নেশাক্ত ভালোবাসা ২ পর্ব-৬৫ এবং শেষ পর্ব

0
1474

#নেশাক্ত_ভালোবাসা
#Season_2
#লেখিকাঃ Tamanna Islam
#পর্বঃ ৬৫ {Last part✨}

৬ মাস পর ~

।।

..

।।

দেখতে দেখতেই কখন যে চোখের পলকেই ছয়-ছয়টি মাস পেরিয়ে গেছে টেরই পাওয়া গেলো না। আর এই ছয়টি মাসে পালটে গেছে অনেক কিছুই। চৌধুরী বাড়ি আর চৌধুরী পরিবার যেনো আগে থেকে বেশ অনেকটাই ভিন্ন কিসিমের হয়ে গেছে। সবকিছু তেই পরিবর্তন এসেছে। বাড়ির আনাচে-কানাচে তে খুশিরা সব এসে উঁকি দেয়। আব্রাহাম-আইরাতের জীবন আগে থেকে আরো বেশি সুখময় হয়ে গেছে। এই ছয়টি মাসে বাচ্চা রা অনেক টাই বড়ো হয়ে গেছে। আইরাত নিজেই দুই বাচ্চার নাম দিয়েছে। আব্রাহামের ভাষ্যমতে আইরাত যা ভালো মনে করে তাই। সে ছেলের নাম দিয়েছে আতিফ আহমেদ চৌধুরী আর মেয়ের নাম দিয়েছে সায়রা ইসলাম নূর। দুজনেই দেখতে মাশআল্লাহ অনেক বেশিই সুন্দর। অনেক নাদুসনুদুস, গোলুমোলু। আর হবেই না কেনো! আইরাত সারাদিন এটা ওটা বাচ্চাদের খাওয়াতেই থাকে। এত্তো পরিমাণে তাদের দেখে শুনে রাখে যে বলার বাইরে। আব্রাহাম তো তাদের মা, আম্মু, মাম্মাম শেখাতে শেখাতে একদম মুখে ফেনা তুলে ফেলে। আর আইরাত বাপ, বেটা-বেটির এইসব কান্ড দেখে হেসে হেসে শেষ হয়। আব্রাহাম ঘুমিয়ে থাকলে আইরাত হয়তো নূর বা আতিফ কে সোজা আব্রাহামের ওপরে বসিয়ে দিয়ে আসে। আর তারাই আব্রাহামের ঘুম ভেঙে দেওয়ার জন্য উঠে পরে লাগে একেবারে। রীতিমতো নাকানিচুবানি খায় আইরাত এদের দামলাতে গিয়ে। আতিফ আর নূর কে একই রকমের ড্রেস পরিয়ে দিলে কেউই আর ধরতে পারবে না যে ছেলে কোনটা আর মেয়ে কোনটা। শুধু একমাত্র তাদের চুল দেখা বাদে। এই চুলের রঙ দিয়েই তারা বুঝে যে আতিফ কোনটা আর নূর কোনটা। ছেলে হয়েছে মায়ের পাগল আর মেয়ে হয়েছে বাবার পাগল। আইরাত শুধু এদের গালগুলো টানে। এত্তো নরম আর মোটাসোটা যা বলার বাইরে। বাড়ির সবাই মাথায় করে রাখে দুই বাচ্চাকে। তারা ইদানীং হামাগুড়ি দিতে শিখেছে একটু আধটু। এই হামাগুড়ি দিয়েই সারা বাড়ি টইটই করে ঘুরে বেড়ায়। খানিক চোখের আড়াল হলেই এরা এক জায়গা থেকে আরেক জায়গাতে চলে যায়। তাই দুজন কে চোখে চোখেই রাখতে হয় আরো বেশি। তবে আতিফ আর নূর মাঝে মধ্যে নিজেদের ভেতরেই খাবলা খাবলি বাধিয়ে দেয়, পরে একজন দেয় কেঁদে। আইরাত বা আব্রাহাম তাকে এসে কোলে নিলে সাথে আরেকজনও দেখা দেখি কেঁদে দেয়। এখন কোনটা কে রেখে কোনটাকে কোলে নিবে। কেননা দুজন কে একসাথে নেওয়া যায় না। তারা একসাথে বসে বসে খেলা করলে বা আঙুল চুষে চুষে ঘুমালে মনে হয় এক নজরে তাদের দিকে তাকিয়েই থাকি। এত্তো সুন্দর লাগে একসাথে। আব্রাহাম-আইরাত তাদের উভয়ের মাঝেও বেশ পরিবর্তন এসেছে বাবা-মা হবার পর থেকে। যেই আইরাত কিনা নিজেই একজন বাচ্চা ছিলো। বাচ্চামো তে ভরা ছিলো। সেই এখন নিজের দু বাচ্চা সহ পুরো পরিবার কে সামাল দেয়। নিজের বাচ্চাকাচ্চা থেকে শুরু করে ঘরের প্রায় কাজগুলোই, দাদির মেডিসিন সহ বাকি সব সেই সামলায়। আবার আব্রাহামের দিকেও নজর রাখে, মাঝেমাঝে আব্রাহামের অফিসের কাজে হেল্প করে। তবে আগে থেকে চঞ্চলতা আর চটপটে স্বভাব টা কমে নি এক ফোটাও। পুরো বাড়ি টা যেনো আইরাতের ছোঁয়ায় ঝলমল করে। বাড়ির লক্ষী বলা যায় তাকে। আগের মতোই রয়েছে দেখতেও। শুধু আব্রাহামের সাথে একটু জোরজবরদস্তি করে নিজের চুলের আগাল টুকু ছেটে নিয়েছে। আব্রাহামের কথা তো আর নাই বলি। তাকে দেখে বুঝাই যায় না যে এই বান্দা দুই বাচ্চার বাপ। হুবাহু আগের মতোই দেখতে রয়েছে। সেই আগের মর্জি-মেজাজ, বডি, চাপদাড়ি। নিজের বউ আর বাচ্চাদের নিয়ে যখন প্রেস/মিডিয়ার সামনে আসে তখন যেনো কারো নজরই সরে না তাদের ওপর থেকে। আগের মতোই হ্যান্ডসাম,, রাফ & টাফ আছে। আর রইলো কথা তাদের দুজনের ভালোবাসার তো দেখে মনে হয় যে তারা নিউলি ম্যারেড কাপল। মানুষ বলে যে বাচ্চাকাচ্চার বাবা-মা হলে নাকি জামাই-বউ এর সম্পর্কে কিছুটা ভিন্নতা চলে আসে। আসলে এটা ভূল আর তা এই দুজন মানুষ কে দেখে বুঝা যায়। অনামিকা আর আইরাত আগে যেই বাড়িতে থাকতো সেটা আব্রাহাম রেখে দিয়েছে এমনি। সে চায় সবাই একই সাথে একই বাড়িতে এক পরিবারের মতো থাকুক। কি দরকার অযথা দূরে দূরে থাকার তাই এমনটা করা। অয়ন-দিয়া সহ অবনি-কৌশল আর রাশেদ-রোদেলাও এখন পার করছে বিবাহিত জীবন। ইলার যেনো নিজের নাতির বাচ্চাদের পেয়ে আর অন্য কিছুর দরকারই পরে না। মোট কথা একটা হ্যাপি ফ্যামিলি কাকে বলে তা এই পরিবার কে না দেখলে বুঝার কোন উপায়ই নেই।


বিছানার ওপর এক গাদা খেলনা নিয়ে আতিফ আর নূর কে বসিয়ে দিয়ে রেখেছে আইরাত। তারা তাদের মতো করে খেলছে আর থেকে থেকে হাসছে। আর আইরাত ঘরের সব কাজ করছে। প্রথমে নিজের চুল বেঁধে নেয়। তারপর এক নজর ঘড়ির দিকে তাকিয়ে ফিডারে করে দুধ নিয়ে আসে বাচ্চাদের জন্য। তাদের সামনে ফিডার রাখলে তারা নিজে থেকেই হাতে তুলে নেয়। একজন শুয়ে শুয়ে ফিডার খাচ্ছে তো আরেকজন উলটে উলটে। পেছনের দিকে তাকিয়ে দেখে একটা সিংগেল সোফার ওপরে এক গাদা বাচ্চাদের কাপড় রয়েছে তা দেখে আইরাত সেদিকে এগিয়ে যায়। গিয়ে সেগুলো ভাজ করতে লাগে তখন আব্রাহাম রুমে আসে। আব্রাহাম কে দেখেই বাচ্চারা খুশিতে গদগদ হয়ে যায়। ধীর পায়ে এগিয়ে গিয়ে আব্রাহাম আইরাতের পেছনে দাঁড়িয়ে পরে। তাকে পেছন থেকে জড়িয়ে ধরে আর আচমকাই এমন হওয়াতে আইরাত বেশ চমকে যায়।

আইরাত;; আপনি এই সময়ে অফিস থেকে বাড়ি এলেন যে! কিছু দরকার?

আব্রাহাম আইরাতের চুলে নিজের নাক ডুবিয়ে দিয়ে বলে…

আব্রাহাম;; তোমাকে।

আইরাত;; এহ! এটা আবার কেমন কথা? হুট করেই আবার কি হলো আপনার?

আব্রাহাম;; প্রেম রোগে আক্রান্ত আমি।

আইরাত মুখটা উল্টিয়ে দিয়ে আব্রাহামের দিকে তাকায়। কোমড়ে দুহাত রেখে বলে…

আইরাত;; ভীমরতিতে ধরেছে আপনাকে?

আব্রাহাম;; না না তা তো বুড়ো বয়সে ধরে। আর আমি এখনো বুড়ো হয়নি বুঝলে। মেয়েরা মরে এখনো আমার ওপর জানো!

আইরাত;; আসলেই মরবে তারা। মরণ কাছিয়ে এসেছে তাদের তো তাই।

আব্রাহাম;; ক্ষেপেছে।

আইরাত;; হ্যাঁ ক্ষেপেছি তো! খুশি হয়েছেন!

আব্রাহাম আসলে চেতানোর জন্যই এইসব বলে আইরাতকে। সে মুচকি এক হাসি দিয়ে আইরাতের দিকে এগিয়ে যায়। তারপর নিজের হাতটা আইরাতের সামনে রাখে। আইরাত তাকিয়ে দেখে আব্রাহামের হাতে একটা বেলীফুলের মালা রয়েছে। এটা দেখেই তো আইরাত খুশিতে গদগদ হয়ে যায়।

আইরাত;; থাংকু জামাইজান।

আব্রাহাম যেই না আইরাত কে একটা চুমু দিতে যাবে তখনই তাকিয়ে দেখে যে বাচ্চারা ফিডার হাতে নিয়ে তাদের দিকেই ড্যাবড্যাব করে তাকিয়ে আছে। এগুলো যেনো তাদের চোখ না এক একটা বড়ো সাইজের মার্বেল। পিটপিট করছে।

আব্রাহাম;; আহাম…আহাম। আন্ডাবাচ্চা চোখ বন্ধ করো জলদি বাবাই এখন মাম্মাম কে কিসসি দিবে৷

এতো ছোট ছোট বাচ্চাগুলোও কি যে বুঝলো এতে তা একমাত্র তারাই জানে। কেননা আব্রাহামের বলার সাথে সাথেই তারা সোজা তাদের পুচ্চু পুচ্চু হাত দিয়ে চোখ গুলো ঢেকে ফেলে। তা দেখে আব্রাহাম-আইরাত দুজনেই হেসে একাকার। আর আব্রাহাম আইরাতের গালে কষে একটা চুমু এঁকে দেয়।


দুবেলা হাঁটতে নিয়ে যেতে হয় আইরাত আর বাচ্চাদের। সকালে আর বিকেলে। বুকের সামনে বেবি ব্যাগ ঝুলিয়ে তাতে করে নূর কে কোলে নেয় আব্রাহাম আর আতিফ কে কোলে নেয় আইরাত। এভাবেই সকালে আর বিকেলে নিয়ম করে হাঁটে। এটা যেনো এখন অভ্যাসে পরিণত হয়েছে তাদের। বিকেল বেলা হাঁটাহাঁটি শেষে তারা বাসায় এসে পরে। বাসায় এসেই দেখে সবাই বাগানে বসে বসে আড্ডা দিচ্ছে। আব্রাহাম-আইরাত কে দেখেই দিয়া আর অবনি ছুটে এগিয়ে যায়। তারপর তাদের কাছ থেকে বাচ্চাদের নিয়ে আসে। এবার আইরাত একটু বুক ভরে দম নেয়। এতোক্ষণ বাচ্চাকে নিয়ে থাকতে থাকতে এখন হয়রান লাগছে তার। বাচ্চাদের কে দিয়া, অবনি, কৌশল, অয়ন, তারা সবাই নিয়ে ব্যাস্ত হয়ে পরে। এদিকে আইরাত আর আব্রাহাম গিয়ে কিছুটা ফ্রেশ হয়ে আসে। তারপর জমিয়ে আড্ডা দিতে লাগে। সবাই হাসছে আর বাচ্চাদের নিয়েই খেলা করছে। তবে আতিফ অয়নের কাছে গিয়েই তার চুল ধরে টানাটানি শুরু করে দেয়। আর তাদের এইসব কর্মকান্ড দেখছে আব্রাহাম-আইরাত। এর মাঝেই হুট করে রাশেদের মাথায় বুদ্ধি আসে ট্রুথ আর ডেয়ার খেলার। একে একে সবাই জেনে তাদের মত ঠিক করে নেয়। আব্রাহাম-আইরাত কেও টেনে এই খেলা তে নিয়ে আসা হয়। সবার ভাগ্যেই এক এক করে পরছে আর সবাই নিজেদের কৃতকর্ম খোলাসা করছে। তবে দেখতে দেখতেই পালা আসে আব্রাহামের। আব্রাহাম ডেয়ার নেয় যার ফল সরুপ তাকে সবাই ঝেঁকে ধরে গান গাওয়ার জন্য। আব্রাহামও রাজি হয়ে যায়। সে আইরাত কে ইঙ্গিত করে গিটারে টুংটাং আওয়াজ তুলে।

“তুমি আকাশের বুকে বিশালতার উপমা~
তুমি আমার চোখেতে সরলতার প্রতিমা ❤️🥀~

হোক না সে অনেক দিন বা বছর। আব্রাহামের করা প্রত্যেকটা কাজ আইরাত কে বারবার আগের ন্যায়-ই মুগ্ধ করে তোলে। আর আব্রাহাম তো নিজেই আইরাতে মুগ্ধ। এভাবেই সময় টুকু যেতে লাগে।

এখন রাতের সময় সবাই যার যার রুমে ঘুমাচ্ছে। কিন্তু আইরাত-আব্রাহাম সজাগ। আতিফ আর নূর ঘুমিয়ে পরেছে অনেক আগেই। আব্রাহাম অফিসের কাজ করছিলো করিডরে বসে বসে। বেশকিছু ইম্পর্ট্যান্ট মিটিং আছে, সেগুলোরই ফাইল সব। আইরাত এতোক্ষণ বাচ্চাদের পাশেই শুয়ে ছিলো। খেয়াল করে দেখে তারা ঘুমিয়ে পরেছে৷ দুজনের মাথাতেই আলতো করে চুমু এঁকে দিয়ে আইরাত আস্তে করে উঠে পরে তাদের পাশ থেকে। তাকিয়ে দেখে আব্রাহাম তার চোখে মোটা ফ্রেমের চশমা পরে ল্যাপটপে গভীর ভাবে তাকিয়ে আছে। পরণে তার হাফ হাতা ওয়ালা একটা সাদা টি-শার্ট। এক নজর তার দিকে তাকিয়ে আইরাত দু কাপ কফি বানিয়ে আনে। ল্যাপটপ থেকে মাথা তুলে ঘাড়ের পেছনে এক হাত রেখে কিছুটা ক্লান্ত ভঙ্গিতে ঘাড় টা একটু পেছনের দিকে নিয়ে নেয় আব্রাহাম। তখনই এক কাপ কফি নিয়ে আব্রাহামের সামনে ধরে আইরাত। তার হাত থেকে কফি টা নিয়ে নিজের পাশে রেখে দেয়। তারপর আইরাতের হাত ধরে এক টান দিয়ে নিজের সামনে বসিয়ে দেয়। আব্রাহাম আইরাত কে পেছন থেকে জড়িয়ে ধরে। আইরাতও তার মাথা টা একটু এলিয়ে দেয় আব্রাহামের কাধের ওপর।

আব্রাহাম;; অনেক অনেক ধন্যবাদ বেবিগার্ল।

আইরাত;; কেনো বলুন তো!

আব্রাহাম;; আমার জীবনে আসার জন্য, আমার অন্ধকার ময় জীবন টাকে নিজের ভালোবাসা দিয়ে এতোটা আলোকিত করে তোলার জন্য, আমাকে ভালোবাসা শেখানোর জন্য, ভালোবাসা কাকে বলে তা বুঝানোর জন্য, এত্তো এত্তো পরিমাণে কিউট দু-দুটো বাচ্চা গিফট করার জন্য, এত্তো সুন্দর একটা হ্যাপি ফ্যামিলি দেওয়ার জন্য, এতো গুলো খুশি একসাথে আমাকে দেওয়ার জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ জানপাখি আমার।

আইরাত তার ঘাড় ঘুড়িয়ে আব্রাহামের গালে চুমু দিয়ে দেয়। আর আব্রাহাম আইরাতের ঠোঁটে। তাকে যেনো আব্রাহাম আরো বেশি করে জড়িয়ে ধরে। আর তাদের এই রাত্রিবিলাশ কে আরো গাঢ়ভাবে ফুটিয়ে তুলেছে ওপরে আকাশে থাকা ওই চাঁদের মুগ্ধকর জোৎসা রাতের আলো। যার আলোতে তাদের প্রতিবিম্ব বেশ দারুন ভাবে ফুটে ওঠেছে। বেশ সময় এভাবেই বসে থাকার পর তারা ভেতরে চলে আসে। বাচ্চারা একপাশে থাকে। আইরাত মাঝে আর তার ঠিক পরেই আব্রাহাম। আইরাত বাচ্চাদের জড়িয়ে ধরে আর আব্রাহাম আইরাত কে। যেনো সবকিছু সামলানোর দায়িত্ব আইরাতের আর এই পুরো আইরাত টাকে সামলানোর একান্ত দায়িত্ব আব্রাহামের।

আইরাত;; ভালোবাসি জামাইজান।

আব্রাহাম;; ভালোবাসি অনেক বেশি।

এই বলেই আব্রাহাম আইরাতের মাথায় এক চুমু এঁকে দেয়। তারা দুজন হয়ে রইলো একে ওপরের জন্ম জন্মান্তরের চিরসাথী হয়ে। আরেক দফা পরিপূর্ণতা পেলো আব্রাহাম-আইরাতের নেশাক্ত ভালোবাসা 🖤🥀।

___________________সমাপ্ত___________________

নেশাক্ত ভালোবাসা সিজন-০১ পড়তে লেখাটি উপর ক্লিক করুন।