রাগি বউ ৮ম + ৯ম পর্ব

0
913

#রাগি_বউ
শামিয়া খানম জিনিয়া
৮ম_৯ম পর্ব

বাইরে গিয়ে দেখি মাহাদির পায়ে ব্যান্ডেজ করা। অচেনা লোক দুটি ছিল ওর বন্ধু। তারা বলল,
মাহাদি এক্সিডেন্ট করেছে, তবে খুব বেশি সমস্যা নেই। কয়েকদিন একটু কেয়ার করলেই ঠিক হয়ে যাবে ইনশাআল্লাহ……….!!!!
মাহাদির অসুস্থতা আমায় শান্ত করে দিয়েছিল। ওর কাছে ক্ষমা চেয়ে নিয়েছিলাম। খুলে বলি সাদিয়ার সব ঘটনা। ও আমাকে বলল,
” রাগি বউ কাল আমার একটা বন্ধু আসবে, আমায় দেখতে। তুমি সাদিয়ার ঘরে থেকো। তোমার পর্দা রক্ষা কোরো।”
“জি, ইনশাআল্লাহ। ”
পরের দিন সকাল ৯ঃ১৫ টার সময় সাদিয়ার ঘরে গিয়ে দেখি সাদিয়া কান্নাকাটি করছে। ওকে গিয়ে জিজ্ঞেস করলাম কি হলো সাদিয়া কাঁদছ কেন তুমি????
” ভাবি আমি একটু বারান্দায় গেছিলাম। হঠাৎ ই ভাইয়ার বন্ধুর সামনে পড়ে যায়। সাথে সাথে মুখে কাপড় দিয়ে ফেলি। জানিনা তিনি আমার মুখ দেখেছেন কিনা???”
কথাটা বলেই আবার ও কাঁদতে শুরু করে মেয়েটা। আমি ওকে বলি,
“শান্ত হও বোন আমার। তুমি তো ইচ্ছা করে করোনি এটা। আল্লাহর কাছে ক্ষমা চেয়ে নাও। ভুল তো মানুষের ই হয় তাই না???
বরং ভুলের মধ্যে ডুবে থাকা দোষের।”
সাদিয়ার সাথে কথা বলতে বলতেই আবার মাহাদি আমায় ডাক দিল,
ওকে নাস্তা দিয়ে আমি বলতে শুরু করি,
” আচ্ছা সাদিয়ার জন্য একটা ছেলে দেখুন তো। ওর তো বিয়ে দেওয়া উচিত।”
“বিষয়টা নিয়ে আমি ও ভাবছিলাম। আমি দেখি খোজ খবর নিয়ে। ”
পরের দিন ফযরের নামাজ পড়ে কুর আন পড়ে রান্নাঘর এ গেলাম। প্রথমবার নিজের ইচ্ছাতে রান্নাঘর এ ঢুকলাম। বিয়ের পর যেন এ জীবন টাই কেমন বদলে গেছে। প্রতিটা সকাল এখন শুরু হয় আল্লাহর নামে।
বিয়ের আগের প্রতিটা সকাল শুরু হতো শয়তানের কাজ দিয়ে। ছিলনা সেই জিবনের লক্ষ্য, উদ্দেশ্য,হয় গান নয়ত অন্য কোন হারাম দিয়েই প্রতিটা সকাল শুরু করতাম।
অবশ্য মনের মধ্যে শান্তির কোনো স্থান খুজে পেতাম না সেই সময় টাতে……..
বিয়ের আগে কোন ভালোবাসা হতে পারেনা। সেটা তো শয়তানের ধোকা ছাড়া আর কিছুই ছিলনা……..
এমন সব সাত পাঁচ ভাবতে ভাবতেই তরকারি পোড়ার গন্ধে আমার হুশ ফিরল। কতদিন পর রান্নাঘর এ আসলাম ভেবেছিলাম একটু ভাল রান্না করে সবাইকে খাওয়াব, কিন্তু তা আর হল কই????
আবার ও নতুন করে রান্না বসাতে হলো……
রান্না শেষ হতে না হতেই পাশের বাসার এক আন্টি এসেছেন তরকারি নিতে। অভাবের সংসার তাই তরকারিতে একটু ঝোল বেশি রেখেই আন্টিকে দিলাম। এদিক থেকে শিউলি বলল,
“ভাবি আম্মু এত ঝোল রাখেনা তরকারিতে। তুমি তো দেখছি এত্ত এত্ত ঝোল রেখেছো। ”
” কেন জানিস?আমাদের রাসূল সাঃ বলেছেন,
‘ হে আবু যার! যখন তুমি ঝোলওয়ালা তরকারি রান্না করবে, তখন তাতে পানির পরিমাণ বেশি করো, অতঃপর তোমার প্রতিবেশীর বাড়িতে রীতিমতো পৌছে দাও। মুসলিমঃ২৬২৫।
পিছন থেকে ও বলে উঠল, আমার বউটা দেখছি অনেক বড় হয়ে গেছে। অনেক বুঝতে শিখেছে।”
নিন। হয়েছে অত প্রশংসা করতে হবেনা। খেয়ে নিন……
অভাব, অনটনের মধ্যে দিন চললে ও ভালোবাসার কোন কমতি ছিলনা আমাদের মধ্যে……..
পরিস্থিতি যখন স্বাভাবিক ছিল ঠিক তখন ই ইবলিশ নতুন পরিকল্পনা করা শুরু করে দেয়…….
বুঝতে পারিনি সুখের সংসার এভাবে ভেঙে তচনচ হয়ে যেতে পারে…….
মাহাদি মাস শেষে যা টাকা নিয়ে আসত তার অর্ধেক টাকায় বিলিয়ে দিত অসহায় দের মাঝে।
আমরা যখন গভীর ঘুমে মগ্ন ঠিক তখন ই ডাকাতের আগমন ঘটে আমাদের বাড়িতে। ডাকাতের উপস্থিতি টের পেয়ে ঘুম থেকে উঠে সবাই বোরকা পরে নিই। সাদিয়ার হাতের আংটি আর আমার হাতের আংটি ছাড়া সোনার জিনিস আর কিছুই ছিলনা।
অবশিষ্ট ছিল ৫,০০০ টাকা। প্রাণের ভয়ে নয় আত্নসম্মানের ভয়ে দিয়ে দিতে হয় সব কিছু……..!!!
একেবারে শুন্য করে দিয়ে তারা চলে যায়……..!!!
পরেরদিন সকালে কি যে করব ভেবে পাচ্ছিলাম না। চাল ছাড়া ঘরে কিছুই ছিলনা। এদিকে এতগুলা মানুষ তাদের কি যে খেতে দিব।
না পেরে কাঁদতে শুরু করি। কান্নার আওয়াজ মাহাদির কান পর্যন্ত পৌঁছে গেলে ও আমায় এসে বলে,
” এত চিন্তিত হয়োনা, রাগি বউ। এটা আমাদের জন্য তো অনেক বড় একটা পরিক্ষা। আমার দয়াময় আল্লাহ কিছু একটা উপায় নিশ্চয় করে রেখেছেন।
তিনিই তো সবার রিযিক দিয়ে থাকেন। ফ্রিজ খুকে দেখো কিছু একটা পেলেও পেতে পারো……….!!!
ওর কথা মত ফ্রিজ খুলে দেখি আটা আছে। আটা দিয়ে ও আমাকে রুটি তৈরি করতে বলল। আর একটা রুটি পাখিদের ও দিতে বলল………!!!
আমার ভুল ভেঙে দিয়েছিল মাহাদি। সত্যিই সেই মুহুর্তে হতাশ হয়ে গেছিলাম। কিন্তু আমার মহান রাব্বুল আলামিন যে সবার রিযিকের ব্যবস্থা করে রেখেছেন। তাই আমাদের সর্বাবস্থায় ধৈর্য ধরা উচিত।”
আমায় ও বলল, একটা সুসংবাদ আছে রাগি বউ।
“হুম বলুন। কি সেই সুসংবাদ……….
চলবে………
# রাগি_বউ
৯ম_পর্ব
“আরে কি হলো সুসংবাদ টা বলবেন না???”
“হুম। সেদিন আমার যে বন্ধু আসছিলনা,,,,,,
ও আমাদের সাদিয়ার চলা ফেরা দেখে খুব পছন্দ করেছে। ও একটা দ্বীনদার কাউকে খুজছিল অনেক দিন ধরে। সাদিয়া যখন আমার বন্ধুর সামনে পড়ে যায় তখন সাথে সাথে ওর মুখ ঢেকে নেই। এসব দেখে ওর খুব ভাল লেগেছে। ও শুনেছে সাদিয়া ডিভোর্সি তবু ও ওর কোন সমস্যা নাই। আলহামদুলিল্লাহ এত দিনে আমার বোন টা একটু সুখের মুখ দেখবে ইনশাআল্লাহ। ”
” আলহামদুলিল্লাহ। আমার আল্লাহ অনেক দয়ালু। অনেক মেহেরবান। তিনি তো বলেইছেন, কষ্টের পরে স্বস্তি আছে। সাদিয়া আপনার বন্ধুর সামনে পড়ে যাওয়াতে খুব কান্নাকাটি করছিল।”
” আমার আল্লাহ আমাদের সবাইকে পরিক্ষা করেন আর একটা সময় সেই পরিক্ষার ফল দেন।”
সাদিয়ার বিয়ে টা হয়ে যায়। মাহাদির ওই বন্ধুর সাথে। আমাদের কোন টাকাই খরচ করতে হয়নি এই বিয়েতে। রাসূল সাঃ তো বলেছেন সেই বিয়ে উত্তম যে বিয়েতে সব থেকে কম টাকা খরচ হয়। ওদের বিয়েটা মসজিদেই হয়েছিল। সম্পুর্ণ সুন্নাতি তরিকায়………..!!!!
দিন যায় রাত আসে, মাস পেরোয় বছর আসে। এভাবেই কেটে যায় ৩ টা বছর। আর তিন বছর পর প্রথমবার আমার ভাবি আর ভাইয়া আসে আমাদের বাড়িতে। মাহাদির ব্যবসার ওই একই অবস্থা।
তবুও অভাব অনটনের মধ্যে সুখেই দিন কাটছিল আমাদের।
কিন্তু সবকিছু এভাবে এলোমেলো হয়ে যাবে তা তো স্বপ্নেও ভাবিনি আমি।
নিজেকে যখন পুরাপুরি সাজাচ্ছিলাম আমার রবের জন্য। ঠিক সেই মুহুর্তে শয়তান আমার সেই পুরানো দিনের রাগি স্বভাব টা আবার ও মনের মধ্যে জাগ্রত করে তোলে।
আমার ভাইয়া আমায় দেখে পুরা অবাক হয়ে যায়। বড্ড আদরের ছিলাম তো আমি!!
ভাইয়া তো এমন অভাবের মধ্যে আমাকে থাকতে দেখে কিছুতেই মেনে নিতে পারছিল না। আর ভাবি…..
ভাবি তো আমার ক্ষতি করার জন্যই সর্বদা ব্যস্ত থাকতো। সুযোগ পেয়ে আমায় কম কথা শোনাল না ভাবি। সে বলল,
” আরে তামান্না। তুই এই বাড়িতে কি করে থাকিস। আমার তো দম বন্ধ হয়ে আসছে। এত ছোট ঘর আর এত কম দামী পোশাক তোকে পরতে দেয়। তুই কিভাবে এত কিছু সহ্য করিস???”
ভাবির কথা শুনে হারিয়ে গেছিলাম অতীতে। অতীতের সেই বিলাসিতা গুলা মনে পড়ে যায়। কত দামি দামি পোশাক পরতাম। কত কসমেটিক্স কিনতাম। আর এখন কার সেই সময় টা কত আলাদা।
ভুলে গেছিলাম রাসূলের সেই দিন গুলার কথা। তার ওই রক্তমাখা ইতিহাসের কথা। সব কিছু ভুলে গিয়ে মাহাদি কে বলেছিলাম,
” আমি এ বাড়িতে থাকবনা। আপনি হয় আমাকে দামি একটা নেকলেস বানিয়ে দেবেন নয়ত আমি চলে যাব।”
কিন্তু মাহাদির যে ওমন সামর্থ্যই নেই। ও যে কোন হারাম পথে যেতে পারবেনা।।শেষ পর্যন্ত আমি বাড়ি ছেড়ে চলে যায় বাবার বাড়িতে।
ভাবিনি অসহায় ওই ছেলেটার কথা। যে আমাকে এত ভালোবাসা দিয়েছে তার কথা ভুলে যায়।
কিন্তু ভুলব বললেই কি আর ভোলা যায়। বাড়িতে যাওয়ার ৩/৪ দিন পেরিয়ে গেল এক্টিবার এর জন্য ও ও বাড়ির কেউ ফোন দেয়নি আমার কাছে। আমার রাগ এতটাই বেড়ে গিয়েছিল যে আমি ও আর প্রয়োজন মনে করিনি ওর কাছে ফোন দেওয়ার।
এভাবেই ২ মাস যায় মাহাদির সাথে কোন যোগাযোগ পর্যন্ত করিনি আমি। জানিনা ও কেন ফোন দিয়ে এক্টিবার ও খোজ নেইনি।
সময় গুলা কাটতনা যেন একা একা। ভাল পোশাক আর ভাল খাওয়ার কোন কিছুর অভাব ছিলনা আমার বাবার বাড়িতে। কিন্তু ওকে মিস করতাম খুব। এত কিছুর মাঝে একা মনে হত নিজেকে। তবু ও ওই যে নিজের জিদে অটল ছিলাম। ভেবেছিলাম ও ফোন না দিলে নিজে থেকে আমি আর ফোন দিবনা।
ভাবিনি আমার জিদ আমার ধবংসের কারন হবে। অনেক দিন পর আবার ও ফেসবুকে ঢুকি।
ফেসবুক টা ওপেন করতেই দেখি মাহাদির মেসেজ। কিন্তু ওর মেসেজে বুকের ভিতরে খুব কেপে ওঠে। আসলে ভাবিনি যে এমন কিছু হতে চলেছে আমার সাথে।
মেসেজ টা দেখার এক সেকেন্ড আগে ও এটাই ভাবছিলাম, একটি বার ফোন দিলে কি খুব বড় ক্ষতি হয়ে যেত????
পিছন থেকে ভাবি এসে আমায় জড়িয়ে ধরে কাঁদিতে শুরু করে।
ভাবিকে শক্ত করে ধরে আমি বলি,
” কি হলো ভাবি কাঁদছ কেন তুমি??”
” তামান্না রে! তোকে উস্কানি দেওয়া আমার ঠিক হয়নি। আজ আমার বান্ধবী মারা গেছে। আত্নহত্যা করেছে ও। কেন জানিস?? কারন ওর বর পরকিয়াই লিপ্ত ছিল। বড় ধনী পরিবার দেখেই ওর বিয়ে দিয়েছিল ওর বাবা। কিন্তু ওর যে ছেলের সাথে বিয়ে দিয়েছিল সে তো নামাজ, পড়তনা রোযা রাখতনা। কি লাভ হলো বলতো টাকা পয়সা ওয়ালা দেখে বিয়ে করে??
আমায় ক্ষমা করে দিস বোন। যা তুই মাহাদির কাছে ফিরে যা। ওর উপর আর অভিমান করে থাকিস না। রাগ যে খুব মারাত্নক জিনিস। ওর কাছে একটা ফোন দে। ”
” ভাবি ও আমায় মেসেজ দিয়েছে। ”
” ওহ! সত্যিই।”
” হুম! ভাবি, তবে ওর দেখা পাব কি জানিনা।”
“মানে কি। তুই মেসেজ টা পড়ে শোনা তো………”
“কাপা কাপা গলায় আমি মেসেজ টা পড়া শুরু করি………….
চলবে………
ইনশাআল্লাহ….