বুকের ভিতর রাখবো তোকে পর্বঃ০৪

0
1456

#বুকের ভিতর রাখবো তোকে?
#Part:04
#Writer: Doraemon(Ayesha)

পাখি ফোনটা রিসিভ করল দেখার জন্য যে কে তাকে ফোন করল।
–হ্যালো কে বলছেন?
–আমি তোমার হৃদপিন্ড বলছি। আমি জানি এখন তুমি কলেজে যাবে। কিন্তুু আমি তোমাকে কিছু কথা স্পষ্টভাবে বলে দিচ্ছি আগামী সাতদিন তুমি কলেজে যাবে না।
–কেন? আমি কলেজে যাবো না কেন? আপনি কে বলছেন?
–যদি বলি তোমার অরণ্য স্যার বলছি।
–মানে! স্যার আপনি বলছেন! এসব মজা করার মানেটা কি স্যার। সামনে আমার এক্সাম। কেন কলেজে যাবো না আমি?
–জানতে হলে তোমাকে আমার সাথে দেখা করতে হবে৷ তোমার বাসার সামনে গাড়ী অপেক্ষা করছে। গাড়িতে উঠে সোজা চলে এসো আমার বলা জায়গায়। আর হ্যা ভুলেও চালাকি করার চেস্টা করবে না৷ নাহলে তোমার কলেজ যাওয়া চিরদিনের জন্য আমি বন্ধ করে দিব।
–স্যার আপনি এসব কি বলছেন?হ্যালো হ্যালো স্যার কথা বলছেন না কেন! যাক বাবা ফোনটা কেটে দিল।
পাখি আর কি করবে। সোজা ঘর থেকে বের হয়ে অরণ্যের পাঠানো গাড়িটাতে বসেই যাচ্ছে অজানা অচেনা এক জায়গায়। পাখির ভীষণ ভয়ও লাগছে। কিন্তুু পাখি যে নিরুপায়। পাখির টিউশনি দিয়েই একমাত্র তাদের সংসার চলে। এখন কলেজ পড়া বন্ধ হলে যদি জানাজানি হয়ে যায় পাখি পড়াশোনা করে না তাহলে তার টিউশনিগুলো হাত ছাড়া হবে আর তার পরিবারকে নিয়ে রাস্তায় নামতে হবে। পাখির নিজেরও একটা সপ্ন আছে তা সে কিছুতেই ভেঙে যেতে দিবে না। গাড়িতে বসে পাখি আপন মনে ভাবছে, কি আছে তার কপালে। কেনই বা অরণ্য স্যার তার সাথে এমন ব্যবহার করছে। একসময় গাড়িটা একটা বিশাল বড় ফ্ল্যাটের সামনে দাড়ালো। পাখি গাড়ি থেকে বের হয়ে খুজতে লাগল তার অরণ্য স্যার কোথায় আর তাকে এখানেই বা ডেকেছে কেন। অনেক খুঁজাখুঁজি করার পরেও পাখি অরণ্যকে পেল না।
কিছুক্ষণ পর পাখি রাস্তার এক জায়গায় দাড়িয়ে রইল। ফ্ল্যাটের ভিতরে যাওয়ার সাহস পাখির নেই। কিছুক্ষণ পর অরণ্য আসল।
–আমি জানতাম পাখি তুমি আসবে।
–স্যার এসবের মানে কি? আপনিতো আমায় বলেছিলেন যে আমার পড়াশোনায় কোনো বাঁধাই আপনি দিবেন না। তাহলে স্যার আপনি আমার সাথে এমন করছেন কেন?
–পাখি তোমাকে সব কথাই আমি বলব। কিন্তুু এখানে না। চলো আমার সাথে।
–আমি আপনার সাথে কোথায় যাবো না।
অরণ্য পাখির হাত ধরে ফেলল।
–ছেড়ে দিন আমায়।
অরণ্য পাখির কোনো কথাই শুনছে না। টেনে তার নিজের চার তলা ফ্ল্যাটে নিয়ে গেল। তারপর ফ্ল্যাটে নিয়ে গিয়ে দরজাটা বন্ধ করে দিল। পাখির বেশ লাগছে। পাখির হাত পা অনবরত কাঁপছে। তবুও পাখি বলল
–স্যার আপনার যা বলার আছে তাড়াতাড়ি বলুন। আমার একজনকে পড়াতে যেতে হবে।
–যাবে কিন্তুু পাখি আজ আমি তোমাকে আমার মনের কথা বলতে চাই।
–মানে কি? কি বলতে চান আপনি?
–পাখি তুমি আমার দেখা সবচেয়ে ভিন্ন এবং সম্পূর্ণ অন্যরকম একটা মেয়ে। যার ছেলেদের প্রতি কোনো আগ্রহ নেই। সব মেয়েরা যেখানে আমার জন্য পাগল আর সেখানে তুমি আমার দিকে ঠিক মতো তাকাও না। You are really different to others pakhi.
–স্যার আপনি কি এসব ভিত্তিহীন কথা বলতেই আমাকে ডেকেছেন? দেখুন আমি কি বা আমি কেমন তা আমি নিজেই ভালো করে জানি। নতুন করে আর এসব বর্ণনা দিতে হবে না।
এই বলেই পাখি চলে যেতে নিলো আর ওমনি অরণ্য পেছন থেকে পাখির হাতটা ধরে নিল। অরণ্য পাখির হাত ধরায় পাখি রাগী দৃষ্টিতে অরণ্যের দিকে তাকিয়ে আছে। অরণ্যের পাখির এসব চাহনিতে কোন যায় আসে না।
–আমার কথা এখনো শেষ হয় নি পাখি। আমার পুরো কথা না শুনে তুমি কোথাও যেতে পারবে না। ইভেন এই সাতদিন তোমাকে আমার সাথেই থাকতে হবে।
–মানে কি? আপনি কি পাগল হয়ে গেছেন যে আমি আপনার সাথে এই ঘরে থাকব। দেখুন স্যার একজন অবিবাহিত মেয়ে কখনো অন্য কোনো পুরুষের সাথে থাকতে পারে না। আমার হাতটা ছেড়ে দিন।
–পাখি আমি তোমাকে বিয়ে করতে চাই। পাখি আই লাভ ইউ৷ আই এম মেডলি ইন লাভ উইথ ইউ পাখি। তুমি যদি চাও তাহলে আজকেই আমাদের বিয়ে হবে।
অরণ্যের এমন কথায় পাখি চরম অবাক হলো সাথে অনেক রাগ হলো। পাখি রেগে গিয়ে খুব কষিয়ে অরণ্যকে থাপ্পড় মারল। থাপ্পড় খেয়ে অরণ্য নিচের দিকে তাকিয়ে আছে। অরণ্যের এই থাপ্পড়টা সহ্য হলো না। তাও নিজেকে সামলিয়ে অরণ্য পাখিকে বলল
–একটা কেন আমাকে হাজারটা থাপ্পড় মারো পাখি, তাও আমি তোমাকে কিছু বলব না। কারণ আমি যে তোমাকে ভালোবেসে ফেলেছি।
–আপনাদের মতো বড়লোকেরা কোনোদিনও গরীবদের ভালোবাসতে পারেন না। আমি জানি আপনি শুধু আমার শরীরটাকেই ভোগ করতে চান কারণ আপনাদের মতো বড়লোকেরা তাই করতে জানে৷ প্রয়োজন ফুরালেই রাস্তায় ছুঁড়ে ফেলে দিতে দুবারও ভাবে না।
অরণ্য পাখির কথাগুলো শুনে প্রচুর পরিমানে কস্ট পেল। দম বন্ধ হয়ে আসছে অরণ্যের। তাও সে নিজের সামলিয়ে পাখিকে উদ্দেশ্য করে বলল
–তোমার মনে যা ভুল চিন্তা- ধারণা জমে আছে তা সব আমি একদিন দূর করেই ছাড়ব। তুমিও একদিন আমায় ভালোবাসবে পাখি। কিন্তুু এই সাতদিন তোমাকে আমার সাথেই থাকতে হবে। আর একমাস পরেই আমাদের বিয়ে হবে। এটাই আমার সিদ্ধান্ত।
–মানে কি? আপনার কথাই কি শেষ কথা নাকি। আমাকে যেতে দিন।
–এখান থেকে তুমি সাতদিন পরেই ছাড়া পাবে।
বলেই অরণ্য পাখিকে ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে দরজা আটকে দিল। আর পাখি অনবরত দরজা ধাক্কাচ্ছে আর কাঁদছে।



#চলবে?