ভালোবাসি তোমাকে পর্ব:১০

0
1047

গল্প ::::::ভালোবাসি তোমাকে ?❤️
পর্ব:১০
Writer ::Sajna আকথের

রায়হান রুমে প্রবেশ করতেই তার মাথায় ফুলদানি দিয়ে আঘাত করি তখনি আহ চিৎকার করে মাটিতে লুটিয়ে পরে রায়হান,, আমি তার দিকে না তাকিয়ে এক দৌড়ে চলে আসি রাস্তায় সবকিছু অজানা এ কোথায় এসে পড়লাম আমি কোনদিক দিয়ে যাবো এ শহর যে আমার অচেনা একটা মানুষ কি গাড়ি ও দেখতে পাচ্ছি না কার কাছে সাহায্য চাইবো কোনকিছু না ভেবেই হাঁটা শুরু করলাম যে করেই হোক আমি রোশান এর কাছে যাবো রোশান ছাড়া যে আমি নিঃস্ব,, ওকে ছাড়া আমার নিশ্বাস বন্ধ হয়ে আসছে,, হে আল্লাহ পথ দেখাও আমায় আমি যে কিছুই চিনতে পারছি না
হাঁটতে হাঁটতে অনেকটা পথ পেরিয়ে গিয়েছি অন্ধকার নেমে এসেছে চারিদিকে শুধু বন জঙ্গলে ভরপুর কেউ কোথাও নেই ভয়ে আমার হাত পা ঠান্ডা হয়ে আসছে কেউ কি নেই যে আমাকে সাহায্য করবে ওই জানুয়ারটা আমাকে এতদূর নিয়ে এসেছে এখন আমি কোথায় যাবো আর যে হাঁটতে পারছি না আমি
.
বডিগার্ড :::::স্যার সব জায়গায় খুঁজছি কিন্তু কোথাও ম্যাডাকে পাওয়া যায় নি (মাথা নিচু করে)
.
রোশান :::::আমার গান আর ব্লাক কোর্ট ব্লাক গাড়ি সবকিছু তৈরি করে রাখো এক্ষুনি আমি বের হবো
.
বডিগার্ড :::::স্যার এখন তো অন্ধকার নেমে এসেছে কোথায় খুঁজবেন (ভয়ে ভয়ে)
.
রোশান ::::যা বলছি তাই করো ?
.
বডিগার্ড ::::জজী স্যার ?
.
রোশান :::::যেকোনো কিছুর বিনিময়ে হলেও আমার তোমাকে চাই আমি মাকে হারিয়েছি তোমাকে হারাতে দিবো না যতক্ষণ আমার প্রাণ আছে তোমাকে খুঁজে বের করবোই,, কোথায় তুমি নিশাত আমার যে তোমাকে খুব প্রয়োজন
প্রতিটিক্ষন শুধু তোমায় ভাবি,জানি অনেক দুরে আছো,তবু ও এই আশায় থাকি তোমায় কাছে পাবো।ভালোবাসা এমনই,কখনও কাউকে ভুলে থাকা যায় না।সে যতই দুরে থাকুক।হারিয়ে যাওয়া মানেই শেষ হয়ে যাওয়া নয়,হয়তো হারিয়ে গিয়েও সুখ ফিরিয়ে দেয়া যায়।ভালবেসে গেলেই ভালোবাসা পেতে নেই,সবাইকে ভালোবাসার স্বাদ পেতে নেই।ভালোবাসা মানেই সুখের পরশ নয়,প্রকৃত ভালোবাসা হয়তো বেদনাতেই হয়।
.
.
আমি :::::কে আপনারা আমার কাছে আসবেন না বলে দিচ্ছি,, আমি কিন্তু চিৎকার করবো
.
ছেলে ::::::করো চিৎকার তোমার ওই গলার আওয়াজ আমরা ছাড়া কেউ শুনবে না সুন্দরী (বলেই তিনটা ছেলে হাসিতে মেতে উঠলো)
.
ওরা আমাকে নিয়ে অনেক বাজে বাজে কথা বলছে আমার এইসব কথা একদম সহ্য হচ্ছে না কি করবো আমি এদের সাথে আমি পেরে উঠবো না একা একটা মেয়ে আমি তার উপর শরীর খারাপ আমার বমি করে যাচ্ছি একটু জল ও পাচ্ছি না,, তিনটে লোক আমার দিকে এগিয়ে আসছে আমি কোনো রকম একটা ছেলেকে ধাক্কা দিয়ে দৌড় শুরু করি জঙ্গলের রাস্তা দিয়ে দৌড়াচ্ছি পেছনে ওই তিনটা অসব্য ছেলে আছে হঠাৎ একটা গাড়ি আমার চোখে পড়ে আমি আর দেরি না করে ওই গাড়ির কাছে চলে যাই সাহায্য চাইতে
গাড়ি থেকে নেমে আসা লোকটার দিকে তাকিয়ে আমার সারা পৃথিবী ঘুরে ওঠে এবার কি আমার বাচার আসা টুকু ছেড়ে দিতে হবে, পেছনে তিনটে লোক সামনে রায়হান ও তার দল নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে,, রায়হানের কয়েকটা লোক এসে ওই তিনটি ছেলেকে মারতে শুরু করে ওরা মার খেয়ে একরকম পালিয়ে যায় আমি একদম পাথরের মতো দাঁড়িয়ে আছি কি হচ্ছে আমার সাথে কেনো এমন হচ্ছে
.
রায়হান ::::::কি ভেবেছিস তুই এতো সহজে আমার কাছ থেকে চলে যাবি,, এতটা দুর্বল এই রায়হানকে পেয়েছিস, তোকে আমার কাছে সারাজীবন বন্দি হয়ে থাকতে হবে আর আমার ভালোবাসাই তোকে তোর রোশানকে ভুলিয়ে দেবে
.
নিজেকে আর আটকে রাখতে পারলাম না শরীরের সর্বস্ব শক্তি দিয়ে রায়হানের গালে ঠাসসসস
আমি :::::তুই ভাবলি কি করে তোর মতো শয়তান জানুয়ার এর সাথে আমি থাকবো আর আমার স্বামীকে তুই কতটুকু চিনিস যে তাকে ভুলে যাওয়ার কথা বলছিস

তখনি রায়হান আমার চুলের মুঠি ধরে বলে উঠে
রায়হান ::::::খুব স্বামী দরদী তাই না ?এবার থেকে আমার জন্য তোর এই দরদ থাকবে শুধুই আমার জন্য

আমি :::::আমি আপনাকে ঘৃণা করি i just hate you ? জীবনেও ক্ষমা করবো না আপনাকে ছাড়ুন বলছি আমায় জানুয়ার শয়তান একটা

ঠাসসস ঠাসসস আমার দুই গালে থাপ্পড় মেরেই যাচ্ছেন রায়হান ভাইয়া লাস্ট এর থাপ্পড় খেয়ে আমি মাটিতে লুটিয়ে পড়ি তখনি একটা বিকট শব্দ ভেসে আসে চোখের সামনে স্পষ্ট ভেসে ওঠে রক্ত রঞ্জিত হাত,, হে রায়হানের হাতে গুলি লেগে রক্ত ঝরে পড়ছে সবাই পেছন ফিরে থাকায় আমি বসা থেকে উঠে থাকাতেই সামনের ব্যাক্তির দিকে অপলক তাকিয়ে আছি আর একমুহূর্ত দেরি না করে দৌড়ে রোশানের বুকে ঝাঁপিয়ে পড়ি পাগলের মতো কান্না করতে থাকি সাথে উনিও কাঁদছেন
দুজন দুজনকে মনে হচ্ছে কতযুগ ধরে দেখিনি
ভালবাসার মানুষ যতোই দূরে থাকুকনা কেনো, কখনো মনে হবে না যে সে দূরে আছে, যদি সে অনুভবে মিশে থাকে ।
ভালবাসা মানে আবেগের পাগলামি,,ভালবাসা মানে কিছুটা দুষ্টামি ।ভালবাসা মানে শুধু কল্পনাতে ডুবে থাকা,,ভালবাসা মানে অন্যের মাঝে নিজের ছায়া দেখা ।

.
কান্না করতে করতে একসময় আমি জ্ঞান হারাই রোশানের বুকে ডলে পড়ি

রোশান নিশাতকে পাজোকোলে তোলে নেয় আর ওর লোকদের বলে
রোশান :::::এদের সবকটাকে আমার আস্তানাতে নিয়ে চলো
(রোশানের লোকেরা বন্দুক তাক করে রায়হান সহ ওর লোকদের ঘিরে রেখেছিলো)
.
.
.
ধীরে ধীরে চোখ খুলে থাকাই পাশে মা বাবা ভাইয়া আর আমার শ্বশুর সবার মুখেই খুশির হাসি ভেসে উঠে হঠাৎ সবাই এতো খুশি কেনো হয়তো আমাকে ফিরে পেয়ে কিন্তু ওনি কোথায় ওনাকে দেখতে পাচ্ছি না কেনো রুমের সবাই আমাকে ভালো মন্দ জিজ্ঞাসা করে চলে গেলেন পরক্ষণেই ওনি রুমে প্রবেশ করলেন
.
আমার পাশে এসে বসে আমার হাত ধরে বলে উঠলেন
.
রোশান :::::আমাদের ঘরে নতুন অতিথি আসতে চলেছে
.
আমি ::::মানে ?
.
রোশান :::::মানে (মুচকি হেসে) তুমি মা আর আমি বাবা হতে চলেছি
.
.
.
তিন বছর পর❤️?
.
আমার আর রোশানের ফুটফুটে একটা ছেলে হয়েছে,, আমাদের ছেলের নাম,, রনক আহমেদ তানিম
রনকের চেহারা পুরো ওনার মতো হয়েছে নাক কান চোখ বাপের মতো জন্ম দিয়েছি আমি আর চেহারা পেয়েছে বাপের ভাবা যায়
.
সেদিন এর পর রায়হানের কোনো খবর জানা নেই আমার ওনাকে বললে ওনি শুধু বলেন ওর প্রাপ্ত শাস্তি দিয়েছি আমিও আর জানতে চাই না ওই লোকটার খবর থাক না কিছু অজানা কথা সুখেই তো আছি আমার রোশান আর সন্তানকে নিয়ে
.
হঠাৎ ওনি আমাকে পেছন থেকে জড়িয়ে ধরলেন
.
রোশান :::::তুমি আমার ভালবাসা, আমি তোমার জান। ভালবাসার ফুল দিয়ে, লিখবো তোমার নাম। তুমি আমার ময়না পাখি,আমি তোমার টিয়ে। তোমায় আমি রাখবো বুকে,ভালবাসা দিয়ে
.
.
আমি :::::বাহ দিন দিন আমার বরটা রোমান্টিক হয়ে যাচ্ছে
.
রোশান :::::তুমি বলতে চাইছো আমার মধ্যে কোনো রোমান্টিকতা নেই (ব্রু কুঁচকে)
.
.
.
চলবে…..