আমার আসক্তি যে তুমি Part-50

0
2913

#আমার_আসক্তি_যে_তুমি
#Part_50
#Writer_Asfiya_Islam_Jannat
.
?
বার বার সেই আর্তনাদটি আমার কানে ভাসছে এবং সেই দৃশ্যটি চোখে। আমি কোন কিছুতেই নিজেকে সংযত রাখতে পারছি না। আমি আমার কান দুটো চেপে ধরে কান্না করতে থাকি। তখনই কেউ আতঙ্ক মাখা কণ্ঠে আমার নাম ধরে ডেকে উঠে,
.
— রিয়ুপাখি!!
.
কিন্তু সেই ডাকটি আমার কান পর্যন্ত আর পৌঁছালো না। কেন না আমি আমার কান দুটো চেপে ধরে বসেছিলাম। সাথেই ভয়ে একদম কুঁকড়ে ছিলাম। যার জন্য আমার আশেপাশেরই ঠিক কি হচ্ছে তার কোন জ্ঞানই আমার ছিল না। রিয়ান এইবার কিছুটা সাহস জুগিয়ে আবার আমায় ডাক দেয়। এইবার একটু জোরেই ডাক দেয়।
.
— রিয়ুপাখি!!
.
এইবার তার ডাকটি আমার কান পর্যন্ত পৌঁছায়। আমি এইবার চোখ তুলে দরজার দিকে তাকাই। এইবার আমি তাকে দেখে ভয়ে জমে যাই। কথা যেন মুখ দিয়ে বেরুচ্ছেই না। আমি ভয়ে একটু পিছে চেঁপে বসি।
রিয়ান এইবার আমার দিকে এগিয়ে আসতে নিলে আমি চেঁচিয়ে উঠি,
— আমার কাছে আসবেন না। একদম আমার কাছে আসবেন না। আপনি একজন খুনি। আপনি আমাকেও খুন করে দিবেন।
.
এই শুনার সাথে সাথে রিয়ান থমকে দাড়ায় আর করুণ চোখে আমার দিকে তাকায়। রিয়ান বলতে থাকি,
— রিয়ুপাখি আমার কথ.. এই বলে এককদম এগুতে নিলেই আমি আবার চেঁচিয়ে পিছে চলে যাই,
.
— বলছি না আপনি আমার কাছে আসবেন না। আপনি রকিকে খুন করেছেন! খুনি আপনি! এই বলে আরও পিছিয়ে যাই।
তখনই হাতের সামনে সেই ধারালো ছুরিটি পড়ে। আমি একনজর সেই দিকে তাকিয়ে রিয়ানের দিকে তাকাই। রিয়ান আমার দিকে তাকিয়ে বলছে,
.
— রিয়ুপাখি আমার কথাটা তো শুন। বলেই এক কদম এগিয়ে আসে।
.
তা দেখে আমি সাথে সাথে সেই ছুরিটি হাতে নিয়ে নেই আর দাড়িয়ে পড়ি। আমি এইবার কাঁপা কাঁপা হাতে ছুরিটি নিজের বা হাতের কব্জিতে ধরে অস্পষ্ট সুরে বলি,
— আআপনি যযদি আর এক ককদমও সামনে আসেন ততাহলে আআমি আমার জজান দিয়ে দিব। একদম ককাছে আসবেন ননা আমার।
.
এই শুনেই রিয়ান থমকে দাড়ায়। আর অবাক চেয়ে আমার দিকে তাকিয়ে থাকে। রিয়ান এইবার করুন কণ্ঠে বলে,
— তুমি আমায় ভুল বুঝচ্ছো। আমি যা করে.. রিয়ানকে আর বলতে না দিয়ে আমি চেঁচিয়ে উঠি,
.
— আআপনাকে আআমি ককোন ভভুল ববুঝছি ননা। ববরং এএত দদিন ববুঝেছি। আআপনি এএকজন ননরপশু। খখুনি আআপনি। আআমি আআপনাকে ঘঘৃণা ককরি ররিয়ান। ঘঘৃণা কক! আর বলতে পারলাম না। আমার মাথা ঘুরে গেল। চোখের সামনে সব অন্ধকার হয়ে আসেম আমি ঢলে পড়লাম মেঝেতে। হাতে ছুড়িটি ধরে রাখার কারনে হাতের সাইডে হাল্কা লেগে যায়। যার ফলে এক ফিনিক রক্ত ছিটকে পড়ে মেঝেতে।
.
রিয়ান তা দেখে আমার কাছে দৌড়ে আসে। তারপর আমার মাথা তার কোলে দিয়ে গালে চাপড় মেরে ডাকতে থাকে। কিন্তু আমি তখন জ্ঞানহীনভাবেই পড়ে থাকি। এত বড় শোকড আমি নিতে পারি নি বিধায় এমনটা হয়েছে।
.
.
?
.
পশ্চিম আকাশে সূর্যটি প্রায় ডুবু ডুবু অবস্থা। দেখতেই দেখতে সূর্যটি অদৃশ্য হয়ে গেল সকলের চোখের ধুলো দিয়ে। পাখিরা হন্তদন্ত হয়ে ছুটে চলেছে তাদের নীড়ের দিকে। আধার ঘনিয়ে আসছে। সাথেই যেন কোলাহল দ্বিগুণ বেড়ে উঠেছে। ঘরে ঘরে জ্বলে উঠেছে কৃত্রিম আলোগুলো।
বিছানায় অচেতন অবস্থায় শুয়ে আছি আমি। রুমটা হিম শীতল হয়ে আছে। মাঝে মধ্যেই বয়ে চলেছে দমকা হাওয়া। বেশ কিছুক্ষনের মাঝেই আমার জ্ঞান ফিরে আসতে শুরু করে। আমি এইবার ধীরে ধীরে চোখ খুলতে শুরু করি।ঝাপসা ঝাপসা চোখে চারদিকে তাকাই। অতঃপর ধীরে ধীরে উঠে বসার চেষ্টা করি। মাথাটা বেশ ভারি হয়ে আছে। আমি এইবার ভালো মত তাকানোর চেষ্টা করি। হাত নারাতেই ব্যথা অনুভব করি। হাতের দিকে তাকিয়ে দেখি হাতে বেন্ডেজ করা। এইটি দেখে সাথে সাথে আমার ভ্রু কুচকিয়ে আসে। আমি এইবার চারদিকে চোখ বুলিয়ে দেখতে শুরু করি আমি কোথায় আর এইখানে কিভাবে আসলাম।
তখনই সামনে তাকাতেই আমি চমকে উঠি। রিয়ান পায়ের উপর পা তুলে সোফায় বসে আছে। চোখ তার রক্তিম লাল হয়ে আছে। চুলগুলো উষ্কখুষ্ক। মুখটা একদম মলিন হয়ে আছে। আমি তাকে কিছু জিজ্ঞেস করতে যাব তখনই আমার সকালের কথা গুলো মনে পড়ে যায়।
সাথে সাথে আমি ভয়ে কুঁকড়ে যায়। বিছানা চেঁপে বসে পড়ি। চোখে মুখে ফুটে উঠে একরাশ আতঙ্ক। রিয়ান তা দেখে স্মিত হেসে বলে,
.
— খুব বেশি কি ভয় পাচ্ছ আমায় দেখে?
.
তার প্রশ্নের উত্তর না দিয়ে আমি পাল্টা প্রশ্ন করি,
— আআমি এএখানে ককিভাবে? কাঁপা কাঁপা গলায়।
.
— আমি এনেছি তোমায়। এই বকে রিয়ান দাঁড়িয়ে যায় আর ধীর পায়ে আমার কাছে আসতে থাকে।
.
তাকে আসতে দেখে আমি চেঁচিয়ে উঠি।
— একদম কাছে আসবেন না আমার। আপনাকে আমার সহ্য হয় না৷ দূরে যান আপনি। খুনি আপনি।
.
রিয়ান এইবার আমার সামনে এসে আমার পাশে বসে। আমার হাত তার হাতের ভাজে নিয়ে বলে,
.
— হ্যাঁ আমি খুনি! তোমার ভালবাসায় আমি খুনি হয়েছি। তোমাতে আসক্ত হয়ে আসক্তির সকল সীমা পেরিয়ে গিয়েছি। আর তাতে আমার আফসোস নেই। কেন না এইটাই আমার আসক্তিময় ভালবাসা। শান্ত গলায়।
.
আমি এইবার এক ঝাটকায় নিজের হাত সরিয়ে ফেলি আর দূরে সরে এসে বসি। তারপর চেঁচিয়ে বলি,
— এইটা ভালবাসা না পাগলামি। চাই না আমি এমন ভালবাসা। চাই না কোন খুনিকে ভালবাসতে। আপনি একজন মিথ্যাবাদী। আপনি আমায় পদে পদে শুধু মিথ্যাই বলে গিয়েছেন। ধোঁয়াশায় রেখেছেন আমায়। প্রতারক আপনি। তার চেয়েও বড় কথা আপনি খুনি। আপনার হাত রক্তে রঞ্জিত। আর যত যাই হোক আমি একজন খুনিকে ভালবাসি না রিয়ান। ভালবাসি না আমি! শুধু ঘৃণা করি। আই জাস্ট হেট ইউ রিয়ান। আই জাস্ট হেট ইউ!
.
রিয়ান তখন আমার চুলের মুঠি ধরে ধরে আমাকে একদম তার কাছে নিয়ে আসে। তারপর গর্জন করে বলে,
— তুই আমাকে ভালবাস আর নাই বাস তাতে আমার কিছু যায় আসে না। কেন না আমার একার ভালবাসাই যথেষ্ট দুইজনের জন্য। আগেও বলেছিলাম আমার ভালবাসা সাধারণ নয়। সকল হতে ভিন্ন। আলাদা! আমি যেমন ভালবাসার জন্য মরতেও পারি তেমনেই অন্যকেও মারতে পারি। নিজের ভালবাসার জন্য সকল ত্রিসীমানাও পার দিতে পারি। আমার ভালবাসা যেমন অমৃত ঠিক তেমনই বিষাক্তও। এইটাই হচ্ছে রিয়ানের আসক্তিময় ভালবাসা।
.
আমি এইবার রিয়ানকে ধাক্কা মেরে সরিয়ে দিয়ে বলি,
— আপনি একটা নরপশু। অমানুষ! আপনার মত মানুষ কখনোই ভালবাসার মানে বুঝতে পারে না। কেন না আপনার মধ্যে না আছে মানুষত্ব, না আছে দয়া। কিভাবে পারলেন এত নিষ্ঠুর ভাবে সকলকে মারতে? কি দোষ ছিল ওদের হ্যাঁ? কি দোষ ছিল! কেন মারলেন সেই নিষ্পাপ মানুষদের?
.
— ওরা নিষ্পাপ নয় ওরা পাপী। তোমাদের দিকে তাকানোর ও হাত বাড়ানোর দুঃসাহস করেছে ওরা। এর শাস্তি তো ওদেরকে পেতেই হতো। ওরা ওর প্রাপ্য শাস্তিই পেয়েছে। শান্ত ভাবে।
.
— তাই বলে তাদের খুন করার অধিকার আপনার নেই। আপনি হয়তো ভুলে যাচ্ছেন আপনি একজন ডাক্তার। আর ডাক্তারের ধর্ম জীবন রক্ষা করা জীবন নেওয়া নয়। আপনি কিভাবে পারলেন এত নিষ্ঠুর ভাবে তাদের খুন করতে? বাকিদের কথা না হয় বাদ এই দিলাম। তারা হয়তো বা দোষী। কিন্তু আবির! আবিরের কি দোষ ছিল? ওর বর্তমান অবস্থার পিছনে যে আপনি দায়ী তা আমি বেশ বুঝতে পারছি। ওকে কোন দোষের শাস্তি দিয়েছেন আপনি? আমার কাছে এসেছে বলে? আমার সাথে বন্ধুত্ব করেছিল বলে?
নিজের ভাইয়ের এমন অবস্থা কিভাবে করতে পারলেন আপনি? কেন দিয়েছেন শাস্তি?
.
রিয়ান কিছুক্ষণ স্থির দৃষ্টিতে রিয়ানার দিকে তাকিয়ে থাকে। তারপর মুখ ঘুরিয়ে বলে,
— ও ওর কর্মের ফলই পেয়েছে। তা নিয়ে তোমায় ভাবতে হবে না।
.
— বাহ রিয়ান বাহ! এতটা পাষাণ আমি জানতাম না। নিজেকে এখন ধিক্কার দিতে ইচ্ছে করছে যে আপনার মত এক অমানুষকে আমি ভালবেসেছিলাম। নিজের প্রতি এখন ঘৃণা হচ্ছে। আপনার মত অমানুষের সাথে থাকা আমার পক্ষে সম্ভব না। কোনভাবেই না।
এই বলে আমি উঠে দরজার দিকে পা বাড়াতেই রিয়ান হুংকার দিয়ে উঠে। এতক্ষণ খুব কষ্টে নিজের রাগ সংযত করে রেখেছিল। কিন্তু রিয়ানার কথাগুলো রিয়ানের ধৈর্যের সকল বাঁধ ভেঙ্গে দেয়। রিয়ান আমার সামনে এসে আমার বাহু দুটো চেপে ধরে বলে,
.
— আমি অমানুষ হই আর যাই হয় তোকে এই অমানুষের সাথেই থাকতে হবে। তোকে ভালবেসেছি তোর থেকে দূরে যাওয়ার জন্য নয়। ভালবাসাকে ছাড়া যায় কিন্তু আসক্তিকে না। মনে রাখবি আমার আসক্তি যে তুই। আরআমার শেষ নিশ্বাস পর্যন্ত তোকে শুধু আমার আসক্তি হয়েই সাথে থাকতে হবে। আর সেটা তোর স্বেচ্ছায় হোক অথবা অনিচ্ছায়। থাকতে তোকে আমার সাথেই হবে। তুই আমাকে ভালবাস বা ঘৃণা যাই করোস না কেন তোর সব কিছুতেই শুধু আমার অধিকার। বুঝেছিস।
.
আমি এইবার মোচড়ামুচড়ি করতে শুরু করি। আর চেঁচাতে থাকি,
— আমি থাকব না আপনার সাথে। ছাড়েন আমাকে। ছাড়েন! আমি চলে যাব। থাকব না আপনার সাথে।
.
এইবার রিয়ান আরও রেগে উঠে। রিয়ান এইবার আমাকে একদম কাছে টেনে নিয়ে এসে ওর ঠোঁট দুটো চেপে ধরে। সাথে সাথে আমি স্থির হয়ে যাই। নড়ার শক্তিটুকুও পাই না। বেশ কিছুক্ষণ পর রিয়ান আমায় ছেড়ে দিয়ে ওর কপালের সাথে জোর করে আমার কপাল ঠেকিয়ে চোখ বন্ধ করে দাঁতে দাঁত চেপে বলে।

— আমার হিংস্রতা দেখতে এসো না। জ্বলে পুড়ে ছাড়খাড় হয়ে যাবে। আমার হিংস্রতা যে ঠিক কোন পর্যন্ত যেতে পারে তা তোমার ধারণার বাইরে। আমি যা হতে দিতে চাই না তা হতে দিও না।
আমার ভালবাসার রুপ থেকে পরিচিত হলেও আমার হিংস্রতা থেকে সম্পূর্ণ অপরিচিত। তাই বলছি এত জেদ করো না। ভালবাসি তোমায়! আমাকে ভুল বুঝো আর যাই করো দূরে তুমি যেতে পারবে না। তাই নিজের জিদ ছেড়ে দাও রিয়ুপাখি।
.
রিয়ানের কথায় আমার হোস এবং আমি এইবার রেগে যাই। তারপর চেঁচিয়ে বলতে থাকি,
— কি করবেন আপনি হ্যাঁ? কি করবেন! মেরে ফেল.. আর বলতে পারলাম না। রিয়ান আমার ঠোঁটে তার আঙ্গুল চেপে ধরে বলে,
.
— হুসস! যা প্রকাশ্যে আনতে চাচ্ছি না তা আনতে বাধ্য করো না। তা না হলে তোমারই ক্ষতি হবে। যা বলছি তা শুনো। তা না হলে আমি নিজেও জানি না আমি কি করবো। শান্ত ভাবে বললেও এতে ছিল এক ভয়ংকর হিংস্রতা।

রিয়ান এইবার আমাকে বলতে না দিয়ে গটগট করে রুম থেকে চলে যায় আর বাইরে দরজা লাগিয়ে দিয়ে যায়। আমি দ্রুত দরজার সামনে গিয়ে ধাক্কাতে থাকি। আর চেঁচাতে থাকি। কিন্তু এতে কোন প্রতি ক্রিয়া হলো না। অবশেষে ক্লান্ত হয়ে নিচে বসে পড়ি। চোখ বেয়ে অজস্র অশ্রু গড়িয়ে পড়তে থাকে।
.
.
?
.
মেঝেতে বসে আছে রিয়ান। চোখ দুটো একদম রক্তিম বর্ন ধারণ করে আছে। চোখের নিচটা একটু ফোলা। পাশেই তার পরে আছে একটি ঔষধের কোটা। তার আশেপাশে ছিটিয়ে ঔষধগুলো। বা হাত দিয়ে টুপ টুপ করে রক্ত পড়ে চলেছে মেঝেতে। ফলস্বরূপ মেঝেতে সৃষ্টি হয়েছে রক্তের সুরু রেখা। যা একটু একটু করে প্রসারিত হয়েই চলেছে।
কিন্তু রিয়ানের সেইদিকে কোন ভ্রুক্ষেপ নেই। রিয়ান এইবার বলতে শুরু করে।
.
.
.
#চলবে
কালকে গল্প পোস্ট করার সময় আমার এমবি ফুরিয়ে আসে যার জন্য কালকে গল্পটা ফরমেট হয়ে যায় আর গল্পটা ডিলিট হয়ে যায়। তাই আজকে আবার নতুন করে লিখতে হয়। আশা করি কালকে গল্প না দেওয়ার কারণ বুঝতে পেরেছেন।
.
.
.
???
.
— আমি তোকে ভালবাসি না এইকথা কি তোর মাথায় ঢুকে না? আগেও বলেছি এখন আবারও শেষ বারের মত বলছি আমি যা করেছি শুধু মাত্র প্রতিশোধ নিতে। তোর জন্য আমার মনে বিন্দু মাত্র জায়গা নেই বুঝলি। তুই যাই কর না কেন কোনদিন আমার মনে জায়গা করতে পারবি না। বিকোজ আই জাস্ট হেট ইউ।
.
কথাটি বলেই ইহান রুম থেকে চলে যায়। আরিহা ইহানের যাওয়ার দিকে তাকিয়ে এক রহস্যময় হাসি দেয়। সেই রহস্যময় হাসি মুখের মধ্যে বিরাজমান রেখেই বলে,
.
— কথায় আছে, ” ভালবাসা দিয়ে ভালবাসতে শিখাতে হয়।” কিন্তু আমি ঘৃণা দিয়ে ভালবাসার সেই বিষাক্ত বীজটি বুনবো। মুচকি হেসে।
.
আরিহা এইবার রকিং চেয়ারে বসে হেলান দিয়ে শুয়ে পড়ে। চোখে তার এক অন্য রকম চাহনি। সেই চাহনিটি বুঝা বড় দায়। ঠোঁটে এক রহস্যময় হাসি।আরিহা সেই হাসি ঠোঁটে বিরাজ রেখে বলতে থাকে,

– আমি তোমাকে আমার জীবনের সাথে জড়াই নি বরং তুমি স্বেচ্ছায় এসে আমার জীবনের সাথে নিজেকে জড়িয়েছ। আমার মনে ভালবাসা নামক বিষাক্ত বীজটি বোপন করেছ। আমার #অন্তরালে_তুমি নামক বস্তুটিকে বসিয়েছ। যেই তুমি এত কিছু করেছ এখন সেই তুমি আমার থেকে দূরে যেতে চাচ্ছো?
নাহ! এইটা তো আমি হতে দিতে পারি না। কেন না যে তোমার সাথে যে আমার আরও অনেক হিসাব বাকি আছে। তুমি যা করেছ তার শাস্তি তো তোমায় পেতেই হবে ইহান। তাও আবার আমার স্টাইলে। সেই শাস্তিতে না পাবে তুমি আমার ক্ষমা, না পাবে আমার ভালবাসা, না পাবে আমার ঘৃণা। শূন্যহীন অনুভূতি নিয়ে বাঁচবে তুমি।
তখন তোমার অন্তরালে ঠিকই আমি রয়ে যাব। কিন্তু আমার #অন্তরালে_তুমি আর থাকবে না। গেট বি রেডি মি. ইহান মাহমুদ এক ঘৃণাময় বিষাক্ত ভালবাসার জন্য।
এই বলে আরিহা অট্টহাসিতে মেতে উঠে। আরিহা হাসতে থাকলেও এই হাসির পিছে লুকিয়ে আছে না বলা শত শত কষ্ট। যেই কষ্টের কোন তীরসীমানা নেই।