জোড় করে বিয়ে পার্টঃ ১১

0
1579

জোর_করে_বিয়ে
পার্টঃ ১১
লেখকঃ সিয়াম হোসেন

সানজিদা রাগী ভাব নিয়ে সিয়ামের পাশে এসে বসলো ।
-সুমাইয়াকে কি বলছেন(সানজিদা)
-কোন সুমাইয়া (সিয়াম)
-এখন নাটক করা হচ্ছে তাই না কি বলছেন ওকে (সানজিদা )
-ক ক কই আমি তো কিছু বলিনি (সিয়াম)
-কিছু বলেন নি তাইনা আমি কিন্তু সব শুনেছি (সানজিদা)
-শুনেইছো যখন তাহলে আবার জিজ্ঞাসা করছো কেনো (সিয়াম)
-আপনি কি বলেছেন আমি ডাইনাসর তাইনা (সানজিদা)
-ভুল কি বলছি (সিয়াম)
-কি এখন আবার বলছেন ভুল কি বলছি এর জন্য আপনাকে শাস্তি পেতে হবে আর শাস্তিটা হলো আজকে রাতে আপনার খাওয়া বন্ধ (সানজিদা)
-এ্যা
-এ্যা নয় হ্যা আর এখন এখানে চুপচাপ বসে থাকুন বেশি কথা বললে…..(সানজিদা)
-হুমম বুঝছি আর বলতে হবে না । (সিয়াম)

সন্ধ্যার পর আবার সুমাইয়া এসে হাজির ।
-কি দুলাভাই কি করেন (সুমাইয়া)
সিয়াম কোনো কথা না বলে চুপ করে বসে আছে
-কি হলো কথা বলবেন না । (সুমাইয়া)
-তখন তোমার সাথে কথা বলে রাতের খাবার নষ্ট হয়ে গেছে এখন আর কথা বলতে চাইনা কে জানে ঘর থেকেই না বের করে দেয় (সিয়াম)
-হি হি এতো ভয় পান সানজিদাকে (সুমাইয়া)
সিয়াম আর কিছুই বললো না কিছুক্ষন বাদে সানজিদা হাজির
-কিরে সানজিদা দুলাভাইকে কি করেছিস যে এতো ভয় পায় তোকে আমাকেও বলনা যাতে বিয়ের পরে আমার স্বামী কেউ দুলাভাইয়ের মতো করে রাখতে পারি । (সুমাইয়া)
-কেনো ও কি তোকে এখন কিছু বলেছে (সানজিদা)
-আরে ভয়ে তো কথাই বলছে না দেখছিস না কিভাবে চুপ করে বসে আছে । (সুমাইয়া)
-হুমম আচ্ছা তুই‌ এখন যা (সানজিদা)
-কেনো রে দুলাভাইয়ের ক্লাস নিবি আমিও থাকি দেখি কিভাবে নিস (সুমাইয়া)
-তুই যাবি
-হুমম যাচ্ছি দুলাভাই ভালো থাকবেন (সুমাইয়া)
-হুমম আমার আর ভালো থাকা আল্লাহই জানে এখন কপালে কি আছে (সিয়াম মনে মনে)
সুমাইয়া চলে গেলো
রাতে সানজিদার মা বাবা খেতে বসেছে আর সানজিদা তাদের দুজনকে খাবার বেড়ে দিচ্ছে ।
-কিরে জামাই কোথায় ডাক দে (বাবা)
-হুমম তোমরা খেয়ে নাও তারপর ডাক দিচ্ছি । (সানজিদা)
-এটা কি করে হয় জামাইকে ডাক দে এক সাথেই খাই (বাবা)
-তোমার জামাই কি যেনো করছে ঘরে তোমরা খাও আমি তার জন্য খাবার নিয়ে যাচ্ছি (সানজিদা)
-ঠিক আছে।
সানজিদা একটা প্লেটে করে ভাত এবং তরকারি নিয়ে গেলো ।
-এই যে মিষ্টার কি করেন (সানজিদা)
সিয়াম দেখলো যে সানজিদার হাতে ভাতের প্লেট তার মানে এটা আমার জন্যই এনেছে ।
-তুমি কষ্ট করে ভাত আনতে গেলে কেনো আমাকে বলতে আমি নিজে গিয়ে নিয়ে‌ আসতাম । (সিয়াম)
-এ আইছে উনার জন্য ভাত আনতে যাবো আপনার শাস্তির কথা মনে নেই আর এটা আমি নিজের জন্য আনছি চুপ করে ওখানে বসে থাকুন (সানজিদা)
-এ্যা
-অবাক হবার দরকার নেই‌ এটাই আপনার শাস্তি আমাকে ডাইনাসর বলার জন্য । (সানজিদা)
সানজিদা সিয়ামের সামনে বসে খাচ্ছে‌ আর সিয়াম হা করে থাকিয়ে আছে অসহায়ের মতো
-ওমন হা করে তাকিয়ে আছেন কেনো মশা ডুকে যাবে । (সানজিদা)
সিয়াম নিজের মুখটা বন্ধ করে নিলো
-এদিকে নজর দিবেননা বলা যায় না যদি পেট খারাপ হয়ে যায় । (সানজিদা)
সিয়াম অন্যদিক ঘুরে বসলো আর সানজিদা মুচকি মুচকি হাসছে । তারপর সানজিদা খাবার খেয়ে প্লেট গুলা পরিষ্কার করতে চলে গেলো ।
এদিকে সিয়ামের পেটের মধ্য ইঁদুর দৌড়াচ্ছে ক্ষুদা লাগছে কিন্তু কি করবে খেতে পারছে না কেনো যে তখন ডাইনাসর বলতে গেলো । কিছুক্ষন বাদে সানজিদা রুমে আসলো ।‌
-উঠুন বিছানা পরিষ্কার করবো । (সানজিদা)
সিয়াম উঠে গেলো ।
-আজকে তো তুমি আর আমি এক সাথে থাকবো কারণ এখানে কোনো সোফা নেই আহ্ মনে হয় কি সব সময় শ্বশুর বাড়ি থেকে যায় । (সিয়াম)
-জেগে জেগে‌ স্বপ্ন দেখা বাদ দিন আমি একা থাকবো (সানজিদা)
-তুমি একা থাকবে মানে তাহলে আমি কোথায় থাকবো (সিয়াম)
-কেনো নিচে (সানজিদা)
-কি আমি নিচে থাকবো পারবো না (সিয়াম)
-না পারলে দাড়িয়ে থাকুন (সানজিদা)
-নিচে আমার এলার্জি আছে আমি পারবো না তাছাড়া তোমার সাথে থাকলে সমস্যা কি । (সিয়াম)
-সমস্যা আছে নিচে থাকলে থাকুন নাহলে দাড়িয়ে থাকেন আমি শুয়ে পড়লাম । (সানজিদা বলেই অন্য পাশ হয়ে শুয়ে পড়লো)
সিয়ামেরও কিছু করার নেই নিচে বিছানা পেতে শুয়ে পড়লো কিন্তু ক্ষুদার জন্য তেমন একটা ঘুম আসছে না এপাশ অপাশ করতে করতে যে কখন ঘুমিয়ে পড়েছে জানে না ।

সকালে সানজিদার মা এসেছে ডাকতে ।

-কিরে সানজিদা ওঠ সকাল হয়েছে তো । (মা)
-হুমম আসছি (সানজিদা)
সানজিদা উঠে দেখে যে সিয়াম নিচে শুয়ে আছে অজান্তে মুখে হাসি ফুটে উঠলো ।
-আম্মু তো‌ এইমাত্র ডেকে গেলো আর সিয়াম এখানে শুয়ে আছে যদি এসে দেখে যে তার জামাই নিচে শুয়ে আছে না জানি কি ভাববে । (মনে মনে)
-এই উঠেন(সানজিদা)
-উমম একটু পর । (সিয়াম)
-না এখনই উঠুন যান গিয়ে বিছানায় শুয়ে পড়ুন । (সানজিদা)
সিয়াম ফালদে উঠলো
-বাহ এখন কি মনে করে বিছানায় শুতে বলছো (সিয়াম)
-এমনি যান (সানজিদা)
-না তুমি এমনি কোনো কাজ করো না এর পিছনে নিশ্চয় কোনো কারণ আছে আমি বিছানায় যাবো না (সিয়াম)
-কি হলো‌ উঠেছিস (সানজিদার মা বাইরে থেকে)
-হ্যা মা আসছি ।(সানজিদা)
-ও তার মানে এই বেপার আমি তো‌ এখন বিছানায় যাবো না (সিয়াম)
-প্লিজ বিছানায় যান মা দেখলে খারাপ ভাববে (সানজিদা)
-ভাবুক তাও আমি বিছানায় যাবো না আমার বিছানায় এলার্জি আছে । (সিয়াম)
-রাতে বললেন নিচে শুলে এলার্জি এখন বলছেন বিছানায় শুলে‌ এলার্জি (সানজিদা)
-আসলে‌ আমার এলার্জিটা খুব দুষ্টু কখন কোথায় যায় ঠিক থাকে না (সিয়াম)
-প্লিজ বিছানায় যান (সানজিদা)
-বললাম তো‌ যাবো না শ্বাশুরি এসে দেখুক তার জামাইয়ের উপর কেমন অবিচার হয় । (সিয়াম)
-আপনি যাবেন কিনা (সানজিদা ঝাড়ি মেরে)
-আপনার ঝাড়ি তে কোনো কাজ হবে না‌ আমি এখানেই থাকবো (সিয়াম)
-প্লিজ যান
-ঠিক আছে এতো করে যখন বলছো যেতে পারি তবে একটা শর্ত আছে (সিয়াম)
-কি
-আমাকে একটা কিস করতে হবে (সিয়াম)
-কি কখনই না (সানজিদা)
-ঠিক‌ আছে তাহলে‌ আমিও যাচ্ছি না (সিয়াম)
-ঠিক আছে দিচ্ছি তারপরেই কিন্তু উঠে যাবেন (সানজিদা)
-সেটা আর বলতে (সিয়াম)
-উম্মা এবার যান (সানজিদা)
-আহ্ কি নরম ঠোট যদি আর একটা দাও (সিয়াম)
-যাবেন
-হুমম যাচ্ছি সব সময় শুধু ঝাড়ি মারে আমি ভয় পায়না বুঝি (সিয়াম)
বিছানায় গিয়ে শুয়ে পড়লো । আর সানজিদা তার মায়ের কাছে গেলো ।

-কিরে এতো দেড়ি হলো কেনো (মা)
-ওই তোমার জামাইয়ের জন্য (সানজিদা)
-কেনো রে জামাই আবার কি করলো (মা)
-কি করবে সকালে উঠতে চায় না তাকে উঠাতে গিয়ে দেড়ি হয়ে গেছে (সানজিদা)
-ওহ্ ।

তারপর সিয়াম ও সানজিদা আরো দুই দিন সেখানে থেকে ঢাকায় চলে আসলো‌।

-আচ্ছা সানজিদা একটা কথা জিজ্ঞাসা করি (সিয়াম)
-কি
-তুমি কি এখনও আমাকে ভালোবাসতে পারো নি । (সিয়াম)
সানজিদা কিছু না বলে দাড়িয়ে আছে । কি বলবে আসলে সেও‌তো সিয়ামকে ভালোবেসে ফেলেছে কিন্তু প্রকাশ করছে না ।
-কি হলো বলো (সিয়াম)
-হঠাৎ এই‌ প্রশ্ন (সানজিদা)
-এমনি বলবা তো (সিয়াম)
-হুমম
-তাহলে কি আমি তোমাকে একটা কিস করতে পারি (সিয়াম)
-না
-কেনো তুমি‌ আমাকে ভালোবাসো না (সিয়াম)
-হ্যা তবে এখনও পুরোপুরি না (সানজিদা)
-ঠিক আছে তবে আস্তে করে একটা কিস করি (সিয়াম)
-না
-শুধু একটা
কথাটা বলেই সিয়াম সানজিদার হাতটা চেপে ধরলো । আর সানজিদা জোর খাটাচ্ছে যাতে সিয়াম কিস করতে না পারে । হাতা হাতি করতে করতে এক পর্যায়ে সানজিদা হাত ছাড়াতে গিয়ে সিয়ামের গালে থাপ্পর পরে যায় অথচ সানজিদা এটা ইচ্ছা করে দেয়নি ।
সিয়াম শুধু গালে হাত দিয়ে সানজিদার দিকে তাকিয়ে বাসা থেকে বেড়িয়ে গেলো ।
সিয়ামের এখন প্রচন্ড রাগ হচ্ছে ভাবছে সানজিদা এখনও তাকে ভালোবাসে না অথচ তার জন্যই এতো দিন ভালো হয়েছি শুধু একটা কিসই তো করতে চেয়েছি তাই বলে থাপ্পর মারবে না এটা মেনে নেওয়া যায় না । সিয়াম রেগে বন্ধুদের কাছে চলে গেলো ।

-কিরে সিয়াম কি হয়েছে তোর এমন দেখাচ্ছে কেনো । (আশিক)
-তো কেমন দেখাবে বল । (সিয়াম)
-কেনো কি হয়েছে (আশিক)
-আরে সানজিদার জন্য কি করিনি বল ওর জন্য সব কিছু বাদ দিয়েছি এমন কি তোদের সাথে আগের মতো‌ আড্ডাও দেইনা তারপরও ও আমাকে ভালোবাসে না । (সিয়াম)
-হঠাৎ করে তোর আবার কি হলো (আশিক)
-আরে শুধু মাত্র একটা কিস করতে চেয়েছিলাম তাই থাপ্পর মেরেছে । অনেক হয়েছে আর না অনেক সহ্য করেছি সহ্য করতে করতে সহ্যর সীমা অতিক্রম হয়েগেছে (সিয়াম)
-দেখ সিয়াম মাথা ঠান্ডা কর রাগ করিস না । আর এখন বাসায় গিয়ে ভাবির সাথে ভালো ভাবে কথা বল দেখবি সব ঠিক হয়ে যাবে । (আশিক)
-কিসের ঠিক হবে কিছুই ঠিক হবে না । জানিস বিয়ের পর একটা রাতও বিছানায় শুতে পারিনি এমনি ওদের বাড়ি গিয়ে আমাকে নিচেও শুতে হয়েছে । (সিয়াম)
-দেখ যা হবার হয়েছে এখন মাথা ঠান্ডা করে বাসায় যা । (আশিক)
-আমার এখন বাসায় যাওয়ার কোনো ইচ্ছাই নেই তোদের কাছে টাকা থাকলে দে আমার কাছে এখন নেই‌। (সিয়াম)
-কেনো কোথায় যাবি (আশিক)
-যেখানেই যায় দে । (সিয়াম)
আশিক নিজের পকেট থেকে টাকা বের করে সিয়ামকে দিলো আর সিয়াম টাকাটা নিয়ে কোথায় গেলো‌ ওই ভালো জানে ।

চলবে…..