Black Rose Part-10 ( Season_02)

0
2462

#Black_Rose
#Season_02
#The_Dark_Prince_of_vampire_kingdom♚
#Lamiya_Rahama_Meghla
#Part_10

জানালার দিকে মুখ করে তাকিয়ে আছি আমি৷
মাত্র কিছু দিনের ব্যাবধানে কেমন সব পাল্টে গেছে৷
মাম্মাম কথা বলে না বাবাই ও রাগ৷
আদ্রিয়ান খনে খনে কথা শুনায়৷
চাচু সে মাঝে মাঝে আমাকে বুঝায়৷
মনি খেয়াল রাখে কিন্তু যার ভেতরে অশান্তি তার বাইরে কি ভালো হয়৷
–সত্যি আমি অপারক আর কিছু বলার নাই৷ আমার কষ্ট হয়ে গেছে আমাকে মুক্তি দেও৷
আমি মুক্তি চাই৷
সত্যি যেদিন সবাই জানবে সেদিন আমিও কাউকে ক্ষমা করবো না৷
বলে দিলাম।
কথা গুলো বলে কাঁদতে থাকে আদ্রিজা৷


কলেজে,
আদ্রিয়ান ক্লাস নিচ্ছে। আদ্রিজা কলেজে আসে নি আজ ৩ দিন৷
আজ ৩ দিন তাদের মধ্যে সব কিছুই এলোমেলো হয়ে চলেছে।
মাঝে মাঝে খুব ইচ্ছে করে আদ্রিজাকে বিশ্বাস করতে কিন্তু করতে পারে না৷
আদ্রিয়ান ক্লাস শেষ করে বাইরে বের হয়ে নিচের উদ্দেশ্যে আসছিলো এমন সময়,
–আরে আদ্রিয়ান ভাইয়া আপনি৷
কেমন আছেন?
–জুছি রাইট৷
–জি ভাইয়া৷
–আলহামদুলিল্লাহ। তুমি কেমন আছো?
–জি সৃষ্টিকর্তা রাখছে ভালো৷
–এতো দিন পর এখানে৷
–কি আর বলবো আদ্রিজার এক্সিডেন্ট এর পর আমি বাইরে চলে যাই৷
এই কাল আসলাম আবার চলে যাবো৷
এ কলেজে একটু কাজ ছিলো তাই এলাম৷
আদ্রিজা এখন কেমন আছে৷
বাইরে যাবার পর শুনেছিলাম কোমায় চলে গেছে৷
তার পর আর কথা হয় নি৷
দেখি সময় করে ওকে দেখতে যাবো৷
–আদ্রিজার এক্সিডেন্ট মানে৷
–সেকি আপনি জানেন না৷
–না আমাকে বলো৷
–এক্সিডেন্ট করলো না।
৩ বছর তো মেবি হতে গেল৷
–জুছি আমার কাজ আছে আমি আসছি৷
(জুছি হলো আদ্রিজার পুরোন ক্লাসমেট৷ ওদের সম্পর্ক টা ভালো ছিলো.। আদ্রিয়ান বাইরে যাবার আগ পর্যন্ত জুছিকে চিনতো৷ কথা হতো৷ )
আদ্রিয়ান এক প্রকার দৌড়ে গাড়িতে উঠে বাসায় চলে আসে।
এসেই প্রথম মেঘের কাছে যায়৷
–বড়ো মা৷
–কিরে বাবা কি হইছে৷
–বড়ো মা ৩ বছর আগে কি হইছিলো আদ্রিজার সাথে৷
–হটাৎ।
–বড়ো ম প্লিজ তোমার বলেছো ও কথা বলবে না আমিও অনেক ট্রায় করে ছেড়ে দি৷ ভেবেছিলাম ও ভালো থাকবে তাহলে কোন কথা বলবো না৷
কিন্তু সত্যি বলো কি হইছিলো৷
–আদ্রিজা এক্সিতেন্ট করে আর পুরো ২ বছর কোমায় থাকে৷
তুমি একা ছিলে আর ওর প্রতি দূর্বলতা আমরা জানতাম৷ তাই কিছু বলি নি৷
–ও কোমায় ছিলো বড়ো মা৷
–হুম৷
–আর আমি
–কি বাবা
–কিছু না আমি আসি৷
আদ্রিয়ান বেরিয়ে এলো৷
–সব সত্যি বার করবো আমি আজই৷ (আদ্রিয়ান)



রাতে,
আমার ঘুম ঘুম চোখ দুটো বুঁজে নিলাম৷
আর বন্দি জীবনে ঘুমি আমার সাথী।
চোখ বন্ধ করার ৫ মিনিট পর মুখের উপর পানি অনুভব করছি৷
সাথে সাথে চোখ খুলে ফেলি৷
হটাৎ কেউ আমার মুখে রোমাল
ঠেসে ধরে।
ঘটনা চক্রে আমি এতোটা ঘাবড়ে যাই যে হাত পা ছোটাছুটি করতে ভুলে যায়।
হটাৎ ই চোখ বুজে এলো আর কিছুই সরন নাই৷


আদ্রিয়ান পাগলের মতো আদ্রিজাকে খুঁজে চলেছে।
আদ্রিজা নেই৷
–আদ্রিয়ান বাবা থামো৷
–কিন্তু চাচু৷
–আমি আমার মেয়েকে ভুল বুঝেছি আজ ৩ দিন কথা বলি না৷
কতোটা কষ্টে ছিলো মেয়েটা আমার তা আমি বুঝিনি। ।
মেঘকে কিছু বলো না তোবা ওর সমস্যা হবে৷
–জি ভাইয়া। কিন্তু এখন কি হবে৷ ।
–আমার জন্য সব হইছে৷
আমি ভুল বুঝেছি আমার জন্য এতো কিছু৷
কিন্তু আমি কথা দিচ্ছি। আদ্রকে আমি ছাড়বো না।
চাচু চলো আমার সাথে।
–হুম অনেক হইছে আজ সব কিছুর মূল্য চোকাতে হবে৷
#The_king_of_vampire_kingdom
তার আসল পাওয়ার দেখাবে আজ৷


আমান আদ্রিয়ান রওনা হলো।

ওদিকে,
আদ্রিজাকে একটা চেয়ারের সাথে হাত পা বেঁধে রেখেছে আদ্র৷
কড়া পাহারা৷
বাইরে ভেতরে।
আদ্র আদ্রিজার দিকে তাকিয়ে আছে৷
ব্লাক কালারের একটা লং সার্ট আর প্যান্ট পরা তার৷
চুল গুলো ছাড়া৷
মুখের উপর পরেছে।
ফর্সা মুখটা চুলের পাশ দিয়ে দৃশ্যমান৷
কি মায়াবি সে মুখ যা দেখে পাগল হাজার জন।
আদ্র তার হাতটা আদ্রিজার ওরনার দিকে এগোতে কেউ তাঁকে এমন জোরে আঘাত করে মুখে যে আঘাত সে সহ্য করতে না পেরে উল্টো দিকে পরে যায়।
–আদ্রিয়ান তুই৷
–শুধু আদ্রিয়ান না এখানে আমি আছি৷
–king আপনি৷
–ওকে সেখানে নিয়ে যাও যেখানে আমি বললাম।
আমার মেয়ে যেন না উঠে কোন শব্দ হবে না৷
আমানের কথা শুনে সবাই মিলে আদ্র আর আদ্রের সহচারী দের নিয়ে যায় অচেন কোন পথে৷
–চাচু আমি একটা পারমিশন চাই৷
–কিসের৷
–আমি ওকে নিয়ে বাইরে কোথাও দুরে যেতে চাই৷
–কোথায়৷।
— খান বাড়ির সেই বাংলো তে৷
–আচ্ছা বাট জলদি এসো আমার অনেক কাজ আছে৷
তোমাদের অনেক কিছু বলার আছে৷
–জি চাচু৷ ।
আদ্রিয়ান আদ্রিজাকে নিয়ে রওনা দিলো৷
পরবর্তী পর্ব পড়তে পেইজটি তে লাইক দিন এবং গল্পের লিংক পেতে আমাদের গ্রুপে জয়েন করুন। গ্রুপের লিংক কমেন্ট বক্সে দেওয়া আছে।
চলবে,