ভালোবাসি তোমাকে পর্ব :৫

0
988

গল্প ::::::ভালোবাসি তোমাকে ?❤️
পর্ব :৫
Writer ::Sajna Akther

বাসর ঘরে স্বামীর এমন রূপ আমি মেনে নিতে পারছি না লোকটা তো ভালোবেসে আমায় বিয়ে করেছে তাহলে আমার সাথে এমনটা কেনো করছে
.
রোশান ::::::কি হলো কথা কানে যায় না ? এই রুমে তুমি থাকতে পারবে না যাও বারান্দায় গিয়ে ঘুমাও,, তোমার সাথে এক রুমে থাকা আমার পক্ষে সম্ভব না (রেগে)
.
আমি ::::বাহ কাল পর্যন্ত যে মানুষের আমার প্রতি প্রেম উতলে পড়ছিল আর বিয়ের পর সেই আসল মুখোশ দেখিয়ে দিলেন,, শুনুন আমারো আপনার মতো একটা লোকের সাথে এক রুমে থাকার কোনো ইচ্ছাই নেই যওসব (বলেই আমি বিছানা থেকে উঠে পড়ি কিন্তু হাতে একটা বালিশ নেই বারান্দার দিকে পা টা বাড়াতেই রোশান আমাকে টেনে ওর বুকের সাথে মিশিয়ে নেয়)
.
আমি :::::কি হলো আমিতো চলেই যাচ্ছি এভাবে জড়িয়ে ধরলেন কেনো (একটা ধাক্কা দিয়ে,,, একদম আমার কাছে আসার চেষ্টা করবেন না ?
.
আবার আমার হাত ধরে টেনে ওনার সাথে মিশিয়ে নিলেন আমি ছড়ানোর চেষ্টা করছি
.
রোশান :::::ভালোবাসি তোমাকে ? কিভাবে বলো আমার এই মিষ্টি বউটিকে বারান্দায় শুতে দেই,, তোমার সাথে সারাজীবন থাকবো বলেই তো এতো কিছু ,,একটু আগে তো একটু ভিলেন রুপি এক্টিং করছিলাম (একটা চোখ টিপ দিয়ে)
.
ওমা তাই নাকি একটু আগে ওনি ভিলেন রুপি এক্টিং করছিলেন তাহলে তো এবার আমার পালা এমন এক্টিং করবো যে আজ রাতটাই ওনার বৃথা যাবে (বাঁকা হেসে মনে মনে)
.
রোশান :::::আজ না আমাদের বাসর রাত আসো ময়না পাখি তোমাকে একটু আদর করে দেই (ডেভিল হাসি দিয়ে)
.
দ্বারা বেটা বজ্জাত (দাঁতে দাঁত চেপে) আমার পা দিয়ে খুব জুড়েই ওনার পায়ে পারা দেই মুহূর্তেই আমাকে ছেড়ে আহ বলে আর্তনাদ করেন আমি ছাড়া পেয়ে এক দৌড়ে বারান্দায় গিয়ে দরজা আটকে দেই,, আমি এমন একটা কান্ড করবো নিশ্চয় ওনি ভাবতে পারছেন না কিছুক্ষণ যাওয়ার পর আমাকে ডাক দেওয়া শুরু করলেন
.
রোশান :::::আমার লক্ষী,, মিষ্টি,, সোনা বউটা দরজাটা খোলো নাগো,, আমি না তোমার একটা মাত্র আদরের স্বামী তাহলে আমার সাথে এমনটা করছো কেনো বৌওও,, দেখো এই বাসর রাত নিয়ে মেয়েদের কতো স্বপ্ন থাকে তেমনি আমারো আছে, আমার এই স্বপ্ন ভেঙো না তুমি,, (করুন কন্ঠে)
.
এবার আর আমি হাসি থামাতে পারিনি একা একাই হেসেই চলেছি কথার কি ছিড়ি,, মেয়েদের স্বপ্নের সাথে ওনার সম্পর্ক কি ?
.
.
রাত প্রায় একটা বাজে আমি বারান্দায় এখনো জেগে আছি ধীরে ধীরে দরজা একটু ফাঁকা করে দেখি বজ্জাতটা নাক টেনে ঘুমাচ্ছে,,, এতক্ষণ তো এই সুযোগের অপেক্ষায় ছিলাম,,, ভাবতেই কেমন আনন্দ হতে লাগলো
পা টা খুব ধীরে ধীরেই ওয়াশরুমের দিকে যাচ্ছে তারপর অর্ধেক বালতি পানি এনে তাতে তিন বোতল ফ্রিজ থেকে জল মিশিয়ে এনে ওনার সারা গায়ে ডেলে দেই,,, কিছু বুঝে ওঠার আগেই আমি উধাও বারান্দায় এসেই ছিটকিনি লাগিয়ে দেই তারপর মন ভরে নিশ্বাস নিতে থাকি,, আমার সাথে ভিলেনি মশকরা তাই না এবার বুঝো বাচাধন ?এই শীতে বরফের জল কেমন লাগে
.
কিন্তু কোনো আওয়াজ আসছে না কেনো ওনার কি কিছু হয়েছে হঠাৎ একটা চিৎকার ভেসে আসলো
সাপ সাপ বউ আমাকে সাপ এসে মেরে ফেলল বাচাও
সত্যিই কি কোনো সাপ…. আমি কিছু না ভেবেই দরজা খুলেই রুমে ঢুকে পড়ি,,, একি রুম এতো অন্ধকার কেনো
আমি :::::এই যে শুনছেন কোথায় আপনি কক.. (আর কিছু বলতে পারছি না আমার মুখ চেপে ধরে ধাক্কা দিয়ে বিছানায় ফেলে দিয়ে আমার উপর শুয়ে পড়লেন কানের কাছে মুখ এনে বলতে লাগলেন )
.
রোশান :::::আমার বউটা এতো বোকা জানা ছিলো না,, এই দোতলাতে সাপ আসবে কোথা থেকে,, বরং জানো পেত্নি এসেছিলো আমার গায়ে জল ঢেলে চলে গেছে
.
ওমাগো বউ আমাকে মেরে ফেললো গোওও
.
আমাকে পেত্নি বলা তাই না ইচ্ছে মতো ওনাকে কিল,, চিমটি,, দিয়েই যাচ্ছি,,, আর কিভাবে পারলো লোকটা আমাকে বোকা বানাতে,, আমিও আস্ত একটা বোকা সাপ সাপ বললেই ছুটে চলে আসলাম.. কিন্তু এতো মেরেছি লোকটা একটুও আমাকে ছারলো না আরো শক্ত করে জড়িয়ে ধরলো শেষমেশ আমিও ক্লান্ত হয়ে উপর হয়ে ওনাকে জড়িয়ে ধরে শুয়ে পড়লাম
.
.
সকালে…..
.
ঘুম ঘুম চোখে নিজের দিকে তাকিয়ে দেখি আমি একদিকে আর আমার শাড়ি অন্যদিকে আর আমার পা একটা ওনার উপর আর একটা বিছানায়,, কি এক পরিস্থিতি হয়েছে আমার ভাগ্যিস লোকটা ঘুমে নাহলে নিশ্চয়ই আমার দিকে ডেব ডেব করে তাকিয়ে থাকতো ? কোনোরকম শাড়িটা পেছিয়ে ওয়াশরুমে চলে যাই ফ্রেশ হয়ে নিচে নেমে আসি,, মাথায় ঘোমটা দিয়ে
এসেই দেখি আমার ফুপি শাশুড়ি বসে কফি খাচ্ছেন
আমি ওনার কাছে গিয়ে সালাম করলাম
.
একটা অল্প বয়সী মেয়ে এসে আমার হাতে দু কাপ কফি এনে দিলো
.
ফুপি:::::আগে একটা তোমার শশুর কে দিয়ে আসো তারপর রোশানকে পরে এসে তুমি খাবে
.
আমিও চুপচাপ ওনার কথা মেনে চললাম শাশুড়ি মা নেই থাকলে নিশ্চয়ই ফুপির মতো আদেশ করতেন
প্রথমে বাবাকে গিয়ে কফি দিলাম বাবা রেডি হয়ে বসে ছিলেন হয়তো কলেজ যাচ্ছেন
আমি কফি দিয়ে সালাম করে চলে আসতে নিলে বাবা বলে উঠেন
বাবা :::::শুন মা কাল থেকে তুইও আমার সাথে কলেজ যাবি একটু পরেই তোর বই সব চলে আসবে (শান্ত গলায়)
.
আমি :::::বাবা আমি পড়াশুনা করবো (অবাক হয়ে)
.
বাবা :::::অবশ্যই,, এমন ব্রিলিয়েন্ট স্টুডেন্ট কে কি পড়াশুনা ছাড়া মানায় (মুচকি হেসে)
.
আমি ::::::thankyou স্যার সরি বাবা (খুশি মনে বাবার থেকে বিদায় নেই)
.
এখন বজ্জাতটাকে কফি দেওয়ার পালা কে জানে এখনও শুয়ে আছেন কিনা
.
রুমে ঢুকতেই ওনার উন্মাদ শরীরের উপর আমার চোখ পড়লো গোসল করে মাত্র এসেছেন শরীরে শুধু একটা টাওয়াল পেছানো,,, আমাকে দেখা মাত্রই ওনার দুই হাত দিয়ে বুক ঢেকে বলে উঠলেন
.
রোশান :::::ছিছি তোমার লজ্জা শরম বলতে দেখি কিছু নেই এভাবে দরজায় কনক না করেই চলে এলে এখন আমার কি হবে গোও আমারতো সব শেষ হয়ে গেলো (নেকা কান্না করে)
.
আমি ::::::এহহ ঢং দেখে বাচিনা দরজা লাগালেই তো পারতেন,,,, আর সে যাই হোক আপনার শরীর তো আর কোনো পরোনারী দেখেনি দেখলে আপনার বউই দেখেছে তাতে এতো ঢং করার কি আছে ?
.
রোশান :::::তাতো বটেই তুমি তো আমার একটা মাত্র আদরের বউ তাহলে এটা রেখে কি হবে এটাও নাহয় (বাঁকা হেসে)
.
আমি ::::::এই এই একদম এ কাজ করবেন না অসব্য ছেলে একটা (কোনোরকম দৌড়ে কফির কাপ রেখে ওখান থেকে চলে আসি বাইরে এসে বড় বড় নিশ্বাস নিতে থাকি,,, আমার নাকি লজ্জা শরম নেই,, বেটা খাটাশ বজ্জাত একটা আর একটু থাকলে তো নিশ্চিত টাওয়ালটা খুলে ফেলে দিতো,, কি বেলজ্জাহীন ছেলেরে বাবা ?)
.
.
.
ওনার ফুপি আজ বিকেলে চলে গেছেন কিন্তু একটা বিষয় আমি লক্ষ করলাম,, রোশান আর ফুপির মাঝে কোনো ঝামেলা আছে নাহলে ওরা ঠিকমতো কথা বলতো কিন্তু বিষয়টা কি হতে পারে ?
.
রুমে যেতেই আমার সামনে মোবাইল হাতে ওনি একটা ছবি দেখালেন সেটা দেখে রাগে নিজেকে আর আটকে রাখতে পারিনি কি করবো যখন ভেবে পাচ্ছি না ঠিক তখনি ওনার হাত থেকে মোবাইলটা নিয়েই এক আচারে ভেঙে ফেলি
.
আমি :::::এরকম অসব্যতামি করার মানে কি আর আপনি তো তখন শুয়ে ছিলেন এটা কখন তুললেন এরকম একটা মেয়ের ছবি তুলতে আপনার লজ্জা করেনি ?
.
রোশান :::::নিশ্চয়ই আমার লজ্জা করেনি কারণ আমিতো পরোনারীর ছবি তোলিনি আমার বউয়ের ছবি তুলেছি কি বলো ?
.
আমি :::::অসব্য একটা আমার কথা আমাকেই ফেরত দিচ্ছে ? এমন ছবি কেউ তোলে ঘুমের মধ্যে আমার ছবি তোলা তাও শাড়ি একজায়গায় আর আমি অন্যজায়গায় কি সাংঘাতিক ব্যাপার এমন একটা নিষ্পাপ ছেলে এমন করবে ভাবা যায় (মনে মনে)…
.
.
.
চলবে….