জোর করে বিয়ে পার্টঃ ৬

0
1674

জোর_করে_বিয়ে
পার্টঃ ৬
লেখকঃ সিয়াম হোসেন

সিয়াম সেখান থেকে মন খারাপ করে নিজের বাসায় চলে আসে ।
-কিরে তোর মন খারাম কেনো । (মা)
-এমনি ভালো লাগছে না (সিয়াম)
নিজের রুমে গিয়ে দরজা বন্ধ করে দিলো । আচ্ছা সানজিদাকি আমাকে সত্যি পছন্দ করে না । এতোদিন ভালো হয়েই তো ওর সাথে কথা বলেছি কিন্তু তারপরও কেনো ও আমাকে দূরে ঠেলে দিচ্ছে । ঠিক আছে ভালোভাবে যখন মানে নি তখন দরকার হয় জোর করেই করবো । এতে সানজোদার ইচ্ছা থাক বা না থাক ।
-আম্মু আব্বু কোথায় তোমরা । (সিয়াম)
-কিরে কি হয়েছে । (বাবা)
-আব্বু আমি বিয়ে করবো । (সিয়াম)
-বিয়ে কিন্তু কাকে । (বাবা)
-আমাদের ভার্সিটিতেই পরে । (সিয়াম)
-ঠিক আছে মেয়েটা কে আর ওর বাবা মা কোথায় থাকে । (বাবা)
-তারা গ্রামে থাকেন এখানে ওর এক বান্ধবীর মামা আছে তার বাসায় থাকে । (সিয়াম)
-আচ্ছা ভেবে দেখছি যা । (বাবা)
-হুমম দেখো যদি রাজি না হয় তাহলে কিন্তু আমি জোর করে তুলে নিয়ে এসে বিয়ে করবো মনে রেখো । (সিয়াম)
এটা বলেই ‌নিজের রুমে চলে গেলো ।

অপরদিকে নিলয় ভাবছে আজকে বাবা কে সানজিদার কথা বলতে হবে না হলে হয়তো সিয়াম কিছু একটা করে ফেলতে পারে ।

-আব্বু তোমাকে একটা কথা বলার ছিলো । (নিলয়)
-হুমম কি কথা । (নিলয়ের বাবা)
-আসলে আব্বু আমি একটা মেয়েকে পছন্দ করি আর তাকেই বিয়ে করতে চাই‌। (নিলয়)
-কি
-সত্যি আব্বু । (নিলয়)
-মেয়েটা কি তোকে পছন্দ করে । (বাবা)
-জানি না তবে আমি তাকেই বিয়ে করবো । (নিলয়)
-ঠিক আছে বাসা কোথায় মেয়েটার । (বাবা)
-ওর বাসা ফরিদপুর আর ও এখানে ওর এক বান্ধবীর মামার বাসায় থাকে । ওর বান্ধবীর মামা কে আমি চিনি । (নিলয়)
-কে সে । (বাবা)
-তোমার অফিসের ম্যানেজার । (নিলয়)
-ঠিক আছে আমি ওর সাথে কালকে কথা বলে দেখছি । (বাবা)
-ধন্যবাদ বাবা তুমি অনেক ভালো । (নিলয়)
-হুমম হতে তো হবেই এই‌ প্রথম নিজের থেকে কিছু একটা চাইলি আর সেটা মানা করবো । তাছাড়া একটা বউ মাও দরকার নাতি নাতনিদের মূখ তো দেখতে হবে তাই না । এখন যা নিজের রুমে গিয়ে ফ্রেশ হয়ে নে । (বাবা)
নিলয় নিজের রুমে চলে গেলো ।
নিলয়ের বাবা পরের দিন অফিসে গিয়ে মিমের মামাকে নিজের রুমে ডাকলেন ।

-স্যার আমাকে ডেকেছেন । (মিমের বাবা)
-হুমম ভিতরে আসো । (নিলয়ের বাবা)
-জ্বি স্যার বলুন । (মিমের মামা)
-দাড়িয়ে আছো কেনো বসো । (নিলয়ের বাবা)
মিমের বাবা বসে পড়লেন ।
-মিঃ রাজিব তোমাকে আমার কিছু কথা বলারছিলো । (নিলয়ের বাবা)
-জ্বি স্যার বলুন । (মিমের মামা)
-আসলে আমার ছেলে একটা মেয়েকে পছন্দ করেছে এবং তাকেই বিয়ে করতে চায় । (নিলয়ের বাবা)
-এটা তো ভালো কথা এখানে আমি কি করতে পারি স্যার । (মিমের মামা)
-মেয়েটা হলো তোমার যে ভাগনী আছে ওর বান্ধবী সানজিদা যে কিনা তোমাদের বাসাতে থাকে সে । (নিলয়ের বাবা)
-কিন্তু স্যার এটা কি করে হয় । ওর মা বাবা থাকে গ্রামে তারা কি রাজি হবে তাছাড়া সানজিদা তো এখানে পড়তে এসেছে আমার মনে হয় না ওর পড়ালেখা শেষ না হওয়া পর্যন্ত তারা রাজি হবে । (মিমের মামা)
– যে ভাবেই হোক রাজি করাও দরকার পড়লে বিয়ের পরেও পড়তে পারবে । (নিলয়ের বাবা)
-কিন্তু স্যার । (মিমের মামা)
-কোনো কিন্তু নয় যদি তুমি এটা না করতে পারো তাহলে তোমাকে চাকরি থেকে বের করে দেওয়া হবে । (নিলয়ের বাবা)
মিমের মামা কি বলবে যদি সে না করে তাহলে তাকে চাকরি থেকে বের করে দেওয়া হবে । আবার ও দিকে যদি তারা রাজি না হয় তখন । এক প্রকার টেনশনের মধ্য আছে । নানা চিন্তা মাথায় নিয়ে বাসায় চলে এলো ।
নিজের রুমে গিয়ে সানজিদার বাবার কাছে ফোন করে অনেকক্ষন ধরে বোঝানোর পর তাদের ঢাকায় আসতে বললেন । সানজিদার বাবা ও মা দুজনেই ঢাকার উদ্দেশ্য বেড়িয়ে পড়লেন ।
সানজিদার যে বাবা মা আসছে অথচ সানজিদা এর কিছুই জানে না ।
সানজিদার বাবা মা ঢাকায় পৌছে গেলে মিমের মামা এসে তাদেরকে বাসায় নিয়ে যান ।
-আব্বু আম্মু তোমরা এখানে । (সানজিদা অবাক হয়ে)
-হুমম তোকে দেখতে মন চাচ্ছিলো তাই চলে এলাম । (বাবা)
-কিন্তু আসার আগে তো আমাকে বলতে পারতে । (সানজিদা)
-এটা তোর জন্য সারপ্রাইজ তবে আরও‌ একটা সারপ্রাইজ আছে । (বাবা)
-কি (আগ্রহ নিয়ে)
-এখন না একটু পর এখন তুই রুমে যা আমি একটু মিমের মামার সাথে কথা বলে আসছি । (বাবা)
-আচ্ছা ।
সানজিদা মিমের রুমে চলে গেলো ।
আর ওর বাবা মা আর মিমের মামা মামি তাদের রুমে গিয়ে বসলেন ।
-তো রাজিব সাহেব কি যেনো বলছিলেন । (সানজিদার বাবা)
-আপনাকে তো‌ আর নতুন করে কিছু বলার নেই যা বলার তা তো ফোনেই বলে দিয়েছি । (মিমের মামা)
-বুঝলাম যদি সানজিদা রাজি না হয় । (বাবা)
-কেনো হবে না আপনি ওকে বুঝিয়ে বলুন তাছাড়া তারা তো আপনার মেয়েকে সব সুযোগই দিচ্ছে । (মিমের মামা)
-এরকম তো অনেকেই বলে কিন্তু বিয়ের পরে কেউ দিতে চায় না । (সানজিদা বাবা)
-আমার স্যার এমন মানুষ না তাছাড়া উনার মন মানসিকতাও অনেক ভালো । (মিমের মামা)
-আচ্ছা আমি সানজিদার সাথে কথা বলে দেখছি । (সানজিদার বাবা)
সানজিদার রুমের দিকে গেলো ।
-আসতে পারি । (সানজিদার বাবা)
-ওহ্ বাবা আসো । (সানজিদা)
-আচ্ছা মা তোকে না বললাম আর একটা সারপ্রাইজ আছে তোর জন্য । (বাবা)
-হুমমম কই দাও । (সানজিদা)
-দেখ আমি আর তোর মা সব সময় তোর মঙ্গল চেয়েছি ছোট থেকে আজ পর্যন্ত যা চেয়েছিস দেওয়ার চেষ্টা করেছি । (বাবা)
-হঠাৎ এমন কথা বলছো কেনো । (সানজিদা)
-আসলে সারপ্রাইজটা এমনই । (বাবা)
-মানে ।
-মানে আমরা তোর বিয়ে ঠিক করেছি । অবশ্য মিমের মামায় আমাকে বলেছে ছেলেটা অনেক ভালো (বাবা)
-মানে কি বলছো এই সব আমি এখন বিয়ে করতে পারবো না আমি পড়তে চাই‌ আরও । (সানজিদা)
-ওরা তোকে বিয়ের পরেও পড়তে দিবে বলেছে । ছেলেটার কি নাম যেনো ও হ্যা ওর নাম হচ্ছে নিলয় তোর সাথেই নাকি পরে । দেখ আমি অনেক ভেবে চিন্তে সিদ্ধান্তটা নিয়ে । আমার তোর প্রতি বিশ্বাস আছে যে তুই আমার কথা ফেলতে পারবি না এখন যদি তুই না করেদিস তাহলে কোনো সমস্যা নেই । (বাবা)

সানজিদা কোনো কথা না বলে চুপ করে আছে । মেয়ে কোনো কথা বলছে না দেখে সানজিদার বাবা চলে যেতে লাগলো ।
-বাবা । (পিছন থেকে সানজিদা)
তোমরা যখন ভেবেছো যে আমার ভালোর জন্য তাহলে আমি রাজি । আর জানি তোমরা আমার জন্য কখনও খারাপ কিছু করবে না ।
সানজিদার বাবা কথাটা শুনে হাসি মাখা মুখ নিয়ে চলে গেলেন । মিমের মামার কাছে কথাটা বলতেই তিনি নিলয়ের বাবার কাছে ফোন করে বলে দিলো এবং তারা ঠিক করলেন আগামী সপ্তাহে ওদের বিয়ে ।

এদিকে সিয়ামের মামা সকালে উঠেই মিমের মামার বাসায় চলে গেলো ।

-আসসালামু ওয়ালাইকুম আপনি কি সানজিদার বান্ধবীর মামা । (সিয়ামের বাবা)
-না আমি সানজিদার বাবা কিন্তু আপনি কে ।
-ওহ্ আমি সিয়ামের বাবা ।
-কোন সিয়াম । (সানজিদার বাবা)
-আপনার মেয়ের সাথেই । (সিয়ামের বাবা)
-ওহ্ আপনি কি মিমের মামার সাথে কথা বলবেন আমি ডেকে দিচ্ছি । (সানজিদার বাবা)
-না না আপনিই যখন আছেন তাহলে আপনাকেই বলি । (সিয়ামের বাবা)
-কি
-আসলে আমার ছেলে আপনার মেয়েকে পছন্দ করে এবং ওকে বিয়ে করতে চাই আপনি কি দিবেন আপনার মেয়েকে আমাদের বাড়ি আমার ছেলের বউ করে নিয়ে যাওয়ার । (সিয়ামের বাবা)
-কিন্তু আমার মেয়ের তো বিয়ে ঠিক হয়ে গিয়েছে । (সানজিদার বাবা)
-মানে কি বলছেন ।
-হুমম কালকেই ওর বিয়ে ঠিক করতে ঢাকায় এসেছি । (সানজিদার বাবা)
-ওহ্
সিয়ামের বাবা মন খারাপ করে চলে আসলেন । চিন্তা করলেন যথা সম্ভবত সিয়ামের কাছ থেকে সানজিদার বিয়ের কথা গোপন করে রাখার নাহলে আবার কোনো অঘটন করে ফেলতে পারে ।

চলবে…..