তোমার জন্য ফিরে আসা পার্ট-০৯

0
732

#তোমার_জন্য_ফিরে_আসা
#লেখা_ইভানা
#পার্ট_৯

“সুন্দরবনে এতো সুন্দর রমনী যেনো আসমান থেকে জমিনে পরী নেমে এসেছে ”
পাশ থেকে আরেক জন পুরুষলোক বললো,
“সুন্দরীকে হাত ছাড়া করা যাবে না, বোধ হয় পথ হারিয়ে ফেলেছে তাই আমাদেরও উচিত ওকে আমাদের আস্তানায় নিয়ে যাওয়া ”
“হাহাহাহ্ চল তুলে নিয়ে যাই ”

ইভার পাশে একটা গাছের ডাল পেলো সেটা হাতে নিয়ে বললো,
“খবরদার আমার কাছে কেউ আসবেন না তাহলে মেরে ফেলবো ”
“এই মেয়ে বলে কি, আমার চার জন আছি আর তুমি একা। আমাদের সাথে পুটিমাছের প্রান নিয়ে লড়াই করতে পারবে না ”
“আমার পুটিমাছের প্রান কি না সেটা তোদের দেখাচ্ছি দাঁড়া ” বলে ইভা চিৎকার করে বলতে লাগলো
“আলিব আপনি কোথায়? প্লিজ আমাকে বাঁচান ”

ইভার কথা শুনে আলিব সাথে সাথে চলে এসে। ইভা আলিবের পিছনে গিয়ে দাঁড়ায়। আলিব ইভার হাতে লোহার রট দিয়ে বললো,
“যাও শাস্তি দেও ”
“আমি পারবো না আপনি দেন ”

খারাপ লোকের মধ্যে একজন বললো,
“এই মেয়ে পাগল নাকি একা একা কথা বলে ”
“পাগল হোক আর যাই হোক আমাদের কাজ হলেই হলো” লোকগুলো মধ্যে একজন ইভার ওড়না টেনে ধরবে সেই সময় সোজা হয়ে গেলো নড়তে পারলো না।
ইভা এবার সাহস করে ইচ্ছে মতো খারাপ লোকগুলোকে একের পর এক লোহার রড দিয়ে আঘাত করলো। বেশ হাঁপিয়ে গেছে, ওদের আঘাত করা ছেড়ে দিলো। আলিব ওদের স্বাভাবিক করলো, ওরা ব্যাথায় মাটিতে লুটিয়ে পড়ে।

আলিব রাগ করে হেঁটে চলছে, ইভা পিছু পিছু হাঁটছে আর বলছে,
“আপনি আমাকে আবার একা ফেলে রেখে চলে যাচ্ছেন কেনো? একটু আগেই তো বিপদে পরেছিলাম ”
আলিব কোনো কথা বলছে না হেঁটে যাচ্ছে। ইভা দৌঁড়ে গিয়ে আলিবের সামনে দাঁড়ালো। আলিব মুখ ঘুরিয়ে নিলো। ইভা বললো,
“আপনার সমস্যা কি হ্যাঁ, কথা বলছেন না ”
“তোমার সাথে আমি কেনো কথা বলবো? তুমি তো নিজে নিজে চলতে পারো, ঘুরতে পারো ”
“আপনি তো আমাকে ফেলে রেখে চলে গিয়েছেন ”
“বাজে বক বক খুব ভালো করতে পারো ”
“বাজে বকবক কি করেছি? ”
“নিজে প্রকৃতি দেখে উধাও হয়ে গেছো আবার আমার দোষ দেও যে আমি তোমাকে ফেলে রেখে চলে গেছি। মেয়েদের সব জায়গায় একা একা চলাফেরা করা যায় না। আজকে যদি আমি না থাকতাম তাহলে কতো ক্ষতি হতো বুঝতে পারছো। তোমাকে বাসায়ও দেখি নিজের মন মতো চলো, কারো কথার কোনো গুরুত্ব দেও না। আর আমাকে এতো বিশ্বাস করো কেনো? তোমার কোনো ধারণা আছে আমি কি কি করতে পারি? ধ্যাত্ আমার সাথে কথা বলো না তো ”
“আপনি রাগ করবেন না। আমার ভুল হয়ে গেছে ”
“আচ্ছা এবারের মতো মাফ করে দিচ্ছি যাও ”
“আপনাকে বিশ্বাস কেনো করি এটা কেনো বললেন “?
” কারন তোমার মধ্যে খারাপ কিছু দেখলে তোমার ক্ষতি করতে আমার সময় লাগবে না তাই ”
“ওহ্ তাই কিন্তু আমি তো খারাপ কিছু করবো না, আমি যে এতোগুলা ভালো”
“তুমি একটুও ভালো না, বড়দের কথা গুরুত্ব দেও না ”
“দেই তো যদি আমরা মন মতো হয় তাহলে ”
“এসব চলবে না ”
“হুম, এখন চলেন তো ভালো করে ঘুরে আসি ”

আলিব এবার ইভার হাতে ধরে সুন্দরবন ভালো করে ঘুরিয়ে দেখালো। সুন্দরবনের নদীর ঘাটে খুব সুন্দর অদ্ভুত রকমের ময়ূর পেখম নৌকা রাখা। নৌকাটা দেখে ইভা মনে মনে বলছে “আলিবকে বলবো এরকম নৌকায় উঠবো কিন্তু না থাক এতো চাওয়া ঠিক হবে না ”
আলিব ইভার সামনে বেলীফুলের মালা ঝুলিয়ে বলে,
“আমার পক্ষ্য থেকে মহারানী জন্য ছোট উপহার ”
“ধন্যবাদ রাজামশাইয়, এবার চলুন বাসায় ফিরতে হবে ”
“এখনই বাসায় যাবে তাহলে আমি নৌকা এনেছি কেনো?”
“সত্যি এই নৌকা আপনি এনেছেন? ”
“হুম শুধু তোমার জন্য ”

আশেপাশের লোকজন তাকিয়ে আছে এতো সুন্দর নৌকা দেখে। কেউ বলছে কোনো জমিদার পরিবারের মেয়ে এসেছে। ইভা একা একা কথা বলে এটা লক্ষ্য করে কেউ বলছে মেয়েটার মাথায় সমস্যা আছে।

ইভা নৌকায় উঠলো, আলিব বৈঠা বাইছে। ইভা মন চাইছে যুগ যুগ ধরে আলিবের সাথে থাকতে। আলিবের মধ্যে অদ্ভুত মায়া ভালো লাগা আছে তাই ইভা বলে ফেললো,
“আপনি কি সবার সামনে দৃশ্য হয়ে, সাধারণ ভাবে বাঁচতে পারেন না? আপনার মধ্যে কেমন জানো মায়া আছে আমার খুব ভালো লাগে ”
“তোমার জন্য ফিরে আসা সেহেতু তোমার ভালো লাগা যুগ যুগ ধরে রাখবো ”
–বাবা রে মনে মনে কথা বললেও উনি শুনতে পায় আজকাল দেখি মনে মনে কথা বলা যাবে না। (ইভা মনে মনে বলছে)
“এই মহারানী মনের কথা আমার কাছে কিছু প্রকাশ করলেও পারো ”
“প্রকাশ করার আগেই তো আপনি জেনে যান ”
“হাহাহাহ্ আচ্ছা বেশ জানবো না ”
“জানতে বারণ করি নি ”
“তুমি যে কি চাও নিজেও জানো না এই বলো মনে মনে বলবে না আর এই বলো বারণ করি নি ”
“হয়েছে থামেন এবার বাসায় চলুন ”
“যথা আগ্গা মহারানী ”

ইভা বাসায় এসেছে। আজকে ওর মন অনেক বেশি ভালো, আলিব সুন্দর একটা দিন উপহার দিলো। বার বার মনে পড়ছে আলিবের সাথে ঘোরার সময়টা, কতো ভালো হতো যদি ও সারাজীবন থাকতো।

ইভার মা রুমে এসে বললো,
-রেডি হয়ে নে, বিকেলে নানু বাড়ি যাবো।
-হঠাৎ নানু বাড়ি যাবে কেনো?
-রিয়াদের বিয়ে।
-রিয়াদ ভাইয়ার বিয়ে কি মজা, লিমা ওরা আজকে যাবে?
-ওরা সকালে রওনা দিছে। তোর বাবা অফিসের কাজ শেষ করে ছুটি নিয়ে আসবে তাই আমাদের বিকেলে যাওয়া।
-আচ্ছা ঠিক আছে আমি গোঁজ গাঁজ করে রাখছি।

বিকেলে ইভার নানু বাড়ি যাওয়ার উদ্দেশ্য রওনা দিলো। গাড়ি থেকে নেমে দশ মিনিটের মতো হাঁটার পথ। ভ্যান গাড়ি চলে তাও খুব কম, পথে একটা ভ্যান পাওয়া গেছে কিন্তু দুজন যাত্রী আছে আর দুজন বসতে পারবে তাই ইভার দাদি আর ওর ছোট ভাইকে ভ্যান গাড়িতে উঠিয়ে দিলো। ইভার বাবা, মা, ইভা, ওর বোন হেটে যাচ্ছে। একজন লোক ওদের দেখে এগিয়ে আসে এসে বলে,

-এই মেয়ে তুমি এখানে কেনো? একশো বছর পরে সে তোমার জন্য ফিরে এসেছে। তাকে বাঁচাতে হলে কখনো বট গাছের বাড়ির আশেপাশে যাওয়া চলবে না।
ইভা বাবা বললো,
-আপনি এসব কি বলছেন? কে ফিরে এসেছে?
-তোমার মেয়ে নিরাপদ নয় তাকে সাবধানে রেখো।
-আপনার কথা ঠিক বুঝলাম না (ইভার বাবা)

লোকটা কথার উওর না দিয়ে চলে গেলো। ইভার মা বেশ ভয় পেয়েছে এরকম কথা শুনে। বট গাছের বাড়ির তো অনেক দূরে তাহলে নিরাপদ নয় কেনো সেটা বুঝলো না। ইভা নানু বাড়ি যাওয়ার পরে আলিবের সাথে কথা হয় নি সবার সাথে আড্ডায় মেতে আছে।
রাতে সেই লোকটা আবার এসেছে,,,,,,

চলবে,,,,,,