভাবে তাকাবে না একদম বলে দিলাম, আমার ভয় লাগে_
রুমকি:রেগে গিয়ে আমার শার্টের কলার চেপে ধরল_
আমি:হা করে তাকিয়ে আছি ওর দিকে_
রুমকি আমার কলার চেপে ধরে বলল, আপনি যদি আর কারো সাথে কথা বলতে যান তাহলে, তাহলে আমি আপনাকে_(কিছুটা থুতলিয়ে বলল_)খুন করে ফেলবো_
আমি:কেনো আমি অন্য মেয়েদের সাথে কথা বললে তুমার কি হয়_?
রুমকি: আমি আপনার স্ত্রী ,সো আমি ছাড়া অন্য কারো সাথে কথা বলতে পারবেন না_
আমি: কেন_? কারণ টা কি বলবে তো_?
রুমকি: আমার হিংসা হয় তাই_
আমি: মেয়েরা এরকমই হয়_
রুমকি: আরেকটু জোরে চাপ দিয়ে ধরে কলার টা_তারপর বলল, কিরকম হয়_??
আমি: মনে মনে বললাম আল্লাহ আজ কি পত্রিকায় বিজ্ঞাপন হয়ে যাবো না কি , স্ত্রীর হাতে স্বামী খুন_
এত শক্ত করে চেপে ধরেছে যে, আমার নিঃশ্বাস নিতে ও কষ্ট হচ্ছে_
অনেক কষ্টে বললাম ওই ছাড়ো বলছি লাগছে তো_
রুমকি:ছাড়বো না আজ মেরেই ফেলবো , বলেন আগে আমি ছাড়া আর কোনো মেয়ের সাথে কথা বলবেন না..
আমি:ওকে ঠিক আছে ছাড়ো_বলবো না..
রুমকি:ছাড়ছি বাট, সীমার আর আপনার মধ্যে কিসের সম্পর্ক সত্যি কথা বলতে হবে_
আমি:ওকে সব বলছি আগে কলার টা ছাড়ো আমার_
ও ছেড়ে দিল..আমি হাঁপাচ্ছি প্রচুর..
রুমকি পানির বোতল টা এগিয়ে দিলো হাতে_
ঢক ঢক করে পানির বোতল থেকে অর্ধেক অংশ ই খেয়ে নিলাম_তারপর বড় করে একটা হাই তুললাম,তুলে গাড়ির সিটে গা এলিয়ে দিলাম_
রুমকি:ডেব ডেব করে তাকিয়ে রইল আমার দিকে_
আমি:ওর দিকে তাকিয়ে মুচকি হাসি দেবার বৃথা চেষ্টা করলাম, তারপর বুঝতে পারলাম এতে কাজ হবে না_
তাই ওকে সব খুলে বললাম_সব কিছু শুনার পর রুমকি কিছু বলল না আর..
চুপ করে বসে রইল কিছুক্ষণ গম্ভীর মুখ নিয়ে..
আমি:কি হলো_এখন তো সবই শুনলে এখন আবার কি হলো_?
রুমকি: কিছু না বলেই আমাকে জড়িয়ে ধরে কান্না করতে লাগলো_
আমি: (অবাক কান্ড ,এই দেখলাম এক রুপে আমার পিচ্চি বউ কে একদম শাকচুন্নীদের মতো..আর এখন সেই কি না কান্না করছে একদম বাচ্চাদের মত..)
আল্লাহ একটা মানুষ এত রুপ ধারণ করে,তার মধ্যে এত রুপ ,যাকে বলা যায় বহুরুপী _বললাম ঐ পিচ্চি বউ আমার কান্না করছো কেন এখন আবার_?
রুমকি: কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলল_আপনি শুধু আমার আর কারো না.. আমি আপনাকে ভালোবাসি অনেক বেশি_আমি আপনাকে হারাতে চাই না_
আবার কান্না শুরু_
আমি :ওকে বুকে টেনে নিয়ে বললাম, পিচ্চি বউ আমি তো তুমার স্বামী তুমার ই আছি এবং থাকবো_
রুমকি: আমাকে শক্ত করে চেপে ধরে বলল,আর যদি ঐ ডাইনিটা আপনাকে আর আমাকে আলাদা করতে চায়..
আমি:সেটা ও চাইলে ও পারবে না এখন..
রুমকি: কেন_?
আমি:কারণ আমি আর তুমি তো স্বামী_স্ত্রী.. ও চাইলে কেন পৃথিবীর কোনো শক্তিই আমাদের আলাদা করতে পারবে না যদি আল্লাহ না চান,আর আমারা ঠিক থাকি_
রুমকি: সত্যি তো_?
আমি: (একটা শয়তানি হাসি দিয়ে_)হুমম সত্যি_
.
.
#Part :- 39
.
.
-:”ওর কপালে চুমু দিয়ে ,গাড়ি স্টার্ট দিলাম_
ও আমার কাঁধে মাথা রেখে বসে আছে..

বাসায় এসে রুমে গেলাম, দুজন ফ্রেশ হয়ে খাবার টেবিলে বসলাম..
রুমকি : আচ্ছা আপনি আমাকে সত্যি করে একটা কথা বলবেন_?
আমি:খেতে খেতে বললাম ,হুমমম বল কি কথা..
রুমকি: আপনি আমাকে সত্যি ভালোবাসেন_?
আমি:এটা কেমন কথা রুমকি _আমি তুমাকে ভালোবাসি কি না তা তুমি জানো না_
রুমকি: জানি তো_বাট সত্যি নাকি মিথ্যা_?
আমি: সত্যি সত্যি _তিন সত্যি , হয়েছে এখন খেয়ে নাও ..
রুমকি:হুমমম, খাচ্ছি তো..বাট আরেকটা কথা বলি..
আমি:হুমমম ,বল..
রুমকি: আপনি আমাকে ঘুরতে নিয়ে যান না কেন মাঝে মধ্যে_ আমার বান্ধবী ওর বয়ফ্রেন্ড এর সাথে কত জায়গায় ঘুরতে যায়..
আমি:ওর কথা শুনে একটু অবাক হয়ে গেলাম, তারপর ভাবলাম সত্যি ই তো.. বিয়ের পর থেকে আজকের দিনটা ছাড়া কোথাও যাই নি ওকে নিয়ে ঘুরতে..

রুমকি:কি হলো কিছু বলছেন না যে..?
আমি: না ভাবছি আজই তোমাকে নিয়ে ঘুরতে যাবো একটি জায়গায়..
রুমকি: সত্যি__কোথায় যাবেন..?
আমি:খেয়ে নাও, তারাতাড়ি খেয়ে রেডি হয়ে নাও_গেলেই দেখতে পাবে..
রুমকি:ওকে _
ও খেয়ে হাত ধোয়েই দিলো এক দৌড় উপরে..
আমি ওর এমন কান্ড দেখে হাসছি..

ও রেডি হয়ে নিচে নেমে এলো..
আমি বললাম চলো_
রুমকি: আম্মু আব্বু কে বলে আসি ওনারা ও যাবেন আমাদের সাথে..
আমি:(আল্লাহ এই পিচ্চি বউ কে নিয়ে আর পারি না..কি বলে এসব_)
তারপর বললাম,দেখো রুমকি আমরা দুজন স্বামী স্ত্রী এখন আমাদের সাথে ওনারা গেলে কিরকম লাগবে _
রুমকি: কেন কিরকম লাগবে , ভালো ই তো লাগবে_
আমি:এত ভালো লাগার দরকার নেই ,আসো আমার সাথে বলেই ওর হাত ধরে বাইরে নিয়ে আসলাম_
গাড়িতে উঠলাম দুজন_গাড়ি স্টার্ট দিলাম..

রুমকি : আচ্ছা আমরা কোথায় যাচ্ছি_?
আমি:গেলেই দেখবে_এখন চুপ করে বসে থাকো..
রুমকি : একটু গাল ফুলিয়ে ,ওকে..
আমি আমাদের পোরনো বাংলো বাড়ির সামনে গাড়ি টা থামালাম_
রুমকি: কোথায় নিয়ে আসছেন আমাকে_
আমি:আরে আসো দেখতে পাবে ভিতরে গেলেই_
রুমকি গাড়ি থেকে নেমে আসলো..
আমি ওর হাত ধরে ভিতরে প্রবেশ করলাম, দারোয়ান আমাকে দেখে সালাম করলো..
ঐসব উপেক্ষা করে আরোও ভিতরে নিয়ে যেতে লাগলাম রুমকি কে..
বাগানের সামনে নিয়ে আসলাম_
ও বাগান টা দেখেই খুশিতে মেতে উঠলো..
আমি পিছনে লুকিয়ে গেলাম একটা গাছের আড়ালে..
রুমকি ধন্যবাদ দেয়ার জন্য পিছনে তাকিয়ে দেখে রাফসান নেই..
ও এদিক ওদিক তাকিয়ে খুঁজতে লাগলো..
হঠাৎ পিছন থেকে এসে ও রুমকির মাথায় ফুল এর পাপড়ি গুলো উপর থেকে ছিটিয়ে দিলো_
যেনো ওর উপর গাছ থেকে ফুল গুলো ঝড়ে পড়ছে_
রুমকি রাফসান এর দিকে মুখ ঘুরিয়ে তাকালো..
রাফসান আবার ও একি কাণ্ড করলো_
রুমকি ,রাফসানকে জরিয়ে ধরলো খুশিতে..
আর বলল,আই লাভ ইউ…
রাফসান ও দুহাতে পরম আবেশে ওকে বুকে টেনে নিয়ে বলল,লাভ ইউ টু পিচ্চি বউ আমার_দুজনের মুখে তৃপ্তির হাসি_
.
.
চলবে………..♥♥